এক-ই ইজাজাত দিয়ে দাও ব্যাস………………………..

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ১:৩৭ |

লিঙ্ক উৎসর্গঃ নুশেরা।

লিঙ্ক
প্রিয় ব্লগার নুশেরার অনুরোধে গুলজারের এই বিখ্যাত গীতীকবিতা ‘মেরা কুছ ছামান’ অনুবাদ করার চেষ্টা করেছি।মূল উর্দু থেকে বাংলায় অনুবাদ দুরূহ কাজ।কন্টেন্ট,ভাব,আবহ,আবেদন বিচ্যুত হতে বাধ্য। তাই ভুলভ্রান্তি হলে মার্জনা করবেন। গানটি এখানে

আ আ আ আ আ
মেরা কুছ ছামান তুমহারি পাছ পড়া হ্যায়
ও শাওয়ান কে কুছ ভিগে ভিগে দিন রাখখে হ্যায়ে
ও কওন মেরে এক খাত মে লিপটি রাত পড়ি হ্যায়
ও রাত বুঝা দো মেরা ও ছামান লওটা দো…..

ও পতঝাড় হে কুছ হ্যায়..হ্যায় না ? উঁ ?

ও পাতঝড় মে কুছ পাত্তো কি
গিরনে কি আহাত..
কানোমে ইকবার পাহেনকি লাওটাইথি..
পাতঝাড় কি ও শাখ আভি তাক কাঁপ রাহি হ্যায়
ও শাখ খিরা দো…..
মেরা ও ছামান লওটাদো….

এক আকেলি ছত্রিমে জো
আধে আধে ভিগ রাহেথে
আধে শুখে আধে গিলি
শুখা তো ম্যায় লে আয়িথি
গিলামন শায়েদ বিস্তার কে পাছ পড়া হো…..
ও ভিজওয়া দো
মেরা ও ছামান লওটা দো……

একসো ষোলা চাঁদ কি রাতে
এক প্রহারে কাঙ্গে কাটু
গিলি মাহেঙ্গি কি খশবু
ঝুটমুট কে সিকউয়ে কুছ….
ঝুটমুটকে ওয়াদেভি সব ইয়াদ কারা দো
সব ভিজওয়া দো…..
মেরা ও ছামান লওটা দো..

এক ই ইজাজাত দে দো বাস
জব ইছকো দাফনাউঙ্গি…..
ম্যায়ভি ওহি সো জাউঙ্গি ,ম্যায়ভি ওহি সো জাউঙ্গি…।

বঙ্গানুবাদঃ

আমার কিছু সম্পদ পড়ে আছে তোমার কাছে
সেই শাওনের কিছু বিছু ভেজা ভেজা দিন রেখে এসেছিলাম
আমার কোন এক রাতও চিঠির খামে লেপ্টে পড়ে আছে…..
মুছে দাও সে রজনী
ফিরিয়ে দাও আমার সে সম্ভার…..

সেই অরণ্যেও কি কিছু আছে ? আছেনা?

সেই অরণ্যেও কিছু পাতার সেকি আকুতি পতনের..
একবার তুলে এনেছিলাম কানে পরার জন্য
বাঁশঝাড়ের সেই শাখাটি আজো কেঁপে চলেছে
সেই কাঁপুনি থামিয়ে দাও…..
আমার সেই সম্পদ আমায় ফিরিয়ে দাও..

একা একেলা ছাতার নিচে সেই যে আধা আধা ভিজে গেছিলাম
গিলামন ও আধা ভিজে গেছিল
আমি তো শুকনোই এনেছিলাম
হয়ত সেই গিলামন তোমার বিছানার পাশে পড়ে আছে
সেটাও পাঠিয়ে দাও…..
ফিরিয়ে দাও আমার সে সম্ভার…..

একশ’ ষোল চাঁদের রাত
যেন কেটে গেছিল এক লহমায়
জ্যোৎস্না মাখানো সুবাস আর
মিছামিছি অভিযোগ সেই সব
সেই মিছামিছি ওয়াদাও মনে করিয়ে দাও…
সে সব পাঠিয়ে দাও
ফিরিয়ে দাও আমার সে সম্ভার…..

একটাই অনুমতি দিয়ে দাও ব্যাস
যখন এই সব সমাধিস্থ করে দেব
আমি যেন ওখানেই শুয়ে থাকতে পারি
আমি যেন ওখানেই পড়ে থাকতে পারি ।

 

লেখাটির বিষয়বস্তু(ট্যাগ/কি-ওয়ার্ড): উর্দু গীতীকবিতার অনুবাদউর্দু গীতীকবিতার অনুবাদ ;
সর্বশেষ এডিট : ০৭ ই জুন, ২০১০ রাত ৩:১২ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর…

 

 

৪২৭ বার পঠিত১৯

 

২০টি মন্তব্য

১. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ১:৪৫

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ওরেব্বাপ! দুরূহ বটে। তবে “মিথ্যামিথ্যি” বড় জিভে লাগছে। মিছেমিছির কী দোষ?

আমার এই পোস্টটা দেইখা পাঁচটা প্রিয় কবিতার নামধাম দিয়া গেলে ভালো হৈতো।

২. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ১:৫১

মনজুরুল হক বলেছেন: সেটা একটু পরে দিচ্ছি। তার আগে একটু সাহায্য করেন ।
আমি এই গানটা এ্যাড করতে পারলাম না।খুব ইচ্ছা ছিল গানটা পোস্টে দেয়ার…..

৩. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:০৩

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: গানটি কোনো লিংকে থাকলে তো সরাসরি লিংকই পেস্ট করে দিতে পারছেন। নাকি ইউটিউবের লিংক?

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:১১

লেখক বলেছেন: লিঙ্কেও না,ইউটিউবেও না। আছে MPEG ফাইল আকারে।এখন ?

৪. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:১৭

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: এমপিজিই ফাইল ব্লগে সরাসরি দেওয়ার উপায় নেই। সাইজ বড় বলে দেওয়াটাও ঠিক হবে না। আপনার ইন্টারনেট কানেকশন যদি দ্রুতগতির হয়, তাহলে মিডিয়াফায়ারে গানটি আপলোড করে পোস্টে লিংকটি যুক্ত করে দিতে পারেন। তবে সবচেয়ে ভালো হয়,অডেসিটি ব্যবহার করে গানটি এমপিথ্রি ফরম্যাটে রূপান্তর করে ফেললে।

৫. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:৫৪

খিলালী বলেছেন: কাকু, আপনের অনুবাদ : সে রাত বুঝিয়ে দাও

উর্দুতে বুঝা অর্থ মুছে দেওয়া। কখনো কখনো নিভিয়ে বা বন্দ করে দেওয়া। আমার ভারতীয় মাউরা (উরদু ভাষী বলে, লাইট বুঝা দো!)।

অনুবাদ ভালেঅ হইসে। তবে গিলামন বুঝি নাই। মিথ্যামিথ্যি আর প্রতিজ্ঞার বিকল্প শব্দ দেখেন পান কি না।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:০৬

লেখক বলেছেন: “ও রাত বুঝা দো”রে কি করর্তাতাম ?সেই রাত বন্ধ করে দাও ? নাকি সেই রাত বুজাইয়া দেও ? হয়না। সবকিছু বাংলায় হয়না। হেই লাইগ্যা ডিসক্লেইমার দিলাইছি কাগু ।

গিলামন একধরনের উত্তরীয়। এইডা লেখলে ভাল্লাগতো না হের লাইগ্যা গিলামনই রাকসি ।হ মিছামিছি করন যায়। ওয়াদে কে অবশ্য ওয়াদা বললে হতো। থ্যাঙ্কু।

৬. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:১০

খিলালী বলেছেন: আঁর কাকু কত বালা! এইত্ত বুজিলাইসেন। মুছে দাও সে রজনী ফিরিয়ে দাও সে সম্ভার। কিন্তু কাকু, লেখক-কবি-অনুবাদকরে জ্ঞান দেয় মূর্খরা। আমি হেই দলে যাইতে রাজি না। আপনের ভাবনার গোড়ায় সামান্য সার দিলাম।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:১১

লেখক বলেছেন: আমার ভাবনার গোঁড়ায় প্রদেয় সার সানন্দে গৃহিত হলো ।

৭. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:৩৬

নুশেরা বলেছেন: মনজুরুল ভাই,
আমি অভিভূত, আপ্লুত, বিমুগ্ধ।
আমার ছোট্ট একটা অনুরোধ আপনি মনে রেখেছেন, শত ব্যস্ততার মাঝেও সুকঠিন লিরিকের এমন চমত্কার অনুবাদ করেছেন… তারপর উপরি পাওনা উত্সর্গ! কী সৌভাগ্য!আমি বরং মূল গানটির লিংক দেয়ার চেষ্টা করি।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ দুপুর ২:৫১

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ নুশেরা।খুব ভয়ে ভয়ে সারলাম কাজটা।দাঁতভাঙ্গা থিয়োরিটিক্যাল লেখা অনুবাদ পর্যন্তই আমার দৌড়।আমার মেইল আই ডি দিলাম। মেইলে আপনার ই ডি দিলে আমি কিছু mpeg ফাইল পাঠাব।ওগুলো লিঙ্কে দেয়া যাচ্ছেন।

. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:৪৪

রাতমজুর বলেছেন:

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ দুপুর ২:৫৩

লেখক বলেছেন: কিছু না-বলাই বোধহয় ভাল।তবুও……..কৃতজ্ঞ ।

৯. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ সকাল ৯:৩৬

সুরভিছায়া বলেছেন: মুল গানটা আমার ভাল লাগে । অনুবাদ ভাল হয়েছে ।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ দুপুর ২:৫৪

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ।

১০. ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ দুপুর ১২:২৩

জাতেমাতাল বলেছেন: মনজুরুল ভাই, বাপরে বাপ, করছেন কি? অসাধারন অনুবাদ রে ভাই,
আমি যার পর নাই অভিভূত।
যদিও আমি খিলালীর সাথে একমত……..লেখক-কবি-অনুবাদকরে জ্ঞান দেয় মূর্খরা। আমিও হেই দলে যাইতে রাজি না।
শুধু একটা বিষয়ে আমি সবার দৃষ্টি আকর্ষন করতে চাই- হিন্দি অথবা উর্দ্দু উচ্চারন বাংলায় লিখার সময় আমরা ‘স’ গুলোকে ‘ছ’ করে দিই কেনো? হিন্দিতে কিন্ত ‘স’ এবং ‘ছ’ দুটোই বিদ্যমান, তাদের আলাদা উচ্চারন সহ।
খেয়াল করেন আপনি কিন্তু ‘কুছ’ বলছেন আবার ছামান বলছেন, দুটোর বানান কিন্ত সম্পুর্ন আলাদা। তো ‘শায়েদ’ যদি উচ্চারন হতে পারে, শামান কেন নয়।
বিষয়টা ভাববেন আশা করি।

১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০০৮ বিকাল ৩:০২

লেখক বলেছেন: ‘স’ এবং ‘ছ’ বিদ্যমান।ঠিক।কিন্তু ‘সামান’ উচ্চারণটা ঠিক হয়না।দন্তস্পর্শিত শব্দমালা যা একটু হাস্কি ধরণের সেটা ‘শামান’ যুক্তিযুক্ত নয়। মালামাল বা মালপত্র এর হিন্দি ‘ছামান’ই সহি মনে হয়েছে আমার কাছে। হ্যাঁ, ‘শায়েদ’ ছায়েদ বা সায়েদ হবে না।

আপনার পর্যবেক্ষণের জন্য ধন্যবাদ।

১১. ২৬ শে অক্টোবর, ২০০৮ সন্ধ্যা ৭:৩৮

পক্ষপাত বলেছেন: আচ্ছা গিলামন কি ভেজামন ? আমার হিন্দি বা উর্দু খুবই খারাপ তরপরও মনে হলো যে শুকনো শরীর নিয়ে মেয়ে / ছেলে টি চলে গেছে আর ভেজামন টা ফিরিয়ে দেবার জন্য অনুরোধ করছে

১২. ০৪ ঠা নভেম্বর, ২০০৮ রাত ১১:১৩

স্বাক্ষর শতাব্দ বলেছেন: ভাই রে, অনুবাদ কইর‌্যা তো ছারখার কইর‌্যা দিছেন।

 

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s