ফিরে চলেছি আপন ঠিকানায়

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:২১ |

একটি যন্ত্রদানব আমার শস্যক্ষেত তছনছ করে দিয়েছে
একজন জেনারেল হাজার চোখের সামনে আমায় উলঙ্গ করে দিয়েছে
একদল সৈন্য আমার খেড়োঘরে আগুন দিয়ে হাত-পা সেঁকেছে
একজন মুখবাঁধা দালাল আমায় হিড় হিড় করে পথে ঠেলে দিয়েছে
আমি ফিরে চলেছি আমার আপন ঠিকানায়,সাথে আমার প্রিয় কুকুর…..

এই পিচ ঢালা পথ যখন মাটি ছিল
তখন আমরা ধুলো ওড়াতাম আনন্দ খুশিতে,
সাথীতে,আর আমাদের স্বপ্নের ডালপালা আকাশে ছড়াতে
আমরা হাতে হাত ধরে এখানে এসেছিলাম
আমরা বৃক্ষ লতা-পাতা কুসুম পাখি আর সোনালী সূর্য সাথে মানুষ পুতেছিলাম।
কতদিন পর যেন মানুষগাছ আকর্ষী ছাড়িয়ে বেড়ে উঠেছিল
আমি আমার সব মানুষ পুতে দিয়েছি পাহাড় আর স্তেপের খাঁজে
আমি ফিরে চলেছি আমার আপন ডেরায় সাথে সাতরাজার স্মৃতি…..

বসনিয়া আবখাজিয়া স্তেপ সওমিং আমার পোঁড়া ভূমি
কান্দাহার শিরোমণি আত্রাই সিচ্যুয়ান আমার পোড়ো বাড়ি
মার্বেল পাথরে ঘসে ঘসে একটা সমন এসেছিল
বন বন করে ঘুরতে থাকা পেপারওয়েট একটা
কাগজে থেমে গিয়েছিল,ধুসর ঘোলাটে কাগজ
যাতে আমাদের মৃত্যুসমন লেখা ছিল,যাতে বাঁকা করে পরোয়ানা লেখা ছিল।
আমার সবুজ ফসলি জমিনে ধুসর কাগজ সাদা হয়ে পড়ে ছিল।
কাগজেরা বলেছিল-ক্যুইট দ্য ল্যানড ফর ডেমোক্র্যাসি
আমি ফিরে চলেছি আমার আপন সাকিনে সাথে চৌপ্রহর ঘৃণা…..

আমি ফিরে চলেছি অজানায়
আমি ফিরে চলেছি অনিশ্চিতে
ভূমিহীন,কায়াহীন,জুবুথুবু এক স্কেলিটন
আমি ফিরে চলেছি শেঁকড় উপড়ে মাটিসহ
অথচ নতুন অঙ্কুরের ক্ষমতা আমার নেই!
আমি ফিরে চলেছি শুধু হৃদপিন্ড নিয়ে
রেখে যাচ্ছি আমাদের জরায়ূ আর সর্বনাশা বীজ,
কোন এক ঘনবর্ষার সকালে যে অঙ্কুরিত হবে
অজস্র ব্যকটেরিয়ার মত,যার ললাটে লেখা থাকবে-
আনআইডেন্টিফায়েড অবজেক্ট!

 

লেখাটির বিষয়বস্তু(ট্যাগ/কি-ওয়ার্ড): যুদ্ধ ;
প্রকাশ করা হয়েছে: কবিতা  বিভাগে । সর্বশেষ এডিট : ০৭ ই জুন, ২০১০ রাত ৩:২২ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর…

 

 

৫৫২ বার পঠিত৪২১১

 

৪৪টি মন্তব্য

১. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:২৪

মনজুরুল হক বলেছেন:
আপনাদের এই তিনটি মন্তব্য কাট করে এই পেজে আনা হল।

১. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:০৮ একজন ব্লগার বলেছেন: ফাটাফাটিসটিক কবিতা। রিয়েলি ফাটাফাটিসটিক!! জবাব দিন|মুছে ফেলুন | ব্লক করুন

আপনার জবাবটি লিখুন

২. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:১২ নাসিমূল আহসান বলেছেন: এটা কি কোনো অনুবাদ কবিতা নাকি মৌলিক রচনা।
সে যাই হোক; বড় সংবেদনশীল।

একটি যন্ত্রদানব আমার শস্যক্ষেত তছনছ করে দিয়েছে
একজন জেনারেল হাজার চোখের সামনে আমায় উলঙ্গ করে দিয়েছে
একদল সৈন্য আমার খেড়োঘরে আগুন দিয়ে হাত-পা সেঁকেছে
একজন মুখবাঁধা দালাল আমায় হিড় হিড় করে পথে ঠেলে দিয়েছে

…কথাগুলো বাংলাদেশের এ নষ্ট সময়কে সমর্থন করে কী? জবাব দিন|মুছে ফেলুন | ব্লক করুন

আপনার জবাবটি লিখুন

৩. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:১৬ একরামুল হক শামীম বলেছেন:
আমি ফিরে চলেছি অজানায়
আমি ফিরে চলেছি অনিশ্চিতে
ভূমিহীন,কায়াহীন,জুবুথুবু এক স্কেলিটন
আমি ফিরে চলেছি শেঁকড় উপড়ে মাটিসহ
অথচ নতুন অঙ্কুরের ক্ষমতা আমার নেই!
আমি ফিরে চলেছি শুধু হৃদপিন্ড নিয়ে
রেখে যাচ্ছি আমাদের জরায়ূ আর সর্বনাশা বীজ,
কোন এক ঘনবর্ষার সকালে যে অঙ্কুরিত হবে
অজস্র ব্যকটেরিয়ার মত,যার ললাটে লেখা থাকবে-
আনআইডেন্টিফায়েড অবজেক্ট!

এই লাইনগুলো আমাকে আরো অনেক অনেক বার পড়তে হবে……

দারুন বললেও কম বলা হয়…. জবাব দিন|মুছে ফেলুন | ব্লক করুন

আপনার জবাবটি লিখুন

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৩৪

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ একজন ব্লগার। এতদিন কৈ আছিলেন ?

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৩৮

লেখক বলেছেন: @ নাসিমূল আহসান। না অনুবাদ নয়। মৌলিক।একজন যুদ্ধবিধ্বস্থ মানুষের ছবি দেখে লেখার উপকরণ মিলেছে।

হ্যাঁ অবশ্যই এটা বাংলাদেশের নষ্ট সময়কে ইন্ডিকেট করে।

ধন্যবাদ আপনাকে।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৪০

লেখক বলেছেন: শামীম আপনার মন্তব্যের বিষয়ে পরে বলি………..

৩. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৩৬

রাতমজুর বলেছেন: আনআইডেন্টিফায়েড অবজেক্ট হয়েই বেঁচে আছি।
শালার জীবন! জেনারেলেদের ইগোতে মরি আমরা। হেরে গেলেও ওদের কি?! সেলিব্রেটি না! ঠিক বেঁচে যায়, হাজতে থাকলেও ভিআইপি, জামাই আদরে থাকবে!

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৪৭

লেখক বলেছেন: শালার জীবন!! আমাদের আবার জীবন নাকি ? শেয়াল-কুকুরের জীবন!লাথি খেয়ে ঝাঁটা খেয়ে কুই কুই করে দুয়োরের পাশে হেট হয়ে থাকি….

কুকুর তবুও ঘেউ ঘেউ করে, আমরা তাও পারি না!কেবলই ল্যাজ নাড়াই……………..আজ এক চ্যানেল পারফরমার বাঞ্চোৎ বলে..আপনারা ‘জ্বালাও-পোড়াও’ করেন ক্যান ?মুখের মধ্যে সান্ধ্যকালিন কি সব বালছাল ছিল,ঝেড়ে মা-খালা উর্দ্ধার করতে পারলাম না! ওই শালাকে বন্ধের পর ধরব………মেজাজ খিঁচড়ে আছে ।

চাডিগাঁ কবে যাবেন ?

৪. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৩৮

জেনারেলিসিমো বলেছেন: হ্যাটস অফ।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৪৮

লেখক বলেছেন: প্রাউড টু ইউ

৫. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৪৯

রাতমজুর বলেছেন: কাল যাচ্ছি ৪ এ ফিরবো :)

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৫৪

লেখক বলেছেন: ইয়াতিম করিয়া যাইবেন ? খডে ? খন্নোফুলি দইজ্জ্যাত?

৬. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ২:৫৮

তারার হাসি বলেছেন: সমস্ত শহরটা একদিন হঠাৎ করে বধ্যভূমি হয়ে গ্যালো
যে কিশোর ছিলো জীবনের বহ্নিতে উদ্দাম
তার অমেয় সংগ্রাম অকস্মাৎ ধ্বংসস্তূপে রক্তাক্ত পড়ে থাকে
হয়তো বা মৃত্যুর ওপার থেকে সুকঠিন শপথ তাহার
বীজ বোনো মহীরুহ মুক্তির—

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:১৩

লেখক বলেছেন: সিনসিয়ারলি,এপনার এই কমেন্টটা একটু টেনে বাড়ালে অসাধারণ একটা বাঙময় কবিতা দাঁড়িয়ে যেতে পারে। ব্রাভো।

৭. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:০০

রাতমজুর বলেছেন: হা হা হা, না বস, মা যাবেন তার কাজিনের বাসায়, তাই যাওয়া, ফুল স্কেল ইকুইপমেন্ট নিয়ে যাবো, ওখান থেকেও নেটে থাকবো, ঈদে সামনাসামনি না হোক, ভার্চুয়াল কোলাকুলি হবে :)

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:১১

লেখক বলেছেন: ইয়ে হুয়ি না বাৎ…..বহোত আচ্ছা।

৮. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:১৭

তারার হাসি বলেছেন: এটা আমার লেখা না, হায়াৎ সাইফ এর “মুক্তি” কবিতার কয়টি লাইন।
:)

৯. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৩:২২

মনজুরুল হক বলেছেন: ও । আমার কবিতা পড়ার ভান্ডার ছোট।কার কি চিনতে পারি না।এনিওয়ে,আপনার স্টক এবং সার্সিং দারুন।

১০. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:২৯

জাতিশ্বর বলেছেন: “আমি ফিরে চলেছি আমার আপন ঠিকানায়,সাথে আমার প্রিয় কুকুর…..”

অসাধারণ লিখেছেন। এন্টিগল্প আর লিখছেন না ?

২৭ শে মার্চ, ২০০৯ রাত ১২:১০

লেখক বলেছেন:
সময় হচ্ছেনা রে ভাই।

১১. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:৪৬

মনজুরুল হক বলেছেন: ধন্যবাদ।সময় পাচ্ছি না।

১২. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:৫১

আশরাফ মাহমুদ বলেছেন: অসাধারণ লেগেছে। প্রিয়তে রাখলাম।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:৫৮

লেখক বলেছেন: প্রিয়তে রাখার মত ভাল ? বলেন কি ?

১৩. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:৫৬

রাজর্ষী বলেছেন: দারুন ভালো লাগলো

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:৫৯

লেখক বলেছেন: আশাবাদী হলাম

১৪. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:০৫

তামিম ইরফান বলেছেন: মনজুরুল ভাই ভুলটা ধরিয়ে দেবার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ:)….ঠি করে বা দিলে ভুলটা থেকেই যেতো:)

২৭ শে মার্চ, ২০০৯ রাত ১২:০৩

লেখক বলেছেন: আমার নিজেরই গাদাগাদা ভুল হয়রে ভাই!!

১৫. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:০৬

তামিম ইরফান বলেছেন: **ঠিক করে না দিলে

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:৩১

লেখক বলেছেন: বেশ বেশ। আপনার মনটা ভাল।নিজের ভুল ধরা পড়লে মানুষ ছিদ্রান্বেষী ব্যক্তিকে পছন্দ করে না।

যদিও কী-বোর্ডে আমার যথেষ্ট পরিমাণে ভুল হয়।এই সব বানান ভুল নিয়ে আসলে “নিখূঁতগিরির” শেষ নেই……..এই যেমন,ঠিক হইয়াও হইল না ঠিক…”ন” টাও ভুল, হবে এই “ণ”। কারণ “র” এর পর সবসময় “ণ” ই হয়।

ম্যালা ফাও প্যাঁচাল হয়ে গেল …সরি।

১৬. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:১৬

ছন্নছাড়ার পেন্সিল বলেছেন: কবিতা খুব বেশি আলোড়িত করে আমাকে। এটা কেন জানি খুব কষ্ট দিলো সাথে সাথে। কষ্ট খুব তীব্র হলে রং পাল্টে দ্রোহ হয়ে যায় বলে বিশ্বাস করি। এই কবিতার শরীর জুড়ে শুধু সেই দ্রোহ!!

কবিতায় উচ্চারিত হোক সকল বীভৎসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ! ধন্যবাদ।

প্রিয়তে…

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৫:৩৫

লেখক বলেছেন: আমিও এটা মানি।বিত্ত নাই,স্থাবর নাই,অস্থাবর নাই,হাতের কাছে যাদুচেরাগ নাই,তালগাছের মত দেহ নাই যে শক্তি দিয়ে রুখে দেব অন্যায় কে………আছে শুধু
ওই দ্রোহ টুকুই। ওটা না থাকলে আমরা তো গোবরের দলা অথবা ভূঁষি ।

১৭. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৬:৩০

তামিম ইরফান বলেছেন: :)

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ ভোর ৬:৩৪

লেখক বলেছেন: গুড রাইটিং(লাস্টের পোস্ট);):((:P

১৮. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ সকাল ৮:৩৯

কঁাকন বলেছেন: অভিবাদন গ্রহন করুন কবি

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ দুপুর ১:৫৭

লেখক বলেছেন: সশ্রদ্ধচিত্তে করলাম।

১৯. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ সন্ধ্যা ৭:৩৯

নুশেরা বলেছেন: আমি ফিরে চলেছি শেঁকড় উপড়ে মাটিসহ
অথচ নতুন অঙ্কুরের ক্ষমতা আমার নেই!—আমাদের নৈমিত্তিক অক্ষমতার কী ক্ষুব্ধ প্রকাশ!
কবিতাটির প্রতি সশ্রদ্ধ মুগ্ধতা।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ সন্ধ্যা ৭:৫১

লেখক বলেছেন: আপনারা যারা কবিতা লেখেন/পড়েন তাদের সামনে ভয়ে ভয়ে রিপ্রেজেন্ট করলাম…..গদ্য নিয়ে কারবার,কবিতায় অভ্যেস নেই।

২০. ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ৯:০৮

আহমেদ হেলাল ছোটন বলেছেন: এন্টি গল্পের মত কবিতাও টান টান উত্তেজনায় ভরপুর।

আমি ফিরে চলেছি আমার আপন ডেরায় সাথে সাতরাজার স্মৃতি…..

আমি ফিরে চলেছি শেঁকড় উপড়ে মাটিসহ
অথচ নতুন অঙ্কুরের ক্ষমতা আমার নেই!
…………………….. ধন্যবাদ

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৮ রাত ১০:৩৬

লেখক বলেছেন: আমি ফিরে চলেছি কাঁপা কাঁপা পায়ে
বাঁশের সাকো বেয়ে শালুকের ঘ্রাণ নিতে…..সেই আমার ঠিকানা……..

২১. ১১ ই জানুয়ারি, ২০০৯ সকাল ৭:১৭

সত্যান্বেষী বলেছেন: ‘রেখে যাচ্ছি আমাদের জরায়ূ আর সর্বনাশা বীজ,
কোন এক ঘনবর্ষার সকালে যে অঙ্কুরিত হবে
অজস্র ব্যকটেরিয়ার মত,যার ললাটে লেখা থাকবে-
আনআইডেন্টিফায়েড অবজেক্ট!’***

না, না ঈশ্বর আপনার এই অঙ্কুরসম্ভবা সর্বনাশা বীজ
সরিয়ে নিন, সরিয়ে নিন। আমাদের কিছু সন্তান দিন
যারা আলোর রেখার মতো উজ্বল হাতে
নতুন কিছু ইতিহাস বই লিখবে পুরনোগুলোর মন্ডজাত কাগজে।

১১ ই জানুয়ারি, ২০০৯ রাত ১১:৩৭

লেখক বলেছেন: আপনার সংযোজিত চারটি লাইনের জন্য অভিবাদন গ্রহণ করুন।
আমার এখন ক্রান্তিকাল চলছে ! আর লিখতে পারছি না !! কেন যে, তাও ব্যাখায়ীত নয় !!

২২. ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৯ বিকাল ৪:১৩

ত্রিশোনকু বলেছেন: “আমি ফিরে চলেছি অজানায়
আমি ফিরে চলেছি অনিশ্চিতে
ভূমিহীন,কায়াহীন,জুবুথুবু এক স্কেলিটন
আমি ফিরে চলেছি শেঁকড় উপড়ে মাটিসহ
অথচ নতুন অঙ্কুরের ক্ষমতা আমার নেই!”আপনার সিংহভাগ সময় কবিতা রচনায় ব্যয় করা উচিৎ।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৯ রাত ১:২৯

লেখক বলেছেন:
“আপনার সিংহভাগ সময় কবিতা রচনায় ব্যয় করা উচিৎ।”
——————————————————
বলেন কি! আমার কি কবিতা আসে? এসব কি কোন কবিতা? কে জানে !!

 

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s