শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়… তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!!!

Comrade Saroj dutta

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:২১ |

 

আপনাকে শেষবার দেখা গেল ময়দানের এপাশে,
আপনি অবনত মস্তকে হাঁটছেন…..
আপনি কি যেন ভাবছিলেন, ভবিষ্যৎ কিংবা অতীত।
আকাশে ন্যাংটো দাঁড়ানো ছিল কালপুরুষ
স্বাতী,অরুন্ধতী,সপ্তর্ষী আরো কত তারারা
অনড়, অম্বয়, অক্ষয় স্থির সময়কে থমকে দিয়ে।

আসলে আপনি কিছুই ভাবছিলেন না
আপনি এস্টাবলিশমেন্টকে বিশ্বাস করছিলেন না,
আপনি জানতেন-কিছু একটা ঘটবে
আপনি জানতেন-এভাবে হয়না………..
কিন্তু জানতেন না ছোট্ট সিসের টুকরো টা
কী ভয়ানক ইতিহাস গড়ে দিতে পারে…

এরপর ঠিক পেছন থেকে
খুব সন্তর্পণে আলগোছে
একটা বুলেট ছুঁটে এলো
ঠিক মাথার পেছনে
ফুটো করে দিল, ছোট্ট একটা ফুটো!
সোরখেল পনের হাত পেছনে
দাঁড়ানো, সময় আর বিশ্বাস সাথে করে।
আপনি একবার পেছন ফিরে দেখলেন
তারপর খুব ধীরে ধীরে পড়ে গেলেন
ময়দানে।

যেখানে মুক্ত বাতাসে মানুষেরা
জীবন খুঁজে ফেরে সকাল-বিকেল।

সময়টা সকাল, খুব প্রাণময় সকাল,
পাখিদের সদ্য ঘুমভাঙ্গা চোখে বিস্ময়!
টানা বয়ে চলা বিষাক্ত বাতাসও স্তব্ধ!
ক্ষণিক থেমে আবারো ব্যস্ত হাঁটুরেরা
ছালওঠা কুকুরও সরে যায় কাজে
আপনি অনড় পড়ে রইলেন- যেন
শ্রীকাকুলামের নিকষ পাথুরে পর্ব্বত!

সেদিন এমনই বৃষ্টিমুখর দিন ছিল
সেদিন গাছেরা মুখর ছিল নবযৌবনে
সেদিন খুব সকালে কেওড়াতলায়
একটা চিতা জ্বলেছিল দাউ দাউ করে…..

সেই থেকে আর একটা আগুন জ্বলে
চলেছে দাউ দাউ করে-
হাতে,বুকে, চোখে, আর বিশ্বাসে।
প্রতিশোধের সেই আগুন আজও
খুঁচিয়ে তাজা করি কমরেড!
জ্বলে জ্বলে শরীরের সমস্ত নোনাজল
বাষ্প হয়ে উড়ে যায়…আগুন নিভে আসে…
সবাই চলে যায় বেলা শেষে
শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…
তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!!!

মহান মাকর্সবাদী ত্বাত্ত্বিক সরোজ দত্ত স্মৃতি স্মরণে

 

লেখাটির বিষয়বস্তু(ট্যাগ/কি-ওয়ার্ড): শ্রদ্ধার্পণ ;
প্রকাশ করা হয়েছে: স্মৃতিকথা  বিভাগে । সর্বশেষ এডিট : ১১ ই জুন, ২০১০ রাত ৩:৪৯ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর…

 

 

এডিট করুন | ড্রাফট করুন | মুছে ফেলুন

৭৫৯ বার পঠিত৭৮৪২৭

 

মন্তব্য দেখা না গেলে – CTRL+F5 বাট্ন চাপুন। অথবা ক্যাশ পরিষ্কার করুন। ক্যাশ পরিষ্কার করার জন্য এই লিঙ্ক গুলো দেখুন ফায়ারফক্সক্রোমঅপেরাইন্টারনেট এক্সপ্লোরার

 

৮৪টি মন্তব্য

১-৪৩

১. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:২৫০

তনুজা বলেছেন: আসলে আপনি কিছুই ভাবছিরেলন না – ভাবছিলেন ~~~টাইপো

সোরখেল , শ্রীকাকুলামের কি ?

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৩৭০

লেখক বলেছেন:

সোরখেল এ এস পি। যে সরোজ দত্তকে বলেছিল…‍”যান দাদা, আপনি মুক্ত”। তারপর পেছন থেকে ঠান্ডা মাথায় গুলি করেছিল।

শ্রীকাকুলাম পর্ব্বতময় অঞ্চল। অন্ধ্রপ্রদেশে। ৩৮ বছর আগে যেখানে বিপ্লবের আগুন জ্বলে উঠেছিল, বাংলাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে…এখনো ওখানে মুক্তাঞ্চল টিকে আছে।

২. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:২৯০

ব*  বলেছেন: মনজু ভাই,

আসলে আগুন পাহারায় বসে থাকে অনেকেই…

আঁচও অনুভব করে অনেকেই

সেটাকে আরেকটা আগুনে পরিণত করতে পারে কয়জনে???

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৪১০

লেখক বলেছেন:

প্রথমে একজনে পারে। তারপর শত জন…হাজার জন…লাখো জন….

কিন্তু শুরু করার চেষ্টায় এত সন্দেহ কেন ?

৩. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:২৯০

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন:

সবাই চলে যায় বেলা শেষে

শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…

তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!!!

শ্রদ্ধা কমরেডকে।

ভালো লাগলো………

শুভেচ্ছা।

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:১৩০

লেখক বলেছেন:

আমাকে শ্রদ্ধা জানানোর কিছু নেই সাজি।

শ্রদ্ধা অন্যায় ভাবে নিহত সকল বিপ্লবীকে।

আপনাকেও শুভেচ্ছা।

৪. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৩৬০

কালপুরুষ বলেছেন: এই সেরেছে! আমিতো দ্রৌপদী নই, আমার এহেন বস্ত্রহরণে আমি ভীষণ বিব্রতবোধ করছি। আমার এমন দুরাবস্থা দেখে কান্না পাচ্ছে। যাই হোক কবিতা ভাল হয়েছে, আঁচ উপলব্ধি করা যাচ্ছে।

অনেকদিন দেখা হয়না। আশা করি ভাল আছেন।

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:১৬০

লেখক বলেছেন:

হুম দাদা, তলোয়ার হাতে আকাশের গায়ে হেলানে দাঁড়ানো কালপুরুষ অবশ্যই ন্যাংটো। আপনি তো সে নন! আপনি হলেন সময়ের পুরুষ = কালপুরুষ। নাকি ভুল বললাম ?

দেখা হবে কি করে? সেদিনও আপনি ছবির হাটে এলন না। আমরা বসে থেকে থেকে চলে এলাম………

একদিন ফোন দিয়ে বাসায় চলে যাব।

৫. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৩৭০

রুবেল শাহ বলেছেন: ভাল লাগা রইল……………….

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:০৪০

লেখক বলেছেন:

কৃতজ্ঞতা রুবেল।

শুভেচ্ছা নিন।

৬. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৪৬০

ব*  বলেছেন: দেখিনা…

কোথাও আগুনতো দুরের কথা ধোঁয়াও দেখিনা…

যাদের ভিতর প্রথম প্রথম আগুন জ্বালানোর সম্ভাবনা দেখি, কিছু দিন পর তাদেরও দেখি নির্বীর্য হয়ে যায়…

নিজেকেও দেখি কেমন নির্জীব হয়ে গেছি…

সন্দেহ কি এমনি এমনি করি???

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:১৯০

লেখক বলেছেন: “নিজেকেও দেখি কেমন নির্জীব হয়ে গেছি…”

এটাই হলো সক্রেটিসের কথা।

অন্তত এটুকু রক্ষা করে চলো, দেখবে কোন একদিন মিছিলের সাথীরা টোকা দিয়ে গেছে….

৭. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৪৯০

ক*  বলেছেন:

সেই থেকে আর একটা আগুন জ্বলে

চলেছে দাউ দাউ করে-

হাতে,বুকে, চোখে, আর বিশ্বাসে।

প্রতিশোধের সেই আগুন আজও

খুঁচিয়ে তাজা করি কমরেড!

পাহারায় আছি মন্জু ভাই! আরো অনেকেই আছে। একটা সময় নিজেকে হারিয়ে ফেলেছিলাম। আজকাল আপনাদের সবার ভীরে আবারো স্বপ্ন দেখি। জিইয়ে রাখি তারুন্যের সেই বদলে দেয়ার, পাল্টে দেয়ার, ভাঙ্গার স্বপ্ন গুলো।

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:০৮০

লেখক বলেছেন:

একটা সময় নিজেকে হারিয়ে ফেলেছিলাম। আজকাল আপনাদের সবার ভীরে আবারো স্বপ্ন দেখি। জিইয়ে রাখি তারুন্যের সেই বদলে দেয়ার, পাল্টে দেয়ার, ভাঙ্গার স্বপ্ন গুলো।


আমাদের আশা এতটুকুই যে আমরা আত্মসমালোচনা করতে জানি। এই যে আপনি লিখলেন, এটা কি কোন বুর্জোয়ার পক্ষে সম্ভব ? ককখনো না।

স্বপ্নগুলো লালন করুন। স্বপ্ন দেখার তো বয়সের বার নেই! দিন বদলের স্বপ্ন সারাটা জীবনের স্বপ্ন। ওকি সহজে পুরোনো হয় ? হয়না। লেগে থাকো কমরেড!

৮. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৫১০

একলব্যের পুনর্জন্ম বলেছেন: প্রতিশোধের সেই আগুন আজও

খুঁচিয়ে তাজা করি কমরেড!

জ্বলে জ্বলে শরীরের সমস্ত নোনাজল

বাষ্প হয়ে উড়ে যায়…আগুন নিভে আসে…

সবাই চলে যায় বেলা শেষে

শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…

তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!!!

………………………………………..

স্যালুট সরোজ দত্ত

++++++

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:৫৭০

লেখক বলেছেন:

তোমাদের মত এই প্রজন্মের প্রতিনিধিদের কাছে এখনো যে কমরেডরা স্যালুট পায় এটিকেই আমি স্যালুট জানাই।

স্যালুট অপু।

৯. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৫২০

শ* বলেছেন: অঃটঃ Click This Link

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:১১০

লেখক বলেছেন:

দেখলাম। পরে কমেন্ট করা যাবে। তবে এটা বলে রাখি— হ্যাঁ বলতেই পারে। বলার অধিকার আছে বলেই ওটার নাম ওই। মানব শব্দটা সার্বজনীন।

১০. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ৯:৫৪০

মেঘবাজি বলেছেন: সন্দেহ এমনি এমনি হয়না

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১২:৩৬০

লেখক বলেছেন:

তবুও স্বপ্ন দেখি

তবুও স্বপ্ন দেখতে উৎসাহ দেই।

১১. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:২০০

মনজুরুল হক বলেছেন: চাট্টে গিলে আসি……

১২. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:৩২০

সত্যান্বেষী বলেছেন: কাকতালীয় ভাবে ঘটল দুটো ঘটনা। প্রভাকরণের সর্বো্চ্চ ত্যাগস্বীকার -আর এই কবিতা। প্রভাকরণকে মনের ভিতর রেখে আমি সারা বিকেল শুধু ভাবছিলাম – মুক্ত বাতাসের জন্য যারা প্রাণ দেয় তারা আসলে মরে না, কিংবা যারা মানুষকে দাস বানানোর যন্ত্রটা ভেঙে দেয়ার লড়াইয়ে মুখ থুবড়ে পড়ে তাদের আসলে বিনাশ নেই। তারপর ঝা করে বিপ্লবী মুফাখ্খার চৌধুরীর কথা মনে পড়ে কাপুরুষ রেবের হাতে নিহত হওয়ার ঠিক আগের মুহুর্তটিতে যে বলেছিল – বিপ্লবীর মৃত্যু নেই।

কবিতাটি ঝা করে ইতিহাসের উজ্জ্বলতম সময়গুলোতে গোপন ইসতেহার বিলি করা লাখো কমরেড যাদের কাছে মৃত্যু হলো সর্বোত্তম শিল্প তাদেরকে খুব কাছে নিয়ে এল।

একদিন নিশ্চয়ই জ্বলে উঠবো পূর্ণাঙ্গ।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১২:৪০০

লেখক বলেছেন:

আপনার মন্তব্যটি অনেক দিনের জমে থাকা কথার গোলায় আঘাত করে সব বের করে আনল! কিন্তু আজ আর লিখতে ভাল লাগছে না ।

একদিন নিশ্চয়ই জ্বলে উঠবো পূর্ণাঙ্গ।সেজন্য ভেতরে বারুদ আর কার্বাইড জমা হচ্ছে।

চোখে বিদ্যুৎ শানিত হচ্ছে…মিছিলে ডাক এল তৈরি থাকার প্রত্যয় রইল।

১৩. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১০:৪৩০

সহণ বলেছেন: আপনি জানতেন-কিছু একটা ঘটবে

আপনি জানতেন-এভাবে হয়না………..

কিন্তু জানতেন না ছোট্ট সিসের টুকরো টা

কী ভয়ানক ইতিহাস গড়ে দিতে পারে…

মন্জু ভাই উপমার খবর আপনি ই ভালো বলতে পারেন — আজ অব্দি। কেমন আছে আমাদের উপমা??????????????????????

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:০৩০

লেখক বলেছেন:

ভাল আছে কথাটা বলা ঠিক না। আছে একরকম। রোজই ব্যথা ওঠে, রোজই ওসুধে একটু প্রশমিত হয়। আগামী ২৮ তারিখে আবার এ্যাপোলোতে ডেট আছে। একটু আগেই ফোনে কথা হলো।

এতদিন কোথায় ছিলেন? আপনাদের সেই মানববন্ধনের কি হলো? সেই খালটা ?

১৪. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:২২০

মাহমুদ৬৯ বলেছেন:

লাল সেলাম কমরেড।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১২:৫৭০

লেখক বলেছেন: লাল সেলাম কমরেড।

১৫. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:২২০

কাকশালিখচড়াইগাঙচিল বলেছেন:

আঁচ পাইতেছি।

আরেকটা আঁচও পাইলাম, দেখছেনতো বামেরা শ্রেণী সংগ্রাম কী রকম করছে?

মমতার মত লোকও ভোট টানল।

১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:৫২০

লেখক বলেছেন:

রাইটার্স বিল্ডিংয়ের বাম বাবুরা আবার শ্রেণীসংগ্রাম কবে করল ? তারা তো শ্রেণী সংগ্রামকারীদের খুঁজে খুঁজে ঠান্ডামাথায় হত্যা করল !!

তো দর্শন আর প্রয়োগ যদি রাইটার্স বিল্ডিংয়ে বন্দি হয়ে যায় তাহলে মমতা কেন? শত্রুঘ্ন সিনহাও ভোট টানবে গো দাদা!

১৬. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:৩৮০

নাজমুল আহমেদ বলেছেন: মিছিলে যাব………. মিছিলে……………. বসে আছি মিছিলে যাবার অপেক্ষায়।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১:০৯০

লেখক বলেছেন:

অনবরত মিছিল হেঁটে চলেছে আমাদের কানের পাশ দিয়ে। কিছু শুনি, কিছু শুনতে পাইনা………….

১৭. ১৮ ই মে, ২০০৯ রাত ১১:৪২০

মানুষ বলেছেন: দুর্দান্ত!

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১:১২০

লেখক বলেছেন: কৃতজ্ঞ। পরিতৃপ্ত।

 

 

১৯. ১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১২:৪৭০

আকাশ অম্বর বলেছেন:

শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…

তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!!!

+

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:০৮০

লেখক বলেছেন:

ধন্যবাদ।

শুভেচ্ছা।

 

 

২২. ১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১:৩৮০

ক* বলেছেন: মনজুরুল ভাই, হাচা কইরা কনতো এইটা কবে নামাইছিলান ?

মনেইতেছে তরুণ বয়সের

শইলে আগুন ধইরা গেল উস্তাদ।

১৯ শে মে, ২০০৯ ভোর ৪:০১০

লেখক বলেছেন:

রাত ন’টার দিকে দাদা! তখন বোধহয় তরুন ছিলাম!!

২৩. ১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৪৪০

ফেরারী পাখি বলেছেন: কমরেড এবং কমরেড এর স্মরণকারীকে লাল সেলাম।

আমি একজন হরিপদ টাইপের মানুষ। জীবনের সাথে আপোস করে যার বেঁচে থাকা।

তারপরও এরকম হরিপদদের বুকের ভেতরও বোধ হয় কোথাও কোনখানে থাকে একটু আঁচ, একটু উত্তাপ।

আপনার কবিতাটা দারুণ ভালো লাগলো।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৫৯০

লেখক বলেছেন:

ওই আঁচ আর উত্তাপটুকুও যদি “আপোষ” থেকে আলাদা রাখার প্রেরণা যোগাতে পারি, তাহলে ধরে নেব লেখা-লেখির তাহলে কিছু পরিমানে মূল্য আছে।

প্রাতঃকালীন শুভকামনা। আমার এবার যাবার সময় হলো………………

২৪. ১৯ শে মে, ২০০৯ সকাল ১১:০৬০

ক*  বলেছেন: দেখেন মন্জু ভাই, এক এক করে জলের বিন্দু জড়ো হচ্ছে, এক সময় ঠিক ঠিক ঢেউ উঠবে……

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১০:০১০

লেখক বলেছেন:

আমাদের চারপাশে রোজই কেউ না কেউ

চেতনায় ভেতরে ভেতরে সশস্ত্র হচ্ছে,

কোথাও না কোথাও গুড়ুগুড়ু ডম্বরু বেজে উঠছে,

একদিন ঠিকই সব বেসুরো গান নিশ্চিত জানি

সঠিক সুরে বেজে উঠবে। সেদিন কমরেড সাথে থেকো।

২৫. ১৯ শে মে, ২০০৯ সকাল ১১:১০০

খারেজি বলেছেন:

এই হইলো সশস্ত্র কবিতা।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১০:০২০

লেখক বলেছেন:

পরিপূর্ণ।

২৬. ১৯ শে মে, ২০০৯ সকাল ১১:১৫০

কঁাকন বলেছেন: ভালো লাগলো

ভালো থাকুন

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১০:৩০০

লেখক বলেছেন:

অনবরত প্রেমহীন বেঁচে থাকা……..

২৭. ১৯ শে মে, ২০০৯ সকাল ১১:২৮০

আহমেদ রাকিব বলেছেন: আমার প্রিয় লিস্টে যুক্ত হওয়া প্রথম কবিতা সম্ভবত। খুব ভালো লাগলো।

১৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১১:১২০

লেখক বলেছেন:

আপনিওকি আমার মত কাব্যবিমুখ?

আমার প্রিয় লিস্টেও কোন কাব্য পোস্ট নেই!

২৮. ২০ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:০২০

প্রবর রিপন বলেছেন: জ্বলে জ্বলে শরীরের সমস্ত নোনাজল

বাষ্প হয়ে উড়ে যায়…আগুন নিভে আসে…

সবাই চলে যায় বেলা শেষে

শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…

ভাল লাগল

ক্রীতদাসের চিৎকার

কথা ও সুর ঃ প্রবর রিপন

স্পার্টাই আমিও ছিলাম সেই হেলট জারজ ক্রীতদাস

কোলিঙ্গের রণাঙ্গনে অশোকের তীরে

যার পাঁজরে এখনো রক্তক্ষরন,

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

আমার চোখের জ্যোতি কেড়ে দেখছো বিশ্ব সার্বজনীন

আর আমার হাড়ের স্তুপে মরুতে গড়েছো

এ কোন পিরামিড!!?

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

আমি কি বলতে পারি

এই প্রিয়তমা ঠিক আমারই!?

আর যে হাতিয়ারে হচ্ছে আমারই শিরচ্ছেদ

তা আমারই হাতে গড়া!?

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

নিনেভ থেকে নিউইয়র্কে

প্রদীপ ব’য়ে ব’য়ে ক্লান্ত এই বাহু

আর আমার শিশূর গরাদ ডুবে আছে ভয়াবহ আধাঁরে;

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

স্পার্টাকাস,

প্রমিথিউস

গৌতম বুদ্ধ

ঘুমিয়ে পড়েছে যে যার প্রদীপে

আর আমি জড়িয়ে আছি

এই মানবিক অক্টোপাসে

এই মানবিক অক্টোপাসে;

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

আফ্রিকার নির্জন অরণ্যে ঘুরে ঘুরে

নিগ্রো জননীর রক্তে স্নান করে ফিরি সেই বাগানে

যে বাগানে এখন আর কোন ফুল ফোটে না

প্রজাপতির পিছে ছুটতে ছুটতে

কোন কিশোরী পথ হারিয়ে ফেলে না;

একি সভ্যতা নাকি সব-ভোঁতা!?

একি সভ্যতা নাকি সব-ভোঁতা!?

একি সভ্যতা নাক সব-ভোঁতা!?

সিভিলাইজেশন নাকি সিভিল-লাইগেশন?

সিভিলাইজেশন নাকি সিভিল-লাইগেশন?

সিভিলাইজেশন নাকি সিভিল-লাইগেশন?

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

আমি কোন্ প্রজাতি

মানুষ না ক্রীতদাস?

২৪ শে মে, ২০০৯ রাত ১১:২৬০

লেখক বলেছেন:

আপনার এত চমৎকার কবিতা বিষয়ে কিছুই বলার নেই। আসলে খুঁজেই পেলাম না কিছু! এটা কি পোস্ট করেছিলেন ? অবশ্যি এদ্দিন পরে এসে কমেন্টের উত্তর দিলে তা ফাঁকায় উড়ে যায়!!

শুভ হোক।

২৯. ২৩ শে মে, ২০০৯ রাত ৯:২৭০

সত্যান্বেষী বলেছেন: প্রায়ই ভাবি – আমরা যারা মনের দিক থেকে অনেকাংশেই ঐক্যবদ্ধ তারা ‘মার্কসিজম জানা আর নাস্তিক হওয়াই সবকিছু’র মধ্যে বুঁদ না থেকে, বাম দলগুলোর ‘মিছিল আর মিছিলে’র বাইরে গিয়ে মানুষের জন্য কনক্রিট কিছু করা যায় নাকি। মানুষ, যাদের সম্পর্কে আমরা বলি একদিন লড়বে, পুজিবাদের প্রাচীর ভাঙবে, কিন্তু এই জীবনে যারা তার কোন ভাঙন দেখেনা, কেবলি ধুকতে ধুকতে মরতে থাকে তাদের জন্য কিছু করা যায় নাকি। যেমন, তাদের একটা অতি ক্ষুদ্র অংশের জন্য হলেও ভাত এবং শিক্ষার (ভাত ছাড়া শিক্ষা অচল) কিছু ব্যবস্থা করা যায় কিনা। একটা দাতব্য প্রতিষ্ঠানের মতো।

প্রতিক্রিয়া জানাবেন।

২৪ শে মে, ২০০৯ রাত ১১:৩৬০

লেখক বলেছেন:

ব্লগীয় পরিমন্ডল বলে যে শব্দটা আমরা ব্যবহার করি, সে সম্পর্কে আমি হতাশ! বেশ হতাশ।

তবে আপনি যেটি বললেন, সেটি করা সম্ভব। করা উচিৎ। আমি নিজেও তাই করি। আশা করব এই “করাটা” যেন আমরা অনেকেই করি। আপানার সাথে স্বক্ষাতে আলোচনা হওয়া দরকার। কাল হলে ভাল হবে। একান্তে কথা বলা যাবে। অপেক্ষায় থাকলাম।

৩০. ২৫ শে মে, ২০০৯ রাত ১:৫৭০

আবদুর রহমান (রোমাস) বলেছেন: দারুন লিখেছেন………++++++++++

শাসন—–শোষন……চলে…এতে…..নিরীহরা হয় শোষিত…… একদিন শোষিতদের একটু ঘৃনা, একটু ক্ষোভই বিন্দু বিন্দু হয়ে জমা হতে থাকে. এটা সাগর থেকে মহাসাগর রূপ নেয় অতঃপর সেই মহাসগরের সৃষ্ট ঘূর্নিঝড় লন্ডবন্ড করে দেয় অত্যাচারী শাসকদের…..!! যদিও এতে ঘুর্নিঝড়েরও ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে যায় তাতেও আত্মার পরম শান্তি পাওয়া যায়!! অন্তত পরবর্তী কিছু যুগ শাসকরা পূনরায় শোষনের দুঃসাহস পাবেনা।

………………………………………………………………………………….

স্যালুট….কমরেড…..আপনাকে এই সিভিলিয়ান এর রক্তিম সালাম !!

আশা করি ভালো আছেন………আপকনার….ব্যস্ততা কমলে… .যোগাযোগ করিব……..!!

২৫ শে মে, ২০০৯ রাত ২:০৪০

লেখক বলেছেন:

“.আপনাকে এই সিভিলিয়ান এর রক্তিম সালাম !!”

এইটা কিরে ভাই রোমাস ? ব্যাপক লজ্জা পাইলাম!

হ্যাঁ রোমাস অনেকদিন তোমাদের কাউকে দেখিনা। আগামী সপ্তায়ই একটা বসার বন্দোবস্ত করতে চাচ্ছি। তার আগে তোমাকে জানাব।

ভাল থেকো।

৩১. ২৫ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৩৩০

আশরাফ মাহমুদ বলেছেন: শুধু একজন বসে থাকে আগুন পাহারায়…

তুমি কি আঁচ পাওনা কমরেড!


হাততালি।

কবিতা সরোজ দত্তকে স্পর্শ করুক।

২৫ শে মে, ২০০৯ ভোর ৪:০৫০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ কবি।

৩২. ২৫ শে মে, ২০০৯ বিকাল ৩:৪৭০

তায়েফ আহমাদ বলেছেন: এত সুন্দর কথাগুলো আমার চোখ এড়িয়ে গেলো কি করে?

ধন্যবাদ, সুন্দর লেখার জন্য।

২৫ শে মে, ২০০৯ রাত ১১:৩৮০

লেখক বলেছেন:

অনেক ভাল’র ভিড়ে কোথাও থেকে যায় হয়ত…..খুঁজে পেতে পড়েছেন তাতেই কৃতজ্ঞতা।

৩৩. ২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:২০০

পলাশমিঞা বলেছেন: কবিতা অত ছোট কেন?

পঠাত করে পড়লাম কেমন??

অসাধারণ কবিতা লেখেছেন।

২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৩২০

লেখক বলেছেন:

ইডা খিতা কন্রে বা ? এইডা লিকিবার লাগি কত্তো বাবাবাভি করিয়া ফালাইছি………..

অয় অয়, ছুডো হৈছে।

থেঙ্কু ।

৩৪. ২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৩৪০

পলাশমিঞা বলেছেন: আমিত কাব্যপুরে হারাইয়া যাই কবিতা লেখার সময় আর আপনে ডুবইন চিন্তার সাগরও।

বাহ।

কবিতা কিন্তু অসাধারণ।

২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৪১০

লেখক বলেছেন:

নারে ভাই, চিন্তার সাগরও ডুবিনা, ডুবি কষ্টের সাগরও!

বুকের মদ্দিখানে কষ্ট। খোঁচা মারিয়া ঘায়ল করিয়া দেউন্ন্যে কষ্ট!

আমি চেষ্টা করেও ভালবাসার কবিতা পারিনা।

ধন্যবাদ পলাশমিঞা। শীত কি এট্টু কমছে নাকি ?

৩৫. ২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৪৪০

পলাশমিঞা বলেছেন: গত কাল অত গরম ছিল যে আমার গরম লাগছিল, আমার ঘরে গরম লাগেনা, সবাই যখন উদুম হয়ে নাচে তখন সামন্য গরম লাগে। তয় আজ বিকালে ঠাণ্ডা পড়েছে গত কালও রাতে ঠান্ডা পড়েছিল। এই বছর উলট পাল্ট হচ্ছে একদিন গরম একদিন ঠাণ্ডা। আজব লীলা।

আর আমি এমন কবিতা চাইলেও লেখতে পারিনা। খালি পীরিতির কবিতা লেখি তাই কবিতা লেখতে ভালা পাইনা বউয়ে খালি হাসে হাসে

আমি ভালোবাসার কবিতা ভালা লেখতা পারি তা কি আমার দোষ

২৬ শে মে, ২০০৯ ভোর ৪:৩০০

লেখক বলেছেন: মোটেই না! আপনার দোষ হবে কেন? এতো প্রেমের দোষ

৩৬. ২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৪৫০

পলাশমিঞা বলেছেন: দোয়া করি কষ্ট যেন লাঘব হয়

২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৫২০

লেখক বলেছেন: আমেন।

৩৭. ২৬ শে মে, ২০০৯ রাত ৩:৫২০

মনজুরুল হক বলেছেন:

কি আর করা ! কেউ যখন প্রাণ খুলে ভাল বাসতে পারল না, তখন ভালবাসার কবিতা কি করে আসে? তাই সে চেষ্টা করিও না।

হুম, এই কথা আমার ভাতিজিও কৈল কয়দিন আগে….এই গরম-এই ঠান্ডা! বিলাতের আবহাওয়া কি চেঞ্জ হৈয়া যাইতেছে…?

৩৮. ২৬ শে মে, ২০০৯ ভোর ৪:৩৯০

পলাশমিঞা বলেছেন: বৈশাখি মেলা আইন্না ওরা কালবৈশাখিকেও এনেছে। আবহাওয়া পুরাদমে বদলাইয়া গেছে। কখন গরম কখন ঠান্ডা দেবে কেউ জানেনা। আচকা বরফ পরে আবার ঠাঠাপড়ারইদ। আজবলীলা।

বউয়েও ভালোবাসাও পান্নি? আমি জোরে আদায় করছি

২৭ শে মে, ২০০৯ রাত ২:০৩০

লেখক বলেছেন: সেইডা আবার ক্যাম্তে গো দাউ? জুর করি কিছু আদায় করিয়া তৃপ্তি হয়নাকি? বউ তো সিস্টেমে পইরা ভালবাসে দাদা

৩৯. ২৬ শে মে, ২০০৯ ভোর ৪:৪২০

সুমিন শাওন বলেছেন: শিরোনাম দেখেই মনে হইছিলো এটা একটা ‘কবিতা’ হবে,,বাস্তবে পেলাম কবিতার চেয়েও বেশী,,আর নতুন হিসেবে আমিও খুশী,

ধন্যবাদ

২৭ শে মে, ২০০৯ রাত ২:০৫০

লেখক বলেছেন:

“কবিতার চেয়ে বেশী কিছু” ? কই না তো !

আমার ব্লগে আপনাকে স্বাগতম।

অট. আপনার নিকটি শ্রুতিমধুর। সুখপাঠ্য।

৪০. ২৯ শে মে, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪১০

বায়লোজি বলে আমি নাকি ছেলে!! বলেছেন: মাটি ও মাটি…..তোমার নেংটা বাচ্ছাটা কই……??!!!

হাতে হাতে খোলা দা তুলে দেই…দা তুলে দেই…….দাাাা…..

২৯ শে মে, ২০০৯ রাত ১১:৫৮০

লেখক বলেছেন:

বেশতো। হাতে হাতে খোলা দা….তারপর এক কোপে….। ভাল লিখেছেন।

অট. আপনার বায়লোজি বলে……এই “বলে” কি অর্থে ব্যবহৃত ?

যেমন এক “বলে” মানে বলা বা কওয়া।

আর এক “বলে” মানে বল বা শক্তি…..।

এখানে কোনটা পড়তে হবে?

৪১. ৩১ শে মে, ২০০৯ সকাল ১১:৩৩০

বায়লোজি বলে আমি নাকি ছেলে!! বলেছেন: কওয়া অর্থে কইছি…।

আমি নিজে জেন্ডারের পলিটিক্সে নাই….।

আমি য়েইসব পেচালের উপরে উইটা গেছি…

“sex is political condition:”——–Gramsci.

অবশ্য পরিদা আন্টিদের কথা চিন্তা করলে লিংগ য়েক প্রকার বানিজ্য…

০১ লা জুন, ২০০৯ রাত ১২:১৭০

লেখক বলেছেন:

কর্পোরেট জমানায় সবই তো একপ্রকার বাণিজ্য……..

আমরা কেউ এর বাইরে নই।

ঋজুভাবে ব্যক্ত করায় ধন্যবাদ।

৪২. ০১ লা জুন, ২০০৯ সকাল ১০:২৭০

বায়লোজি বলে আমি নাকি ছেলে!! বলেছেন: হু য়েখন কম্যুনিজম,ফিলোসফি য়েসব নিয়াও অনেকে বানিজ্য শুরু কর্ছে…….য়েগুলারে আগে শ্যুট করতে হবে……

০৪ ঠা জুন, ২০০৯ রাত ১০:৪৮০

লেখক বলেছেন: দ্য এন্ড!!

৪৩. ০২ রা জুন, ২০০৯ রাত ১২:০২০

আবু নাঈম বলেছেন: ভাল লাগল মনজুরুল । ভাল লাগল। ধন্যবাদ।

১৬ ই জুন, ২০০৯ রাত ১:৪৯০

লেখক বলেছেন:

ধন্যবাদ আবু নাঈম। ভাল থাকুন।

 

Top of Form

আপনার মন্তব্য লিখুন

কীবোর্ডঃ  বাংলা                                    ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয় ভার্চুয়াল   english

নাম

       

Bottom of Form

 

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s