টিপাইমুখের বলি ল্যাম্পপোস্ট এর আশিষ-প্রিন্সকে বাঁচাতে আওয়াজ তুলুন

symble

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:০৪ |

ল্যাম্পপোষ্ট কোন দলীয় রাজনীতি করে কিনা- জানিনা। ল্যাম্পপোষ্টের “মূর্খ” ছেলেমেয়েদের সম্পর্কে যতটুকু জানা যায়, ওরা রোদে পুড়ে বন্যার্তদের সাহায্যের জন্য মানুষের কাছে ভিক্ষে করে টাকা সংগ্রহ করে, রাত জেগে স্যালাইন বানায়, ছায়ানট ভবনের জন্য তহবিল সংগ্রহে আবৃত্তি করে, টিএসসি’র দেয়ালে পা দুলিয়ে বসে গান গায়,ছাত্ররা আক্রান্ত হলে ঝাঁপিয়ে পড়ে, বস্তি পুড়ে গেলে সাহায্য নিয়ে হাজির হয়। অনেকেই যখন দোদুল্যমানতায় ভোগে, ওরা তখন মাথা গুঁজে নিজেদের কাজ করে যায়, ওদের কোন “ওপরের নির্দেশ” দরকার করে না।

ভারতীয় হাইকমিশনের সামনে দুঃসাহসে শ্লোগান দেয়। যে বোকা ছেলে-মেয়েরা রাজনীতিতে দেশপ্রেম নামক ঢিলা-কুলুপের ক্ষেত্রফল জানেনা- তাদের কে বাঁচাবে! হ্যাঁ, আজ তাদের বাঁচা-মরার প্রশ্ন। ভারতীয় দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করার কারণে তাদের গ্রেফতারকৃত আশীষ ও প্রিন্সকে ৫ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশে রিমান্ড কি জিনিস সেটা যারা না ভুগেছেন তারা অনুভব করতে পারবেন না।

প্রথম আলো দেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদপত্র। তারা যখন এই সংগঠনকে “নিষিদ্ধঘোষিত”
আর একটি সংগঠনের শাখা বা অনুসারী বলে ট্যাগিং করেছে, তখন এর পরে কি ঘটতে যাচ্ছে সেটা সহজেই অনুমেয়। কাউকে দিয়ে কথা বলানোর জন্য রিমান্ড এক ভয়ংকর ব্যবস্থা। হয়ত আমরা দেখব দেশের জন্য মিছিল করা এই ছেলেগুলো নেই হয়ে গেছে! 
যে কাজ সরকারের করা উচিৎ সেই কাজ এই আত্মত্যাগী ছেলেগুলো করার কারণে যদি তাদের মৃত্যু ঘটে তাহলে টিপাইমুখের প্রতিরোধের আগে আমাদের সাহসী সন্তানদের জীবীত ফেরৎ চাই। 

ল্যাম্পাপোস্টের আশীষদের নিয়ে প্রথম আলোর চক্রান্তটা বুঝতে বিশেষজ্ঞ হতে হয় না। আমরা চাইব আশীষ ও প্রিন্সকে যেন ক্রসফায়ার করা না হয়। আপনারা সবাই যদি সরব হোন তাতে হয়তো বাংলাদেশে বিপ্লব হয়ে যাবে না। হয়ত আমরা টিপাইমুখে বাঁধ দেওয়া ঠেকাতে পারব না। কিন্তু দুইটা টগবগে তরুণতো বেঁচে থাকতে পারবে। খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষ বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না। আসুন আমরা এই দুটি ছেলের মুক্তির জন্য আওয়াজ তুলি। আমরা ফুলবাড়িতে, কানসাটে এরকম নাম না জানা অনেক ল্যাম্পপোস্ট কর্মীকে দেখেছি। তাদের আত্মত্যাগ দেখেছি।

আর কত আত্মত্যাগ করে এই মাটিকে সুফলা রাখতে হবে?
আর কত জীবন অকাতরে বিসর্জন দিয়ে শ্বাস নেওয়ার বাতাস পেতে হবে?
আর কত আশিষ প্রিন্সকে বাক স্বাধীনতার জন্য বলি হতে হবে?
আর কত রক্ত বুড়িগঙ্গায় ভাসিয়ে যাপিত জীবনকে পবিত্র করতে হবে?

সর্বশেষ এডিট : ১১ ই জুন, ২০১০ রাত ৩:৫৬ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর…

এডিট করুন | ড্রাফট করুন | মুছে ফেলুন

১৪৬২ বার পঠিত৩২০৮৪৩

মন্তব্য দেখা না গেলে – CTRL+F5 বাট্ন চাপুন। অথবা ক্যাশ পরিষ্কার করুন। ক্যাশ পরিষ্কার করার জন্য এই লিঙ্ক গুলো দেখুন ফায়ারফক্সক্রোমঅপেরাইন্টারনেট এক্সপ্লোরার

২০৮টি মন্তব্য

১-১০০ ১০১-১৩২

১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:০৭০

মগ্নতা বলেছেন: তুললাম আওয়াজ।

ল্যাম্পপোস্ট এবং অন্য বিষয়াদি লই বঙ্গবন্ধুকন্যা হাসিনার লগে খানিক খোশালাপ: আপনেরাও থাকুন

Click This Link

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:২৭০

লেখক বলেছেন: আপনার পোস্টে যাচ্ছি একটু পরেই। সহমর্মীতার জন্য ধন্যবাদ।

২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:০৮০

টুশকি বলেছেন: যদিও ল্যাম্পপোস্টের ব্যাপারে কিছুই জানি না।

কিন্তু পোস্টে সহমত

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:২৯০

লেখক বলেছেন:

যে বাঁধের কারণে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে তার বিরোধীতা করতে গিয়ে আজ আমাদের সাহসী ছেলেদের জীবন বিপন্ন। তাদের জীবন বাঁচাতে আওয়াজ তুলুন।

৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:০৮০

জাতেমাতাল বলেছেন: আশীষ কোড়ায়া ও প্রিন্স মাহমুদ নামে আটক দুইজন ছাত্রের নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে সোচ্চার হোন।

টিপাইমুখ বাঁধ বিরোধী আন্দোলন সফল হোক…

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:০৬০

লেখক বলেছেন: সোচ্চার হোন।

৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:১০০

মনজুরুল হক বলেছেন:

টিপাইমুখ বাঁধ নিয়ে আঞ্চলিক পরাশক্তির বিরুদ্ধে আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার যে লড়াই চলছে, তা কোন ব্যক্তিবিশেষ বা কোন সংগঠনের একার লড়াই নয়। এ লড়াই দেশপ্রেমিক প্রতিটি জনগনের, আমাদের প্রাণ, পরিবেশ এবং প্রকৃতিকে টিকিয়ে রাখার এ লড়াই, আমার আপনার সকলের।

ফলে যে যেখানে যে অবস্থানে আছেন, প্রতিটি সুযোগকে কাজে লাগান, আশীষ কোড়ায়া ও প্রিন্স মাহমুদ নামে আটক দুইজন ছাত্রের নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে সোচ্চার হোন।

৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:১২০

ফারযানা বলেছেন: আসুন আওয়াজ তুলি। আশীষ ও প্রিন্স এর জন্য আওয়াজ তুলি।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৫০

লেখক বলেছেন:

যে বাঁধের কারণে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে তার বিরোধীতা করতে গিয়ে আজ আমাদের সাহসী ছেলেদের জীবন বিপন্ন। তাদের জীবন বাঁচাতে আওয়াজ তুলুন।

৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:১৮০

কায়েস মাহমুদ বলেছেন:

তুললাম আওয়াজ,

আমরা নিরব হবোনা, আমরা নিস্তব্দ হবোনা।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৩০

লেখক বলেছেন:

যে বাঁধের কারণে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে তার বিরোধীতা করতে গিয়ে আজ আমাদের সাহসী ছেলেদের জীবন বিপন্ন। তাদের জীবন বাঁচাতে আওয়াজ তুলুন।

৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:১৯০

বলেছেন:

খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষকে বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না।

–কঠিন একমত ।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৪০

লেখক বলেছেন: আশিষ কোড়ুয়া আর প্রিন্স মাহমুদের মুক্তি চাই। দিতে হবে।

৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:২১০

জাতেমাতাল বলেছেন: নিচের লিখাটা তুলে দিলাম ফারুক ওয়াসিফেরপোষ্ট অডিসিয়াস ল্যাম্পপোস্ট ও বিসর্জিত দীপুমণি : আত্মবলিদানের প্রথম ধাপে যারা থেকে।

এই পোষ্টটা পড়েন, টিপাইমুখ বাঁধ বিরোধী সংগ্রাম সফল করুন।

তোমরা কারা? উত্তর: আমরা কেউ না?

প্রথম আলোয় প্রকাশ, ল্যাম্পপোস্ট ‘চরমপন্থী’ সংগঠন। প্রমাণ? প্রমাণ নাই। তবে এটা ‘জানা গেছে’ ‘সংস্লিষ্ট সূত্র’ মারফৎ। তারা কারা তা বলবার অপেক্ষা রাখে না। অথচ, জানা মতে তাদের সব কার্যক্রম আইনী সীমার মধ্যে থেকেই করা। আইনী প্রতিবাদকে চরমপন্থী তখনই বলা হয় যখন পরিস্থিতিই আসলে চরম হয়ে যায়। বাংলাদেশে এখন সেই পরিস্থিতিই বিরাজ করছে।

একই সংবাদে বলা হচ্ছে যে, পরিচয় জানতে চাইলে মধুর ক্যান্টিনে হাজির ল্যাম্পপোস্টের কর্মীরা সাংবাদিকদের নামের বেশি কিছু বলতে চায়নি। (সাংবাদিকদের তারা কেমন বিশ্বাস করে এটা তার একটা বহিপ্রকাশ।) এ থেকে কেউ যদি সিদ্ধান্তে আসেন যে, এটি একটি মাটির তলার সংগঠন, তা তারা আসতেই পারেন। আসলে উল্টাটা বেশি সত্য, যা অচেনা তাতেই তো ভয় বেশি। বাংলাদেশে দিন দিন অচেনা প্রতিবাদীদের দেখা যাবে, কারণ চেনারা ব্যর্থ নয়তো ফোপরা বা ভেজালভরা।

গুহায় আটক অডেসিয়াসকে যখন পলিফেমাস নাম জিগগেশ করে তখন সে বলে, আমি ‘কেউ না’। অডেসিয়াসের নামের মূল ‘উদিস’ মানেও কিন্তু ‘নোবডি’ মানে ‘কেউ না’। শেষে যখন অডিসিয়াস একচোখা দৈত্যের চোখ কানা করে তার দুপায়ের ফাঁক দিয়ে পালিয়ে যাবে, আহত দৈত্যের চিৎকারে যখন দ্বীপের অন্য দৈত্যরা ছুটে এসে জানতে চাইবে, কে তার এমন দশা করেছে, তখন পলিফেমাস বলবে, ‘কেউ না’। ‘কেউ না’-কে দানবের গুষ্টি কীভাবে খুঁজে পাবে?

যে বলে যে সে ‘কেউ না’, সে আসলে বোঝাতে চায় সে আমজনতা, অর্থাৎ সে সবার অংশ মাত্র, আলাদা কেউ নয়। ল্যাম্পপোস্টের পরিচয় বিভ্রাটের মনোদার্শনিক ব্যাখ্যা এটাই, তারা এতই ক্ষুদ্র ও অবিশেষ যে তারা জনগণেরই অংশ। যারা ‘কেউ না’ তারাই আজ মারণবাঁধের বিরুদ্ধে, দানবের ধ্বংসযজ্ঞের বিরুদ্ধে । এই ‘কেউ না’রাই এদেশের বেশিরভাগ মানুষ। সরকার বাহাদুর কতজনকে জেলে পুরবেন?

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৯০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ জাতেমাতাল।

৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:২৩০

মগ্নতা বলেছেন: এই ‘কেউ না’রাই এদেশের বেশিরভাগ মানুষ। সরকার বাহাদুর কতজনকে জেলে পুরবেন?

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪৫০

লেখক বলেছেন: সম্মিলিত মানুষের শক্তি সম্পর্কে শাসকদের ধারণা বরাবরই ভ্রান্ত।

১০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:২৯০

জাতেমাতাল বলেছেন: সহ ব্লগার খোমেনী ইহসান এর এই মন্তব্যটি সবাইকে পড়তে অনুরোধ করছিঃ

খোমেনী ইহসান বলেছেন: আমি এই পোস্টের আহ্বানটাকে জরুরি মনে করছি। কারণ আমি নিজের চোখেই বড় ভাই ও বন্ধুদের দেখেছি তারা কিভাবে ক্রসফায়ার হয়ে গেছে। যার সাথে মধুর কেন্টিনে এক দিন চা থেতে খেতে অনেক গল্প করেছি। হেসেছি দুদিন পরে সংবাদপত্রে পড়েছি সেইই ক্রসফায়ারে খুন হয়ে গেছে। এতো ভালো মানুষগুলো এভাবে খরচ হয়ে যায়, এনিয়ে অনেকগুলো রাতই নির্ঘুম কেটেছে।

আশীষদাকে প্রায়ই মাঝরাতে হলের নোটিশ বোর্ডগুলোতে পোস্টার সাটাতে দেখতাম। দাদা আমাকে বলতেন আমি তো সব জানিবুঝি তারপরো কেন পার্টি প্রাক্ট্রিসে আসিনা। আমি দাদাকে বলতাম, বাবা দেড়যুগ ফেরার থাকার পর আমরা পারিবারিকভাবেই রাজনীতিকে ভয় করি।

সম্প্রতি ল্যাম্পাপোস্টের আশীষদাদের নিয়ে প্রথম আলোর চক্রান্তটা বুঝতে পেরে আমি অনেক অসহায় হয়ে যাই। তিনদিন আমার দেশে আমিই রিপোর্ট করি। আমি শুধু চেয়েছি যেন আশীষদা ও প্রিন্সদাকে যেন ক্রসফায়ার করা না হয়।

আপনারা সবাই যদি সরব হোন তাতে হয়তো বাংলাদেশে বিপ্লব হয়ে যাবে না। কিন্তু দুইটা টগবগে তরুণতো বেচে থাকতে পারবে। খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষে বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪৭০

লেখক বলেছেন:

খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষে বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না।

১১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩০০

নাজনীন খলিল বলেছেন:

সহমত।+++++++++++++

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৯০

লেখক বলেছেন:

আপা ভাবুন একবার, এই ছেলেগুলোতো তাদের ব্যক্তি লাভের জন্য যায়নি! সারা দেশের মানুষের বাঁচার প্রশ্নে তারা প্রতিবাদ করেছে। এরা হয়ত আপনার সন্তানের বয়সীই। একন মায়ের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখুন, কি দুর্বিসহ অবস্থা। সবার কথা কইতে গিয়ে আজ তারা রিমান্ডে। কাল যে মরে যাবেনা সেই নিশ্চয়তা আছে কি ?

১২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৪০

সমীরণ বলেছেন: আপনারা সবাই যদি সরব হোন তাতে হয়তো বাংলাদেশে বিপ্লব হয়ে যাবে না। কিন্তু দুইটা টগবগে তরুণতো বেচে থাকতে পারবে। খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষে বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না।

সহমত…

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪৮০

লেখক বলেছেন: সহমত সমীরণ।

১৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৭০

পি মুন্সী বলেছেন: “খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষে বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না”।

না আরও সহজ ও ষ্পষ্ট করে বলুন,

খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষ বাঁচানো প্রথম গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

সেই সাথে বলি, আশীষ ও প্রিন্সের যদি কিছু হয় এর জন্য দায়ী থাকবে প্রথম আলো। এটা যেন প্রথম আলোর মনে রাখে।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৫৭০

লেখক বলেছেন:

“আশীষ ও প্রিন্সের যদি কিছু হয় এর জন্য দায়ী থাকবে প্রথম আলো। এটা যেন প্রথম আলোর মনে রাখে”

মুন্সী, আপনার এই কথাটি হাজার কথার এক কথা। এটিকে প্রাধাণ্যে রেখে আপনিও একটি পোস্ট দিন।

১৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৯০

ত্রিভুজ বলেছেন: ল্যাম্পোস্টের পাশে আছি।

টিপাইমুখ বাঁধ বিরোধী আন্দোলন সফল হোক…

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১৬০

লেখক বলেছেন:

ল্যাম্পোস্টের পাশে আছি।

টিপাইমুখ বাঁধ বিরোধী আন্দোলন সফল হোক…

ধন্যবাদ আপনাকে।

১৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৪২০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ল্যাম্পপোস্টের ছদ্মাবরণে চরমপন্থীদের তৎপরতার খবর প্রথম আলোর বর্তমান প্রচারসংখ্যার হিসেবে ওইদিনই কমপক্ষে ৩০ লাখ মানুষের কাছে সরাসরি পৌঁছে গেছে। এখন এই ব্লগটাতে, আপনারা কয়েকজন যে কেঁদে কেটে আকুল হয়ে পড়ছেন, তা নজর কাড়ছে সামান্য কিছু মানুষের। প্রতিবাদপত্র পাঠালে তা কি অনেক বেশি মানুষের কাছে যেত না? নাকি প্রতিবাদ করার মতো যথেষ্ট মানসিক বল ল্যাম্পপোস্ট বা আপনাদের নেই?

আমি ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি, মাত্র একটি কারণেই ল্যাম্পপোস্ট অনেকের কাছে মহৎ হয়ে উঠেছে। সেই কারণটি হল- তারা ভারতীয় দূতাবাসের সামনে সহিংস বিক্ষোভ চালিয়েছে। এবং এই একটি কাজ ছাড়া তাদের পরিচয় দেওয়ার মতো আর কিছু নেই বিস্ময়করভাবে।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৫৩০

লেখক বলেছেন:

@ফিউশন ফাইভ। ত্বাত্বিক বিশ্লেষণে যাবার মত মানসিকতায় নেই এখন। আপনার উৎফুল্ল খোঁচার যথাযথ জবাব মনজুরুল হক যে দিতে জানে তা আপনি ভাল করেই জানেন।

“আপনারা কয়েকজন যে কেঁদে কেটে আকুল হয়ে পড়ছেন, তা নজর কাড়ছে সামান্য কিছু মানুষের।”

এর জবাবটা আপনার পোস্টের উপরেই প্রফাইলে আছে। ভুলে গেছেন হয়ত। আর একবার পড়ে নিন।

আর কোথায় কি ভাবে প্রতিবাদপত্র পাঠাতে হবে সেটা ভাল করেই জানি। এই লাইনে কম দিন নয় জনাব।

মাইনাস তো দেখলাম দেননি। তো সেটা দিয়ে বিদায় হলে ভাল লাগে।

১৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৪৭০

জনৈক আরাফাত বলেছেন: এই ব্লগেরই কোন এক কমেন্টে, একজন লিখেছিলো, “প্রথম আলো হলো বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত একমাত্র ভারতীয় পত্রিকা”..। তখন খুব আশ্চর্য লেগেছিলো.।

ল্যাম্পপোস্ট কে চরমপন্থী বলার মাধ্যমে তারা কী সেটা প্রমান করলো?

“বদলে দাও, বদলে যাও।” হুহ!

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৩০

লেখক বলেছেন: যথাযথ মন্তব্য।

১৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৫৮০

নাজমুল আহমেদ বলেছেন: মঞ্জু ভাই দেশ বাঁচাতে, মানুষ বাঁচাতে রাস্তায় নামার সময় হয়ে গেছে……………………

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১২০

লেখক বলেছেন:

আমরা রাস্তারই মানুষ। রাস্তায় নামতে ভয় নাই। চাই আপনাদের সাথে নিতে। আশা করি সাথে পাব।

জীবন আমাদের পার হয়ে গেছে বেয়োনেটের ডগায় নিশ্কম্প। স্থির। পথেই সব মীমাংসা হবে কমরেড, পাশে থেকো।

১৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:০০০

জেসমিন মলি বলেছেন: সহমত।

সাথে আছি।

প্রথম আলো’র এই অযাচিত সংবাদ প্রকাশ করার জন্য ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানাই।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪৯০

লেখক বলেছেন:

প্রথম আলো’র এই অযাচিত সংবাদ প্রকাশ করার জন্য ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানাই

একমত।

১৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১০০

জাতেমাতাল বলেছেন: ৩০লাখ আম জনতার একজন, ফিউশন ফাইভের মগজ ভাল মতই ধোলাই করেছেন মতি ভাইয়ের বদলে দেবার হাওয়া।

ক্রশফায়ারের নলের ধাতব স্পর্শের ছোয়া পশ্চাৎদেশে পাওয়ার আগেই যদি আপনার হুশ ফিরে, সে দোয়াই করতেছি…

ভাল থাইকেন।

২০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১৪০

মিশু মিলন বলেছেন: বদলে যাওয়া একজন মানুষের হাতেই তো প্রথম আলো। এককালের তুখোর ছাত্র ইঊনিয়ন নেতাকেও তো আমরা বায়তুল মোকররমের খতিবের কাছে তওবা করতে দেখেছি। বদলেছেই তো। মনজুরুল হককে ধন্যবাদ এমন একটি প্রয়োজনীয় পোষ্টের জন্য। আশিষ- প্রিন্সের গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন করা যায় কিনা ভেবে দেখুন। আমি সাধারণ মানুষ কিন্তু পাশে পাবেন। আবৃত্তি সংগঠনগুলোরও সরব হওয়া উচিত।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২০০

লেখক বলেছেন:

ঢাবির সংগঠনগুলো নিজ নিজ ক্ষেত্র থেকে প্রতিবাদ করে যাচ্ছে। আপনার প্রস্তাবটা ভাল। এটা নিয়েও আমাদের এক্ষুনি ভাবতে হবে। আমরা চাচ্ছি প্রতিবাদটা বিভিন্ন কর্ণার থেকে আসুক। যেহেতু বিনাবিচারে মৃত্যু এদেশে ডালভাত! তাই সেটা ঠেকানো দরকার আগে।

সহমতের জন্য অভিনন্দন।

২১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১৯০

সৌম্য বলেছেন: মঞ্জু ভাই, আওয়াজ তুলতে হবে। কিন্তু কিভাবে? আপনার বক্তব্যটা পরিষ্কার হয় নি। বর্তমান সরকারের মুল শক্তি প্রেস এবং সংস্কৃতিবীদ টাইপ অথবা বুদ্ধিজীবীরা বরাবরের মতো তাদের দলে। মিডিয়ার বড় দাপট। বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাধতে হবে।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৩৫০

লেখক বলেছেন: আমরা তাদের সব মিডিয়ার বিরুদ্ধে নই। আমাদের দাবি… ল্যাম্পপোস্ট একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন। তাদের উপর অন্যায়ভাবে দোষ চাপিয়ে অত্যাচার করা হচ্ছে। আমরা তাদের মুক্তি চাই। সে কারণে জনসমর্থন চাইছি।

২২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১৯০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: তাত্ত্বিক বিশ্লেষণে যাবেন কেন? এখানে তত্ত্ব-তালাশের তো কিছু দেখছি না। ঘটনা হল, প্রথম আলো প্রতিবেদক অনুসন্ধান চালিয়ে সবিস্তারে জানাচ্ছেন যে, ল্যাম্পপোস্টের পেছনে চরমপন্থী সংগঠন পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) সক্রিয় রয়েছে। এখন আপনি যদি প্রতিবেদকের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন, আপনাকে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ পাঠাতে হবে। তত্ত্ব কপচালে বা কান্নাকাটি করলে তো সেটা প্রতিবাদ হবে না। তাই অনুরোধ করি, আপনার কাছে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ থাকলে দায়িত্ব নিয়ে প্রথম আলোতে প্রতিবাদ পাঠান যে, এই এই কারণে অমুক অমুক কারণে ল্যাম্পপোস্টের সঙ্গে চরমপন্থী সংগঠনের কোনো যোগ নেই। ব্যস, খেলখতম। কিন্তু তা না করে একটি দৈনিকের বিরুদ্ধে অযৌক্তিক বিষোদগার করাটা কি ঠিক হচ্ছে?

চিলে কান নিয়েছে শুনে আপনি রীতিমতো আন্দোলনে নেমে গেলেন কেন, বুঝতে পারলাম না। বিস্মিত হলাম। মাইনাস-টাইনাস নিয়েও যথেষ্ট ভাবিত মনে হচ্ছে আপনাকে। যান, প্লাস দিলাম।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৩৫০

লেখক বলেছেন:

আপনার অবস্থান বোঝা গেল। আর সম্ভবত আমাকে আপনি ভাল ভাবেই চেনেন। আমি চিলের পেছনে ছুটি না। আপনি যে মতি ভাইয়ের পক্ষে ওকালতি করছেন তাকেই জিজ্ঞেস করবেন “আজকের কাগজ” ভেঙ্গে “ভোরের কাগজ” তৈরি হয়েছিল ভোর ৫ টায়, কার বাসায়?

“একটি দৈনিকের বিরুদ্ধে” কথাটায় একটু বেশী জোর দিচ্ছেন কেন? ওই দৈনিকটিকে ডিফেন্ড করার যা যা আছে আপনার, তাই দিয়ে কমেন্ট করেন। আমরাও দেখি, আপনি সঠিক অবস্থানে না আমরা সঠিক?

আমরা দুটি ছেলের জীবন নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতির বিরুদ্ধে। এটাকে আপনি আন্দোলন বলুন আর যাই বলুন সেটা আপনার চিন্তা।

২৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২০০

সত্যান্বেষী বলেছেন: প্রথম আলো যে ভারতের দালাল এ ব্যপারে আর কোন সন্দেহই থাকল না।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৫১০

লেখক বলেছেন: স্টাবলিশমেন্টেরও দালাল তারা।

২৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৪২০

মহাপৈতাল বলেছেন: আশীষ ও প্রিন্সের যদি কিছু হয় এর জন্য দায়ী থাকবে প্রথম আলো। এটা যেন প্রথম আলো মনে রাখে।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৫৭০

লেখক বলেছেন:

এটা যেন প্রথম আলো মনে রাখে।

২৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৪৩০

বলেছেন:

একটা গল্প তৈরি হচ্ছে, র‌্যাবের হেড কোয়ার্টারে … একটা ক্রসফায়ারের গল্প, মঞ্চায়নের দিন এখনও অনিশ্চিত …

মিছিলে থাকতে পারবনা হয়তো …

প্রতিবাদ করে গেলাম,

প্রতিবাদ করে যাবো

… ঘৃনা করে যাবো এই আত্মঘাতী অনাচার ।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১৭০

লেখক বলেছেন:

প্রতিবাদ করে গেলাম,

প্রতিবাদ করে যাবো

ঘৃনা করে যাবো এই আত্মঘাতী অনাচার

২৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৪৪০

সমীরণ বলেছেন: এই ফিউশন ভাইয়ে কি এককালে ছাত্র ইউনিয়ন পাট্টি করতেন নাকি? এই জন্য কি পুরানা কমরেড মতি ভাইয়ের প্রতি এত্ত অগাধ আস্থা।

আপনার তো দেখি, আরও ভরসা সুশীলীয় কায়দায় প্রতিবাদ লিপি পাঠানোতে…, ? ঝেড়ে কাশেন দেখি ভাই সাব!! আপনারে এত সুশীল তো কোনদিন দেখি নাই।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪৬০

লেখক বলেছেন:

মুশ্কিল হলো একে আপনি রীড করতে পারবেন না! ক’দিন আগেই ইনি শেখ হাসিনাকে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক পোস্ট দিলেন। ভারতীয় দালাল বলে কাউকে কাউকে গালিও দিলেন! আবার আজ দেখুন….!! ভারতীয় দূতাবাস আর প্র. আলোর পক্ষে দাঁড়িয়ে গেছেন! গিরগিটি চেনেন তো ?

২৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৪৮০

জাতেমাতাল বলেছেন: মনির হাসানের মন্তব্যে স্যালুট…

আশীষ ও প্রিন্সের যদি কিছু হয় এর জন্য দায়ী থাকবে প্রথম আলো। এটা যেন প্রথম আলো মনে রাখে।

২৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৫৫০

সমাজ্ঞী বলেছেন: ফি্উশন ভাই সাহেব কী প্রথম আলো দূত নাকি? এককেরে এস্যাইমেন্ট লইয়া হাজির হইলেন মনে হয়।

ল্যাম্পপোস্টের কেউ যদি পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর কেউ হয়ে থাকে তো আপনার বা প্রথম আলোর সমস্যা কী? সমস্যাটাতো জানি ভারতের আর আমাদের সরকারের রাজনীতি। আপনি কোনদিকের?

গোপন দলগুলো যদি পপুলার জাতীয় স্বার্থের ইস্যুতে একই আওয়াজ তুলে তো সমস্যা কী? তাদেরকে কী আমরা বলব যে, না আপনারা একই আওয়াজ তুলতে পারবেন না। আপনি আমি যেকাজটা করতে পারিনি ওরা তো সেই কাজটা করে দেখিয়েছে।

ওরা পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর লোক এই কথা তুলে আপনি একটা নৈতিকতা খাড়া করতে চাইছেন কেন? আপনার বিচারের নৈতিকতা হলো ওরা পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর লোক, অতএব খারাপ লোক। এই নৈতিকতা খাড়া করেই তো প্রথম আলো রিপোরট লিখেছে। এটা ভুলে গেছে যে জাতীয় স্বার্থের পক্ষে দাড়ানোটাই নাগরিক হিসাবে সবার গুরুত্ত্বপূর্ণ কাজ। ওরা সেই কাজটাই করে দেখিয়েছে। এর বিরোধিতা করা তো সরকার আর ভারতীয় স্বার্থের কাজ।

পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর লোক, অতএব খারাপ লোক এরা জাতীয় স্বার্থ বিরোধী – এটা আগে আপনি প্রতিষ্ঠা করেন। তারপর আপনার সেই নৈতিকতার উপর দাড়িয়ে কথা তুলেন। খোদ সরকারই যেখানে জাতীয় স্বার্থ বিরোধী সেখানে কোন ছাতুর নৈতিকতা নিয়ে আসছেন আপনি।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:১৫০

লেখক বলেছেন:

আপনার অসাধারণ মন্তব্যের জন্য অভিনন্দন। এই সহজ কথাটিই কিন্তু খোমেনী ইহসান ও তার পোস্টে বলেছেন। যে কেউ জাতীয় স্বার্থ লঙ্ঘিত হতে দেখলে প্রতিবাদ করতে পারে। সে জামাত হোক বা পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি হোক। যখন সিল লাগানো বামেরা চুপ করে ঘরে বসে আছেন অথবা দোকানের ফিতা কাটছেন, তখন কিছু তরুন বিপজ্জনক জাতীয় স্বার্থের কাজটি করে দিল। আর এখন জাতির বিবেক বলে গর্ব করা বদলে দেওয়া কাগজ তাদের ট্যাগিং করছে। উস্কে দিচ্ছে, যেন সেই ছেলেগুলোকে শায়েস্তা করা হয়। আর এই শায়েষ্তাটি যে কি তা আমরা আন্দাজ করতে পারি।

বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের মুক্তাঙ্গনের প্রতিবাদের ছবি সব কাগজ ছাপে না। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবেদক ঠিকই আন্দাজে ল্যাম্পপোস্টকে নিষিদ্ধ দলের সাথে সম্পর্কীত এই গল্প আবিষ্কার করে! হায় রে সাংবাদিকতা!

২৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৫৭০

নূহান বলেছেন: পোস্ট স্টিকি করা হোক আর ব্লগ থেকে একটা মানববন্ধনের আয়োজন করার অনুরোধ করছি । ব্লগে লিখে লাভ নাই ,রাস্তায় আন্দোলন করতে হবে । তাহলে কিছু একটা হবে । এ নিয়ে ব্লগ থেকে একটা কমিটি করা হোক মনজু ভাইকে সভাপতি করে । দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে । আমি অনেক দূরে থাকি নাহলে পাশে পেতেন । তারপরও সাথে আছি

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪১০

লেখক বলেছেন:

আমরা আপাতত ব্যাপক জনসম্পৃক্ততা চাইছি। গণমানুষের পক্ষে আছি। তবে কমিটি,সভাপতি..এই বিষয়গুলি এখন ভাবছি না।

আপনার পরামর্শের জন্য এবং সাথে থাকার ইচ্ছার জন্য ধন্যবাদ।

৩০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:১৫০

প্রশ্নোত্তর বলেছেন: এরকম একটি পোস্টের দরকার ছিল এমুহুর্তে। ধন্যবাদ মনজুরুল হক।

ছেলে দু’টোর যদি কিছু হয় তবে প্রথম আলো কেন খোদ সরকারই তার ধাক্কা সামলাতে পারবে না।

প্রথম আলো যে নির্লজ্জ দালালিতে নেমেছে সেটা নতুন করে আর কি বলব! শুধু বলি তাদেরকে মনে রাখতে বলি, ইতিহাস ফিরে ফিরে আসে; নির্মম ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:০২০

লেখক বলেছেন:

“ইতিহাস ফিরে ফিরে আসে; নির্মম ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না।”

আর এটাই আমাদের কর্পোরেট বেনিয়ারা জিনের সাথে সিপ করে বসেছেন। আপনারই একটা অসাধারণ মন্তব্য দেখেছিলাম কাল বা পরশু কার পোস্টে যেন। বদলে দেওয়া মাতম এর পেছনে মূল উদ্দেশ্য গতরখাটা মানুষকে হেয় করা, তাদের ভাগাড়ে নিক্ষেপ করা।

৩১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:২৮০

ফারহান দাউদ বলেছেন: আশিষ কোড়ুয়া আর প্রিন্স মাহমুদের মুক্তি চাই। দিতে হবে।

আর ফিউশন ফাইভ, আপনার কথাবার্তা বিরক্ত লাগতেসে রীতিমত, তর্ক করতে ইচ্ছা করতেসে না। তবে এই যে কইলেন প্রথম আলো “অনুসন্ধানী রিপোর্ট” লেখসে, সেইটার সূত্র কই? নাকি রিপোর্ট টা আপনেই লেখসেন? অনুসন্ধানটা কই করসে? কোন কংক্রিট প্রুফ ছাড়া কাউরে “চরমপন্থী”র মত ভয়ংকর তকমা লাগাইলে ঐ রিপোর্টাররে শূলের আগায় চড়ায়া কাওরানবাজারের মোড়ে প্রদর্শনী করা উচিত।

৩২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৩৬০

সমাজ্ঞী বলেছেন: ইস্যু যেখানে জাতীয় স্বার্থে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দাড়ানো, প্রতিবাদ সেখানে ল্যাম্পপোষ্টের কেউ পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর লোক কী না এটা প্রথম আলোর ও আপনার কাছে ইস্যু কেন?

এটা আপনাকে আগে আপনাকে বলতে হবে। এরা প্রতিবাদে সক্ষম তাই?

এই জন্য এদেরকে ক্রসফায়ারের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন?

এই জন্য মন্জুর কাছে তাগিদ দিচ্ছেন, “এই কারণে অমুক অমুক কারণে ল্যাম্পপোস্টের সঙ্গে চরমপন্থী সংগঠনের কোনো যোগ নেই” – মন্জুকে প্রথম আলোর পথ ধরার ওকালতি করছেন?

কালকে কোন কারণে আপনাকে ক্রসফায়ারে জন্য ধরে নিয়ে গেলে আমরা কি চিৎকার করে এই ব্লগে বলতে থাকব যে, ফিউশন ফাইভ ইন্ডিয়া ও প্রথম আলো হয়ে আমাদের কাছে দালালি করতে এসেছিল, এই যে প্রমাণ আছে। এভাবে আপনাকে ক্রসফায়ার যেন মারে, আমাদেরও একজন বিরোধী কমে যায় সে চেষ্টা করব? নাকি আমাদের বিরোধীতা করলেও, আপনি জাতীয় স্বার্থের পক্ষে না দাড়াতে চাইলেও, আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন, আমরা আপনার পক্ষেই সোচ্চারভাবে দাড়াব।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১৫০

লেখক বলেছেন:

অভিনন্দন। এর পরে আর কথা থাকে না। তার পরও যদি কেউ না বুঝতে চান, তাকে আর কেউ বোঝাতে পারবে না। তালগাছ তারই। সেই গাছের তালও তার।

৩৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৩৮০

সমাজ্ঞী বলেছেন: উপরের মন্তব্যটা ফিউশন ফাইভ@

৩৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪০০

মানুষ বলেছেন: ফিউশন ফাইভ, আপনি সরাসরি মনের কথাটা বলে দিন না যে আপনি চান টিপাইমুখ বাঁধ তৈরি হোক এবং যারা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করবে সবাইকে উচিৎ শিক্ষা দেয়া হবে।

তারপর দেখেন ব্লগে আপনাকে নিয়ে কত অনুসন্ধানী রিপোর্ট আসে।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৫৩০

লেখক বলেছেন: বেড়ালেরা বরাবরই এমন স্বভাবের।

৩৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪১০

ফারহান দাউদ বলেছেন: রাস্তার কুকুরও যদি আমার দেশের হয়ে ঘেউ ঘেউ করে তো আমি বিদেশের ঠাকুরের বদলে দেশের কুকুরের পাশে দাঁড়াবো। আমার দেশের স্বার্থে যদি দেশদরদী সুশীল ভণ্ড মতিউর রহমান, মাহফুজ আনাম, লতিফুর রহমান গং দের বদলে চরমপন্থীরা রাস্তায় নামে তো আমি বলবো চরমপন্থীরাই স্বাগত, ভণ্ড মীরজাফর রায়দুর্লভদের বংশধররা না।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪১০

লেখক বলেছেন: এটাই হলো সমগ্র আর ব্যক্তির পার্থক্য। ধন্যবাদ ফারহান।

৩৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪৬০

অপরিচিত_আবির বলেছেন: ফারহান দাউদ বলেছেন: রাস্তার কুকুরও যদি আমার দেশের হয়ে ঘেউ ঘেউ করে তো আমি বিদেশের ঠাকুরের বদলে দেশের কুকুরের পাশে দাঁড়াবো।

পুরোপুরি সহমত।

৩৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪৬০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

ফারহান দাউদ @ ব্লগ এমন একটা জায়গা, এখানে মিহি নারীকন্ঠে “আমার খুব বিরক্ত লাগছে” টাইপের ছিচকাঁদুনে কথাবার্তা চলে না। তর্ক করার মতো কিছু হাতে থাকলে আপনি তর্কে নামবেন, নইলে অফ যাবেন, সেটাই কাম্য। তাই না? যাউগ্গা, লক্ষ্য করবেন, ব্লগে এতো লাফালাফি, তর্ক-মর্ক হচ্ছে, কিন্তু ল্যাম্পপোস্টের পেছনে কারা আছে, তাদের পরিচয় কী- সে ব্যাপারে কারো মুখে কোনো রা নেই। জাতেমাতালের পোস্টে মনজুরুল হকের মন্তব্যে দেখলাম, তিনি নিজেও জানেন না এরা আসলে কারা? তো, এইভাবে চিলে কান নিয়েছে শুনে ল্যাম্পপোস্টের পেছনে ছোটার অর্থ কী? কারা পরিস্থিতির সুযোগ নিতে চাইছে?

প্রথম আলো প্রতিবেদক তার অনুসন্ধানের ফলাফল তুলে দিয়েছেন ওইদিনের প্রতিবেদনে। তিনি অনুসন্ধান চালিয়ে জানাচ্ছেন, ল্যাম্পপোস্টের পেছনে চরমপন্থী সংগঠন সক্রিয় রয়েছে। ঢাবির পাঠচক্রওয়ালারা হঠাৎ ভারতীয় দূতাবাসের সামনে জঙ্গি বিক্ষোভ করতে যাবেন- এটা তো শুরুতেই একটা সন্দেহের মধ্যে ফেলে দেয়।

তাছাড়া আমি ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি, ব্লগে মাত্র একটি কারণেই ল্যাম্পপোস্ট অনেকের কাছে মহৎ হয়ে উঠেছে। সেই কারণটি হল- তারা ভারতীয় দূতাবাসের সামনে সহিংস বিক্ষোভ চালিয়েছে। এবং এই একটি কাজ ছাড়া তাদের পরিচয় দেওয়ার মতো আর কিছু নেই বিস্ময়করভাবে।

জেএমবির মতো জঙ্গি সংগঠনগুলো যেমন নতুন নতুন নামে, নতুন নতুন কৌশলে সংগঠিত হতে চাইছে, তেমনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে ছত্রখান চরমপন্থী সংগঠনগুলোও নিত্য নতুন কৌশলে সংগঠিত হতে চাইবে- এটা খুবই স্বাভাবিক। যেহেতু জনমত টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণ, স্পষ্ট করে বললে সরাসরি ভারতের বিরুদ্ধে- নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য অনেকেই মাঠে আছে সুযোগের অপেক্ষায়। নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য ল্যাম্পপোস্ট কি সেই সুযোগটি নিতে পারে না? এখন জামায়াতুল মুজাহেদিনের (জেএমবি) সদস্যরা যদি ভারতীয় দূতাবাসে গিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে আসে, তাদেরও কি সমর্থন করতে হবে আমাদের?

ফারহান, আপনি নিজে কি জানেন, এই ল্যাম্পপোস্ট কী, ওরা কারা? ওই সংগঠনের লোকজনের পরিচয় জানেন? যা জানেন, সত্যি কথাটাই বইলেন।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১১০

লেখক বলেছেন: ল্যাম্পপোস্ট সম্পর্কে পোস্টের প্রথমেই বলা আছে।

“ল্যাম্পপোষ্টের “মূর্খ” ছেলেমেয়েদের সম্পর্কে যতটুকু জানা যায়, ওরা রোদে পুড়ে বন্যার্তদের সাহায্যের জন্য মানুষের কাছে ভিক্ষে করে টাকা সংগ্রহ করে, রাত জেগে স্যালাইন বানায়, ছায়ানট ভবনের জন্য তহবিল সংগ্রহে আবৃত্তি করে, টিএসসি’র দেয়ালে পা দুলিয়ে বসে গান গায়,ছাত্ররা আক্রান্ত হলে ঝাঁপিয়ে পড়ে, বস্তি পুড়ে গেলে সাহায্য নিয়ে হাজির হয়। অনেকেই যখন দোদুল্যমানতায় ভোগে, ওরা তখন মাথা গুঁজে নিজেদের কাজ করে যায়, ওদের কোন “ওপরের নির্দেশ” দরকার করেনা।”

আপনার এই কথাটি….”জেএমবির মতো জঙ্গি সংগঠনগুলো যেমন নতুন নতুন নামে, নতুন নতুন কৌশলে সংগঠিত হতে চাইছে, তেমনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে ছত্রখান চরমপন্থী সংগঠনগুলোও নিত্য নতুন কৌশলে সংগঠিত হতে চাইবে- এটা খুবই স্বাভাবিক।”

এই যে বললেন–“খুবই স্বাভাবিক”! একটু ব্যাখ্যা দেবেন? আপনার কাছে নিশ্চই অনুসন্ধানী রিপোর্ট আছে! তা না হলে এত জোর দিয়ে বলছেন কি ভাবে ?

৩৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪৮০

বলেছেন: খিকজ ।

জাতে মাতালের পোস্টে গতকাল কয়েক বান্ডেল নোটের গল্প বলেছিলাম । সত্যতা পাওয়া গেল ।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৫৯০

লেখক বলেছেন:

কয়েক বান্ডেল নোট বলে কথা! লোভ সামলানো যায় কি ?

৩৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৪৯০

জাতেমাতাল বলেছেন: ফারহানের মন্তব্যে অভিনন্দন…

৪০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৫০০

সন্ন্যাসী কবি বলেছেন:

ফিউ৫@ আপনে যাইয়া মতিরে কন হেই যেনো প্রমান দেয় যে ল্যামপোষ্টের এরা জঙ্গি। না হলে হের খবর আছে। তারে ব্লগে তিব্বত বল সাবান দিয়া ধোত করা হবে। আপনি কোন প্রতিবাদ করতে পারবেন না।

ল্যামপোষ্ট এক দিইন্না সংগঠন হৈলে ও কি অইবো? সে কি প্রতিবাদ জানাইতে পারবো না? নাকি আ.লীগের মতো ৬০ বছরের সংগঠন হইয়া পিনাকের বদনা টানতে হৈবো?

মিয়া আপনাদের মতো গিয়ান পাপিদের জন্য দেশের এই অবস্হা।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২৪০

লেখক বলেছেন: সহমত।

৪১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৫৬০

মনজুরুল হক বলেছেন:

ফিউশন ফাইভ কে একটা ছোট্ট প্রশ্ন করি….

একটি গ্লাসের অর্ধেকটা পানিতে ভর্তি।

একটি গ্লাসের অর্ধেকটাই খালি।

আপনি কোন লাইনটির পক্ষে ?

৪২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৩:৫৮০

সন্ন্যাসী কবি বলেছেন:

যেখানে ক্ষমতাসীন সরকার মীর জাফরের মতো মেউ মেউ করতেছে! বিরুদ্ধী দল নানা মামলা উদ্ধারের জন্য আপোশ নিপোশে ব্যস্ত সে দেশে ভূইঁফোড় ল্যামপোষ্টের মতো দল অনেক কিছু।

হেরা চরমপন্হি হলে ও আমি তাদের পক্ষে! যেখানে সবাই ধান্দবাজি লাভের অংক দিতেছে সেখানে চরমপন্হা ছাড়া কেমনে কি অইবো?

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:০১০

লেখক বলেছেন:

“হেরা চরমপন্হি হলে ও আমি তাদের পক্ষে! যেখানে সবাই ধান্দবাজি লাভের অংক দিতেছে সেখানে চরমপন্হা ছাড়া কেমনে কি অইবো?”

ঠিক কথা।

৪৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:০০০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন ফাইভ, ল্যাম্পপোস্ট কারা সেইটা জানার চেয়ে তারা টিপাইমুখ বাঁধের বিরুদ্ধে বলছে সেইটা আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ধরেন এইখানে আমরা ১০০ জন টিপাইমুখ বাঁধের বিরুদ্ধে কইতাসি, হঠাৎ কইরাই কিন্তু কইতাসি, আপনে কি আমাগো সবাইরে চরমপন্থী কইবেন? আর আইন সম্পর্কে কি আপনের ন্যূনতম জ্ঞান আছে? এইটা জানেন যে প্রমাণ না থাকলে কাউরেই আপনি কোন কিছু বইলা অ্যাকিউজ করতে পারেন না, করলে সেইটা মানহানি? আর সত্যি কথা কই? টিপাইমুখ হইলো বাংলাদেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে, এইটা আপনে মানেন তো? যদি মানেন, তাইলে বাংলাদেশের স্বার্থ উদ্ধার করতে গিয়া কেউ যদি নিজের স্বার্থও কিছু উদ্ধার করে, আমার বিন্দুমাত্র আপত্তি নাই। মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশরে বিনা স্বার্থে সাহায্য করে নাই, তাই বইলা কি আমি তার সাহায্য প্রত্যাখ্যান করমু? নাকি তখনকার কেউ করসিলো?

আর হ্যাঁ, ল্যাম্পপোস্টের পরিচয় না জানি, ট্রান্সকম গ্রুপের পরিচয় কিন্তু সবাই জানি, ভারতের সাথে তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ কি সেইটাও সবাই জানি।

আরেকটা কথা, প্রথম আলোর জাত হারামজাদা রিপোর্টারটা যে অনুসন্ধানী রিপোর্ট চালাইসে ঐটার সূত্র দেন, নাইলে ওরে কন পশ্চাদ্দেশে কন্ঞ্চিওয়ালা বাঁশ ঢুকায়া মতি আর লতি রে নিয়া ওয়াসা ভবনের সামনে খাড়ায়া থাকতে।

৪৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১১০

সন্ন্যাসী কবি বলেছেন:

ফারহান দাউদ বলেছেনঃ ল্যাম্পপোস্টের পরিচয় না জানি, ট্রান্সকম গ্রুপের পরিচয় কিন্তু সবাই জানি, ভারতের সাথে তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ কি সেইটাও সবাই জানি।

আরেকটা কথা, প্রথম আলোর জাত হারামজাদা রিপোর্টারটা যে অনুসন্ধানী রিপোর্ট চালাইসে ঐটার সূত্র দেন, নাইলে ওরে কন পশ্চাদ্দেশে কন্ঞ্চিওয়ালা বাঁশ ঢুকায়া মতি আর লতি রে নিয়া ওয়াসা ভবনের সামনে খাড়ায়া থাকতে।

> হয় মতিরে প্রমান দিতে হবে না হয় তারে ক্ষমা চাইতে হবে।

প্রথম আলো ঘেরাও করার ব্যবস্হা করা হোক।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:০২০

লেখক বলেছেন: সহমত। ক্ষমা চাইতে হবে।

৪৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১২০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

ফারহান দাউদ @

আপনার কথার আগামাথা কিছু দেখতেছি না। ছোট্ট উদাহরণ দেই একটা। আজকের প্রথম আলোতেই টিপাইমুখ বিরোধী আন্দোলনের দুটি নিউজ বেশ ভালোভাবে প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে তীব্র ভাষায় সরকার ও ভারতের সমালোচনা করা হয়েছে। কই, প্রথম আলো তো বলতেছে না যে, টিপাইমুখবিরোধী আন্দোলনের নেতা অধ্যাপক মোজাফফর কিংবা মুহাম্মদ জাফর ইকবাল চরমপন্থী?

হ্যাঁ, ধন্যবাদ এই জন্য যে, স্বীকার করেছেন ল্যাম্পপোস্টের পরিচয় আপনি জানেন না। প্রকৃতপক্ষে এখানে কেউই জানেন না।

এদিকে ঘটনা পরিস্কার হৈতেছে ধীরে ধীরে। আপনি বলতেছেন, “তাইলে বাংলাদেশের স্বার্থ উদ্ধার করতে গিয়া কেউ যদি নিজের স্বার্থও কিছু উদ্ধার করে, আমার বিন্দুমাত্র আপত্তি নাই।”

ঠিকাছে, তাইলে শ্লোগান উঠুক সমস্বরে – “যুদ্ধাপরাধী-মুক্তিযোদ্ধা ভাই ভাই, টিপাইমুখের রক্ষা নাই”। এটাই তো চাইতেছেন সবাই, নাকি?

আমি গত কয়েকদিনের পোস্ট বিশ্লেষণ কৈরা দেখলাম, যেহেতু জনমত টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণ, স্পষ্ট করে বললে সরাসরি ভারতের বিরুদ্ধে- এই সুযোগে নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য অনেকেই মাঠে আছে। ঘটনা পরিস্কার হৈতেছে ধীরে ধীরে…

৪৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১৫০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

মনজুরুল হক@

ভাইরে এইগুলা আমার জানা আছে- আশা-হতাশার তত্ত্ব। কিন্তু আপনি এখনো তত্ত্ব নিয়া পড়ে থাকলে কিভাবে হবে রে ভাই? নিউজে তো তত্ত্বের স্থান নেই। যা হোক, ওপরে ওপরে পাঠচক্রওয়ালা বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং চিকাবিশারদ ল্যাম্পপোস্টের পেছনে কারা আছে, তাদের পরিচয় কী- একটু বলেন না দয়া করে। আমার খুব জানার ইচ্ছা।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৫৬০

লেখক বলেছেন:

জাতীয় স্বার্থ বিরোধী কর্মকান্ডের জবাবে আম জনতা প্রত্যেকেই বুকের ভেতর ঘৃণার বোমা নিয়ে ঘুরছে। আপনার প্রথম আলো কে বলুন তাদের নামে ভয়ংকর রিপোর্ট লিখতে…

৪৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:১৮০

অ্যামাটার বলেছেন: পোষ্টে প্লাস। বলার আছে অনেক কিছু, তয় আজকে না, আপাতত আকাশ ভাইয়ার কমেডিটা দারুন উপভোগ কর্ছি, তাই ক্ষনিকের জন্য ইন্টেলেকচুয়াল হইতে ইচ্ছা কর্ছে না।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪৫০

লেখক বলেছেন: ইন্টেলিজেন্ট আইডিয়া!!

৪৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:২০০

মানুষ বলেছেন:

@ফিউশন ফাইভ

আপনার বক্তব্যটা কি? ল্যাম্পপোস্ট উগ্রপন্থী পোলাপাইনের সংগঠন, তাগোকোন অধিকার নাই টিপাইমুখ বাধের বিরোধিতা করণের – এই তো? সেইটা টো বলছেন। পাবলিক আপনার কথা খায় নাই, বমি করসে, তারপরও ফ্যাচফ্যাচ করতেসেন কেন?

৪৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:২৯০

সাইলেন্সার বলেছেন:

শুধু প্রথম আলোর রিপোর্টের কারণে ল্যাম্পপোস্ট সংগঠনের সদস্যরা চরমপন্থী হয়ে গেল এটা ঠিক বিশ্বাসযোগ্য নয়।

বাংলাদেশে প্রথম আলো ছাড়াও আরও অনেক জনপ্রিয় দৈনিক আছে যারা দিনকে রাত আর রাতকে দিন বানিয়ে ছাপিয়ে দিচ্ছে।

এই ব্লগে মু. জাফর ইকবাল কেন টিপাইমুখ বাঁধ নির্মানের বিপক্ষে দাঁড়াচ্ছেন না- এই নিয়ে কিছুদিন তর্ক চললো, এখন আবার প্রথম আলো কেন ল্যাম্পপোস্ট সংগঠনের সদস্যদের চরমপন্থী আখ্যা দিল- এই নিয়ে ক্যাচাঁল শুরু হয়েছে।

প্রথম আলোর রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে ক্রসফায়ার ঘটানো হবে- এটাও কি মেনে নেয়া যায়?

২৭ শে জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২৭০

লেখক বলেছেন: কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

৫০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:২৯০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, তার মানে কি, সবাই পরিচয় না জানলে প্রতিবাদ করা যাইবো না? আপনের পরিচয়ও তো কেউ জানে না, কেউ কি কইতাসে আপনে চরমপন্থী? নাকি আপনে চান আপনেরে তাই বলা হোক এবং আপনারে ক্রসফায়ারে দেয়ার দাবী তুলা হোক? পরিচয় না জানলেই যদি সন্দেহভাজন হয়, তাইলে পুরা সামু ব্লগে আপনে হইলেন সবচেয়ে বড় সন্দেহভাজন “চরমপন্থী” এবং “মূল্যহীন” ব্যক্তি, আপনের সাথে কথা কওয়াই তো আপনার থিওরি অনুসারে তাইলে সময় নষ্ট। জাফর ইকবালরে হঠাৎ পীর মানা শুরু করলেন ক্যান? সুশীল বুদ্ধিজীবিদের নিরাপদ আস্তানা হইলো আলু, দরকারমত তারা ২-১টা মিউ মিউ রিপোর্ট ছাড়ে আবার একই সাথে পয়লা পাতায় টিপাইমুখ বিষয়ক কোন রিপোর্ট বাদ দিয়া শপথ আর ঢাকা শহরের আবর্জনা নিয়া হল্লা করে। ঐরকম গর্তের সাপদের আমি পুছি না, দূরে গিয়া মরতে থাক।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪০০

লেখক বলেছেন:

ফারহানের এই কথার পর আর কথা চলে না। যদি উনি এর পরেও লেবু চিপতে চান তো কি আর করা! উনাকে লেবু চিপে তিতা রস বের করতে দিন…

৫১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৩২০

মনজুরুল হক বলেছেন:

না ফিউশন। ওটা আশা-হতাশার তত্ত্ব নয়। ওটা পজেটিভ-নেগেটিভ টুলস। প্র.আ. এর একটি টুলস ব্যবহার করেছে। তারা আরো যেটা করেছে সেটা সুস্থ সাংবাদিকতার পেছনে পেরেক মেরেছে।

যেহেতু মুধুর কেন্টিনের ছেলেরা তাদের নাম-পরিচয় জানাতে চায়নি, যেহেতু তারা চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে/ক্লিনিকে থাকেনি, যেহেতু তারা সলিমুদ্দি-কলিমুদ্দি দলের অঙ্গ সংগঠন নয়, যেহেতু তাদের দাঁড়ি-টুপি নেই….সুতরাং তারা গোপন সংগঠনের কর্মী না হয়ে যায় না!

এর বাইরে ওই প্রতিবেদকের হাতে আর কোন তথ্য উপাত্য আছে বলে মনে হয়না।


আপনি তো জেনেই ফেলেছেন!

“পাঠচক্রওয়ালা বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং চিকাবিশারদ “।

 

৫৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪৪০

পি মুন্সী বলেছেন: অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ আশির দশকের শুরু থেকে বিশ্বব্যাংকের রাজনীতি করে আসছেন। অবশ্যই টাকার জন্য নয়। উনার ভাবনাটাই এরকম। এমন কী সামরিক বাহিনীকে সহায়তা নিয়ে ১৯৮২ ও ২০০৭ এ যে দুইবার, সরকার বদল করার মত ঘটনা তাতে পরোক্ষ প্রত্যক্ষভাবে তিনি জড়িত।

কিন্তু টিপাইমুখ ইস্যুতে তিনি এর বিরোধী। প্রতিদিনই বিভিন্ন সভায়, মিডিয়ায় প্রকাশ্য বক্তব্য দিয়ে বিরোধীতা করে চলেছেন। কালকে বলেছেন এই ইস্যুতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

এখন ফিউশন ফাইভ কী বলবেন, অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ একথা বলতে পারবেন না, উনাকে সমর্থন করব না। এটা অবশ্য আওয়ামী লীগ বলবে। জানি ফিউশন এটা করবেন না। কারণ এটা শ্রেণীর প্রশ্ন।

উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান সংগঠিত কর‌তে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের পাশপাশি শ্রমিকদের সংগঠিত করতে কমিউনিষ্টদের ভুমিকা ছিল মুখ্য। কিন্তু গোলটেবিল বয়কট, নির্বাচন বয়কটের কারণে কমিউনিষ্টরা ব্যর্থ, গণজোয়াড়কে সফলভাবে এগিয়ে নিয়ে শেখমুজিব আমাদের অবিসংবাদিত নেতা হয়েছিলেন।

কাজেই গুরুত্ত্বপূর্ণ জনস্বার্থ নিয়ে, জাতীয় স্বার্থের আকাঙ্খা নিয়ে যে এগিয়ে যাবে মানুষ তাকেই সমর্থন জানাবে। ইতিহাস এই স্বাক্ষ্য দেয়। সেটা কে জেএমবি ছিল, কে সর্বহারা করত এটা কোন বিষয় নয়। জন গণ কাউকেই তার নেতৃত্ত্বের লীজ দিয়ে দেয় নাই। জাতীয় স্বার্থ,

গণ আকাঙ্খা বইবার মুরোদ যার আছে সেই তার নেতা হবে, ইতিহাস হয়ে উঠবে।

শেখ মুজিব মুসলিম লীগার ছিলেন এটা জলজ্যান্ত ঐতিহাসিক সত্য হলেও এটা মনে করিয়ে দিয়ে অবিসংবাদিত শেখ মুজিবকে ঢেকে ফেলা যাবে না। বরং ঐ মূল্যায়নকারীকে আমরা অসৎ, বদমতলবি বলব। কারণ ওটা ঐতিহাসিক শেখ মুজিব নয়।

কাজেই ল্যাম্পপোষ্টের সাহসী তরুণরা কেউ পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর সাথে সম্পর্ক আছে কিনা এটা কোন বিষয়ই নয়। আমরা বিচার করব ওদের কাজ দিয়ে।

ফিউশন ফাইভ ও প্রথম আলো কনফিউশন তৈরী করে সেই অসৎ বদমতলবি কাজটাই করতে চাচ্ছেন। জাতীয় স্বার্থ ভুলে ভারতীয় শাসকদের স্বার্থে দাড়াতে চাচ্ছেন, মাওবাদী ভয় ঢুকিয়ে।

৫৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪৪০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

ফারহান দাউদ@

প্রথমত, আপনি জানেন না বা আপনার ধারণা নেই ল্যাম্পপোস্টের আড়ালে কারা আছে, এটা কী বা কারা এর সদস্য? এর বিপরীতে বাংলাদেশের প্রধান দৈনিক অভিযোগ তুলেছে, ল্যাম্পপোস্টের আড়ালে চরমপন্থী সংগঠন কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) সংগঠিত হচ্ছে। ওদের পক্ষে নামার জন্য আপনার কি ওদের পরিচয় জানা জরুরি নয়? স্যাটানিক ভার্সেস না পড়া সেই মোল্লাদের কথা মনে পড়ছে, যারা জানতোই না প্রকৃতপক্ষে ওই বইয়ে কী লেখা হয়েছে। কিন্তু আকাশ-বাতাস ফাটিয়ে তারা আন্দোলনে নেমেছিল। যা হোক, আবহাওয়া যেরকম দেখছি, ল্যাম্পপোস্ট আন্দোলনও সেইরকই হতে যাচ্ছে।

“জাফর ইকবালরে হঠাৎ পীর মানা শুরু করলেন ক্যান?”- এই প্রশ্নে মনে হচ্ছে, জাফর ইকবালের সঙ্গে আগে আমার দুশমনি ছিল। ছিল নাকি? ব্যক্তিগতভাবে তার সঙ্গে আমার খুবই ভালো সম্পর্ক বলে জানি। হে হে হে। তবে নিবিষ্ট পাঠক হিসেবে আপনি প্রথম আলোর সমালোচনা করতেই পারেন- এতে দোষের কিছু নেই।

যা হোক, স্বাধীনতাবিরোধী ও চরমপন্থী পুনর্বাসনের ব্লগীয় আন্দোলন সফল হোক। আপনারা জয়যুক্ত হোন। জয় গোলাম আযম, জয় চরমপন্থী!

৫৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪৬০

সত্যান্বেষী বলেছেন: পিউশন পাইপের মন্তব্যগুলো পইড়া একখান ঘটনা মনে পইড়া গেল। মেয়েটার নাম খুব সম্ভবত: ইয়াসমিন। তারে রাস্তায় পাইয়া কতিপয় ‘বীর’ পুলিশ পালাক্রমে ধর্ষন করে হত্যা করার পর রাস্তায় ফেলে যায়। তারপর অবস্থা যখন লেজেগুবড়ে তখন আমাদের রক্ষক সেই পুলিশ ভাইয়েরা আমাদেরকে জানান যে ইয়াসমিন আসলে এমনিতেই বেশ্যা ছিল। আর বেশ্যার ক্ষেত্রে আবার ‘ধর্ষণের’ প্রশ্ন আসে কেন? বেশ্যাকে কে তো যে কেউ…। যুক্তি বটে।

পিউশন পাইপের মন্তব্য পইড়া উনারে মনে হইল অই পুলিশ ভাইগো সাক্ষাত ফটোকপি। চরমপন্থি হইলেই হেরা পরতিবাদ করতে পারবো না। চরমপন্থি হইলেই হেগোরে করসফায়ারে ফালাই দেওন যাইবো।

৫৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৪৯০

বলেছেন: এই টিপাইমুখ ইস্যুতে বেশ কিছু চরিত্রের খোলস আলগা হলো.. প্রথমেই আম্লীগ, তারপরে প্রথম আলো.. এগুলি বড় পরিসরে…

আর ব্লগে ‘দেশদ্রোহী’ কারা তার রূপ ও রং দুইটাই বের হয়ে আসছে… মুক্তিযু্দ্ধে ‘রাজাকারী’ লিটমাস টেস্টের পরে এই টিপাইমূখ আরেকটা লিটমাস টেস্ট।

নদী মাতৃক বাংলাদেশের নদী মেরে ফেলা তো নিজের মাকে হত্যা করার মতো 

যারা এই মা হন্তা হতে চাইছেন, তাদের বলি ঘরে গিয়ে আয়নায় নিজেকে আরেকবার ভালো করে দেখুনহাতের তালু দেখুনএখনো রক্ত লাগে নাই, কিন্তু লাগবে

৫৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৫৩০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: পি মুন্সী@

আজকের প্রথম আলোতেই টিপাইমুখবিরোধী আন্দোলনের দুটি খবর বেশ গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশ করেছে। এর একটিতে মোজাফফর আহমেদের বক্তব্যও প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু খেয়াল করবেন, প্রথম আলো তো মোজাফফর আহমেদকে অভিযুক্ত করেনি। তাকে চরমপন্থী বলেনি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তুলেছে ল্যাম্পপোস্টের বিরুদ্ধে, যা ওইদিনের প্রতিবেদন পড়লে আপনার না বোঝার কথা নয়।

কমিউনিস্টদের ভূমিকা নিয়ে বললেন। তবে তোয়াহা-ফরহাদের সঙ্গে পূর্ববাংলার মোফাখখারুলকে আশা করি একপাল্লায় মাপবেন না।

আপনি বলছেন, “কাজেই ল্যাম্পপোষ্টের সাহসী তরুণরা কেউ পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর সাথে সম্পর্ক আছে কিনা এটা কোন বিষয়ই নয়। আমরা বিচার করব ওদের কাজ দিয়ে।” তাহলে কি জামায়াতুল মুজাহেদিনের (জেএমবি) সদস্যরা ভারতীয় দূতাবাসে গিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে আসলে, তাদেরও কি সমর্থন করবেন?

৫৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৫৫০

ফারহান দাউদ বলেছেন: উঁহুহু ফিউশান, পিছলায়েন না, ঐটা জামাতি স্টাইল, পয়েন্টে আসেন। আপনে আগে কন “অনুসন্ধানী” রিপোর্ট টার অনুসন্ধানের সূত্র কি? চরমপন্থী এরা, এইটার পিছনে আপনের বা মতি মিয়ার যুক্তি কি? টিপাইমুখে বাঁধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এই ব্লগের যারা করতাসে, আমি কি তাদের পরিচয় জানতে চাইসি? যারা ৭১ এ যুদ্ধে গেসিলো একসাথে মরতে, তারা কি একজন আরেকজনের পরিচয় জিগাইসিলো নাকি? ঢাবির পোলার লগে ঐদিন গেরামের ডাকাতও যুদ্ধ করসিলো, নাকি সে কইসিলো ঐ শালা ডাকাত আমি ওর লগে অপারেশনে যামু না? গোলাম আযমের লগে ল্যাম্পপোস্টরে মিলায়া কনফিউজড কইরেন না, ব্লগে আমি আজকা নতুন না, কে কোন স্টাইলে খেলে ম্যালা দেখসি, অন্য লাইনে আসেন। আর একটা কথার জবাব দেন, কথা বলা বা প্রতিবাদ করার জন্য পরিচয় জানা যদি জরুরী হয়, তাইলে এই মুহূর্তে ব্লগে কথা বলার জন্য আপনের পরিচয় জানা সবচেয়ে জরুরী, নাইলে আপনে চরমপন্থী, বা আপনেরে র’এর দালালও দাবী করা যাইতে পারে, অথবা গোলাম আযমের খাস চামচাও বলা যাইতে পারে, কারণ আপনারে কেউই চিনে না। আপনি সত্ত্বর আপনের পরিচয় ক্লিয়ার কইরা এইখানে কথা বলতে আসেন, নাইলে ল্যাম্পোস্টের পরিচয়ের গুরুত্ব বিষয়ক আপনের “থিওরী” মাঠে মারা যায়।

৫৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৪:৫৭০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: আরিফ মিয়া @

ডান আর বাম মোল্লারা চাইবেই প্রথম আলোর পতন হোক। ‘কর্পোরেট’ না হয়া দুনিয়ায় কোন্ মিডিয়াগোষ্ঠী টিকে আছে, জানতে মঞ্চায়।

প্রগতির স্বার্থেই প্রথম আলোর টিকে থাকা দরকার- এটা আপনাকে মনে রাখতে হবে।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:০৯০

লেখক বলেছেন:

“প্রগতির স্বার্থেই প্রথম আলোর টিকে থাকা দরকার- এটা আপনাকে মনে রাখতে হবে”

একি!! আর লোক হাসাবেন না প্লিজ! আপনার মিডিয়া লাইনের মেধা নিয়ে সন্দেহ করতে চাই না।

৬০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:০৪০

মহাপৈতাল বলেছেন: @ফিফা। এত্তগুলান মাইনষের সাম্নে দামড়া এট্টা ন্যাংটা মানুষ কারাপ দেহাইব, কুব কারাপ। পাবলিক আপনার কথা খায় নাই, বমি করসে, তারপরও ফ্যাচফ্যাচ করতেসেন কেন? খিয়াল কৈরা! পিলখানার টাইমেও হের এমুন বেগ উটচিল।

৬১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:০৭০

মানুষ বলেছেন: “প্রগতির স্বার্থেই প্রথম আলোর টিকে থাকা দরকার- এটা আপনাকে মনে রাখতে হবে।”

হো হো হো হি হি হি….হা হা প গে

৬২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:১১০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

ফারহান দাউদ @

সাংবাদিকতা সম্পর্কে আপনার ধারণা নেই। সবার সবকিছু থাকে না। স্বয়ং আদালতকেও সূত্র বলতে সাংবাদিক বাধ্য নন। আপনার প্রশ্নটা এমন, যেন রিপোর্টার চাহিবামাত্র আপনাকে সূত্র জানাতে বাধ্য থাকবে! হা হা হা। একাত্তরকে টানার দরকার নেই। আমার কথা স্পষ্ট- জামায়াতুল মুজাহেদিন (জেএমবি) যদি এমনকি টিপাইমুখ ইস্যুতেও সঙ্গে আসতে চায়, তাদেরকে আমি ‌’না’ করে দেবো। আপনি দেশের স্বার্থে গোলাম আযম হোক, চরমপন্থী হোক- সবাইরে নিয়া ‘ঝাঁপায়া’ পড়তে চান- সেটা একান্তই আপনার রুচি। এখানে আপনার সঙ্গে আমার মিলবে না।

টিপাইমুখবিরোধী আন্দোলনের সংগঠক মোজাফফর আহমেদ বা মুহাম্মদ জাফর ইকবালকে কি প্রথম আলো চরমপন্থী বলছে? বলছে না। ল্যাম্পপোস্টকে কেন বলছে সেটা ভেবে দেখতে হবে আপনাদের। আর ভেবে দেখার জন্য তাদের আসল পরিচয় জানা জরুরি।

আর গোলাম আযমের বিষয়ে যেটা কৈতেছিলাম, সেটা কিন্তু সঠিকভাবে আপনার লাইনেই আছে।  জামাতি স্টাইল-মেস্টাইল বলে এড়ানো কি সবসময় সম্ভব হয়? বিশেষ বিশেষ সময়ে লেজ কিন্তু ঠিকই বের হয়ে যায়। দুনিয়া বড় জটিল জায়গা। আর হ্যাঁ ব্লগে ছদ্মনামে কথা বলা বৈধ, কর্তৃপক্ষ এটা অনুমোদন করে- এইটাও এতোদিন জানতেন না নাকি?

জয় গোলাম আযম, জয় চরমপন্থী!

৬৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:১৫০

মনজুরুল হক বলেছেন:

এতক্ষণে ফিউশন কহিলা বিষাদে….. তার মানে প্র. আলোর টিকে থাকাটাই ফিউশনের এই এ্যাসাইনমেন্টের আসল মাজেজা! ব্রাভো! রহস্যময় চরিত্রের রহস্য ক্রমে ক্রমে উন্মোচিত হচ্ছে…

৬৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:১৬০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ওপরে কয়েকটি গর্দভকে দেখতেছি, “মানুষ আপনার কথা খায় নাই” “মানুষ আপনার কথা গ্রহণ করে নাই” বৈলা বৈলা সমানে চিৎকার কর্তেছে। সবাইকেই মনে রাখতে হবে, এটা আলাউদ্দিনের মিষ্টান্ন ভান্ডার নয়। সুইটমিট স্টাইলে কথাবার্তা আমি বলতে পারি না রে ভাই।

একজনও পাশে থাকবে না- এটা জেনেও সত্য বলতে দ্বিধা করিনি কখনোই। এটা আমার ধাতে নেই।

৬৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২০০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: না, মনজুরুল হক, বলাই বাহূল্য, ব্লগের এইসব ছিচকাঁদুনে কথাবার্তার কোনোই প্রভাব পড়বে না প্রথম আলোর মতো বড়ো পত্রিকায়, নিশ্চিত করে বলতে পারি একজন লোকও প্রথম আলো কেনা বন্ধ করবে না। বরং এই পোস্ট যারা পড়েছে, পড়বে- তারা এখন থেকে প্রথম আলো আরো মনোযোগ দিয়ে পড়বে। নিশ্চিত!

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩১০

লেখক বলেছেন:

“ব্লগের এইসব ছিচকাঁদুনে কথাবার্তার কোনোই প্রভাব পড়বে না প্রথম আলোর মতো বড়ো পত্রিকায়,”


বেশতো। যদি কোন প্রভাব না-ই পড়ে তাহলে আপনি অমন প্যান প্যান করছেন কেন?

৬৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২১০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, এই তো আপনের লেজ দেখা যাইতেসে। ব্লগে ছদ্মনামে কথা বইলা আপনে যদি দেশদরদী হন, তাইলে নিজের নামে দূতাবাসের সামনে কথা বইলা ঐ পোলা গুলা চরমপন্থী ক্যামনে হয় এইটা একটু বুঝান। আর সাংবাদিক (আপনে ঐটা কিনা এখন সন্দেহ হইতাসে, মিডিয়া দূরে থাক আপনের কমনসেন্সই নাই) যখন গণমাধ্যমে কাউরে রাষ্ট্রদ্রোহী বা চরমপন্থী কয়, তখন তারে সেইটা প্রমাণ করতে হয়, নাইলে সোজা মানহানীর মামলা। আপনের আসলেই আইন আদালত নিয়া কোন ধারণা নাই, সবার সবকিছু থাকেও না। আপনে একজন অজ্ঞাতকুলশীল ব্যক্তি যারে কেউ চিনে না, ঠিক কি কারণে আপনের কথা কেউ বিশ্বাস করবে এই ব্লগে কন তো? চেনা না চেনা বিষয়ক থিওরিটা তো আপনের, পরিচয় দিয়া সেইটা প্রমাণ করেন। এই যে কইলেন আলুর রিপোর্টার “সুনির্দিষ্ট” অভিযোগ জানাইসে, ঐ “সুনির্দিষ্ট অভিযোগের” সাথে সাথেই সেইটা প্রমাণের দায়িত্ব তার উপর পড়ে, নাইলে সস্তা ট্যাবলয়েডের ইয়েলো জার্নালিস্টের সাথে আপনের কোন তফাৎ নাই।

৬৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২২০

মানুষ বলেছেন: …এবং তাতেই ফিউশন ফাইভের রুজি হালাল হইবেক। ঠিকৈ আছে।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৩২০

লেখক বলেছেন:

এবং তাতেই ফিউশন ফাইভের রুজি হালাল হইবেক। ঠিকৈ আছে।

 

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৮০

লেখক বলেছেন:

“যেদিন একসময়ের বামপন্থী মতিমিয়া মসজিদে গিয়ে খতিবের সঙ্গে হাতমারামারি করে এসেছে, সেদিনই আমরা বুঝে গিয়েছি তার মেরুদন্ড কতুটুকু জেলি সদৃশ হতে পারে”

এবং রাতারাতি সেই কার্টুনিস্টকে তারা চাকরিচ্যুতও করেছে। এই হলো বদলে দেওয়া মেরুদন্ডহীনদের ক্যারিশমা!

৬৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২৪০

মনজুরুল হক বলেছেন:

@ফিউশন ফাইভ। থ্যাংকস টু ইউ। একটা মানবিক দাবি সম্বলিত পোস্ট যাকে ৯৯% ব্লগার সমর্থন করেছেন। আপনি সেখানে বিশেষ উদ্দেশ্যে নাক গলিয়ে পোস্টের টিউন চেঞ্জ করতে চয়েছেন। এ জন্য আপনাকে আমি মনে রাখব। কথাটা মনে রাখবেন।

আপনার ব্লগের প্রফাইলে আমার কথাটি নিছক কথার কথা নয়। আমার শরীরের শেষ রক্ত বিন্দু অবশিষ্ট থাকা পর্যন্ত ওটাই আমার কথা।

এই বিষয়ে আপনার সাথে আর কথা বলতে রুচি হচ্ছে না। ভাল থাকবেন।

৭০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:২৬০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, আপনের লাইগা ২টা সুনির্দিষ্ট প্রশ্ন:

১। জেনারেল শাকিলের “গোঁফ উপড়ানো থিওরীর” জনক আপনিই কিনা? এবং শেষমেশ জেনারেল শাকিলকে তাঁর গোঁফসমেত পাওয়া গিয়েছিলো কিনা? আপনের প্রথম আলুর “সুনির্দিষ্ট” অভিযোগ সম্বলিত “অনুসন্ধানী” প্রতিবেদন যদি এইরকম “গোঁফছেঁড়া থিওরী”র মত হয়, তাহলে তো সাড়ে সর্বনাশ।

২। যেহেতু আপনার পরিচয় এখানে কেউ জানে না, আপনি চরমপন্থী কিনা? অথবা আপনি র’ এর এজেন্ট, বা আইএসআই কিনা?

আপাতত এই ২টার জবাব দেন, পিছলামি পরে করেন।

৭১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৫০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: আপনি ব্লগে এসে নাম ধারণ করছেন “ফারহান দাউদ”। তাতে কী প্রমাণ হয়? এর বাইরে আপনার আর কী পরিচয় আছে ব্লগে? বাপ-মা-ভাই-বোন-স্থায়ী ঠিকানা লেখা কি আছে ব্লগে? আপনি তো শিবির কর্মীও হতে পারেন, তাই না? এমনকি জেএমবিও? হতে পারেন না? ফলে আপনি ব্লগে এসে একটা নাম নিলেও আপনারে ছদ্মপরিচয়ধারী বলেই গণ্য করি। ব্লগে সেটা খারাপ কিছু নয়। খারাপ কিছু হলে কর্তৃপক্ষও সেটা অনুমোদন করতো না। ধরা যাক, ঠাটারিবাজারনিবাসী জনৈক দাউদ কারে কী সন্দেহ কর্তেছে, সেইটা কোনো গুরুত্বপূর্ণ কিছু হতে পারে না। ব্লগ আর বাস্তবের পার্থক্যটা আপনার মাথায় আসতেছে না- এইটা ভালোই বুঝতে পারছি। আমরা ব্লগে লেখালেখি করি, মতবিনিময় করি আর ল্যাম্পপোস্ট সশরীরে এখন পুলিশের খাতায়, পত্রিকার পাতায়- এবং এই কারণে আমরা তাদের নিয়ে আলোচনা করতে উৎসাহী। নইলে তো ফারহান দাউদ আপনারে নিয়াই আমরা ব্যস্ত থাকতাম। এবার বোঝা গেছে?

তবে এটা ঠিক যে, ল্যাম্পপোস্ট বিষয়ক পোস্টগুলোতে ঢাবির একজন শিবিরকর্মীকে (পরে ছাত্রদল) বেশ সরব থাকতে দেখেছি। এমনকি তিনি ল্যাম্পপোস্ট কর্মীদের হালহকিকতও বলে দিচ্ছিলেন জাতেমাতালের পোস্টে। আর এখন আপনারে দেখতেছি।

আমি বলবো, এই দুটো উদাহরণই ল্যাম্পপোস্ট বিষয়ে সতর্ক হওয়ার জন্য যথেষ্ট। স্বাধীনতাবিরোধী ও চরমপন্থীরা পুনবার্সিত হতে চাইছে- এ বিষয়ে আর কোনোই সন্দেহ নেই।

৭২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪০০

বলেছেন: এটাকে বলে ডিল্যুশনাল।

ফিউশনের জন্য একটা প্রশ্ন…

আপনি কি টিপাইমুখ বাঁধ চান, নাকি চান না?

৭৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪৪০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ফারহান দাউদ @

প্রশ্নের উত্তর :

১. এ বিষয়ে আহসান হাবিব শিমুলের একটি পোস্টে বিস্তারিত ব্যাখ্যা আছে। Click This Link ১১ ও ১২ নম্বর মন্তব্য পড়েন। পড়ে প্রথমবার বুঝতে না পারলে (সেটাই স্বাভাবিক) নেক্সটবার বানান কৈরা কৈরা পৈড়েন। তারপরও বুঝতে না পারলে জিগায়েন আমারে।

২. ব্লগ নীতিমালাটা একবার পড়েন। আইজুদ্দিন কে, নির্ঝর নৈঃশব্দ কে- ব্লগে এই পরিচয়ের দরকার পড়ে না। এখানে লেখাই লেখকের পরিচয়।

এবার আপনার কাছে তিনটি প্রশ্ন। পিছলামি কৈরেন না দয়া কৈরা।

১. আপনি জেএমবির সঙ্গে কতদিন ধরে জড়িত রয়েছেন? ছাত্রশিবির থেকে আপনি কেন জেএমবিতে এলেন?

২. যেহেতু ব্লগে আপনি নাম নিয়েছেন ফারহান দাউদ। পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য অনুগ্রহপূর্বক আপনার পিতৃপরিচয় কি জানতে পারি?

৩. ইসলামি ছাত্রীসংস্থার নেত্রী সন্ধ্যাবাতির “ভাবতে শেখা” স্কুলের হেডমাস্টার হিসেবে কতোদিন ধরে কর্মরত আছেন?

৭৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪৫০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, আবার পিছলাইলেন। ১ নম্বর প্রশ্নটার জবাব দেন, জেনারেল শাকিলের “গোঁফ উপড়ানো থিওরীর” জনক আপনিই কিনা? এবং শেষমেশ জেনারেল শাকিলকে তাঁর গোঁফসমেত পাওয়া গিয়েছিলো কিনা?

এবং ২ নম্বরটা, আমারে এই ব্লগেরই অন্তত ৫০ জন লোক সামনে দেখসে, আপনের আলু পত্রিকার কয়েকজনও তার মাঝে আছে, কিন্তু আপনেরে কেউ দেখসে বইলা মনে করতে পারে না। যেহেতু আপনি একজন নামপরিচয়হীন এবং সামাজিকভাবে মূল্যহীন ব্যক্তি, কাজেই নিশ্চিতভাবেই আপনি একজন চরমপন্থী এবং র’এর দালাল, এইটা ঠিক কিনা। প্রশ্ন ২টা নিয়া পিছলায়েন না, তাইলে আপনেরে চরমপন্থী সন্দেহে সরকারের খাতায় লিপিবদ্ধ করতে বাধ্য হবো।

৭৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪৮০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, ১ এর জবাব, আমার সাথে শিবিরের সম্পর্ক নাই, এবং আপনার জন্য দুর্ভাগ্যজনক, আপনি সেটা প্রমাণও করতে পারবেন না।

২ এর জবাব, আপনি আগে নিজের পরিচয় দেন, যেহেতু আমার পরিচয় সবাই জানে, সমান সমান হইতে তো আপনার পরিচয়টাও জানা লাগে। নাকি আপনি নিজের পিতামাতার নাম জানেন না?

৭৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৪৯০

বল বীর বলেছেন:

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

১.স্বাধীনতাবিরোধী ও চরমপন্থী পুনর্বাসনের ব্লগীয় আন্দোলন সফল হোক। আপনারা জয়যুক্ত হোন। জয় গোলাম আযম, জয় চরমপন্থী!

সব কিছুর সাথে গোলাম আযমের নাম যুক্ত করে শাক দিয়ে মাছ না ঢাকার চেষ্টা করলে জাতি খুশি হইবো। কিছু কিছু ধুন্ধর পাবলিক গোলাম আযমের নাম কে ব্যবসা হিসেবে নিছে!! কোথায় ল্যামপোষ্ট আর কোথায় গোলাম আযম!!

২. আজকের প্রথম আলোতে টিপাইমুখ নিয়ে দুইটা বিশাল রিপোর্ট! ড. জাফর ইকবাল স্যারের রঙিন ছবি সহ…

ফিউশন ফাইভ ভাই প্রথম আলো কেন গত ছয় মাস ধরে এমন রিপোর্ট করে নাই বা চেষ্টা করে নাই? দেশের অন্যান পত্রিকা যখন টিপাইমুখ বাঁধ নিয়ে রিপোর্ট করে তখন প্রথম আলো বদলে যাও শ্লোগান নিয়ে স্কুলের ছাত্রদের কে ক্লাস রুম ময়লা না করতে শপথ করায়!!! কোন বিষয়টা জাতীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিলো ক্লাস রুম নাকি টিপাইমুখ? এখন প্রথম আলোর কবরে যাওয়ার সময় হয়েছে তাই টিপাইমুখ নিয়ে রিপোর্ট করে অতীত ভুলাইতে চায়?? আপনার উদাহরনে কিন্তু তাই বলে।

৩.”প্রগতির স্বার্থেই প্রথম আলোর টিকে থাকা দরকার- এটা আপনাকে মনে রাখতে হবে।”

দেশের স্বার্থ পরিপন্হি কাজে জড়িত প্রগতির মন্চ কেন প্রয়োজন? প্রথম আলো তার গ্রহন যোগ্যতা হারিয়েছে। প্রথম আলো যে ভারতের হয়ে মিড়িয়া প্রচারে নেমেছে তা এখন পরিস্কার। অতএব এ ধরনের প্রগতি ভারত মাতার জন্য জন্য ভালো দেশের জন্য না। মতি লতির উচিত পশ্চিম বাংলায় গিয়ে প্রথম আলোর প্রগতির আলো দেয়া।

৭৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৫১০

ফারহান দাউদ বলেছেন: আর ফিউশন, আমি আগে প্রশ্ন করসিলাম, নিয়ম বলে, জবাব আমারই আগে পাওনা। আর আমার পরিচয় সম্পর্কে সন্দেহ আছে যেসব হারামজাদার, তাদের সবাইকে আমি বরাবরই বলেছি সামনে এসে দেখা করতে, নইলে অস্তিত্বের প্রমাণ দেব কিভাবে? দুঃখের বিষয়, এখন পর্যন্ত কোন বাপের ব্যাটাই সেই সাহস দেখাতে পারেনি। ফিউশন, আপনার আর সব নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও মেরুদণ্ড নিয়ে সন্দেহ ছিল না, আজকে সেই প্রশ্নটাও তুলে দিলেন, আর মেরুদণ্ড হীন লোকদের সাথে আলাপ করতে বরাবরই আমার রুচিতে বাঁধে।

৭৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৫৫০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: মনজুরুল হক @

আপনাকেও ধন্যবাদ। আবারও বলি, এটা কোনো মানবিক দাবি নয়। এটা উদ্দেশ্যমূলক, যাতে বাংলাদেশের প্রধান দৈনিককে হেয় করার চেষ্টা করা হয়েছে। স্বাধীনতাবিরোধী ও চরমপন্থীদের পুনর্বাসনের চেষ্টা করা হয়েছে। তবে আপনার উদ্যমের প্রশংসা করি। তবে বয়সের কথা মনে রাখা ভাল। বেশি দৌড়ঝাঁপ করবেন না। শরীরের ওপর ধকল নেবেন না। এই অধমের কথাটা আশা করি মনে রাখবেন। বাই দ্য ওয়ে, রুচি চানাচুর একবার ট্রাই করে দেখতে পারেন।  মশকরা কর্লাম একটু।

 

এ ব্যাপারে কোনো দ্বিধা নেই যে, আন্তর্জাতিক আইনের তোয়াক্কা না করে ভারত একতরফাভাবে টিপাইমুখে বাঁধ তৈরি করতে যাচ্ছে, সেটা আমি চাই না। আমরা এজন্য ব্লগে একটি ক্যাম্পেইন করার পরিকল্পনাও করেছিলাম কৌশিকসহ।

Click This Link

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:২৬০

লেখক বলেছেন:

@ফিফা। জগতের কোন কিছুই উদ্দেশ্যহীন নয়। অবশ্য এটা আপনার মগজে না থাকাটাই স্বাভাবিক।

হ্যাঁ আপনিই ঠিক! প্রথম আলো, না হৈলে তার বাপ, তা না হৈলে তার বাপ…কেউ না কেউ আমার মহা ক্ষতি করসে। আর সেই কারণে আমি বাংলাদেশের প্রধান দৈনিককে হেয় করতে চাইতেছি! এইডা আপনার ধারণা তাইতো? আর আপনি একজন ভালমানুষ আপনারেও ওই পত্রিকার লগে হেয় করতে চাইছি তাই না?

কিন্তু আপনি তো একটা অশরীরী পরগাছা। আপনারে দেখানোর কিছু নাই। আমারে এই ব্লগের অন্তত শত জনে চিনে। ফিজিক্যালিও দেখছে। আপনার এই নিকের পেছনে যে লোকটা সে নারী না পুরুষ, হিজড়া না ছাগু এইটা কেউ জানে না। কোন দিন জানাবার সাহসও আপনার হৈব না। আগে সেই সাহসটা সঞ্চয় করেন। তার পর তর্ক-বিতর্ক হইতে পারে। আর একটা কথাঃ মতি ভাইয়ের সামনে যাইতে সাহস না পান , অন্তত শুভ্র, জাকারিয়া, সুমি এগো কাছে জিগাইলে আমার পরিচয় পাইবেন।

৭৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:০০০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: কিরে ফারহান দাউদ @ ৭৩ নম্বর মন্তব্যে তো প্রশ্নের জবাব দিছি। পড়েন নাই। বানান কৈরা কৈরা আরেকবার দেখেন। নতুন কিছু প্রশ্ন করছি। ওইগুলার এবার উত্তর দেন।

ঠাটারিবাজারের কোন্ হিডেন জেএমবি কর্মী সবাইরে পরিচয় দিতে বলতেছে, এরে পাগল সাব্যস্ত করা জরুরি।

আমি আবারও বলি,ল্যাম্পপোস্ট বিষয়ক পোস্টগুলোতে ঢাবির একজন শিবিরকর্মীকে (পরে ছাত্রদল) বেশ সরব থাকতে দেখেছি। এমনকি তিনি ল্যাম্পপোস্ট কর্মীদের হালহকিকতও বলে দিচ্ছিলেন জাতেমাতালের পোস্টে। আজ আপনারে দেখলাম।

আমি বলবো, এই দুটো উদাহরণই এই আন্দোলনের নৈতিকতা নষ্ট করে দিয়েছে। ল্যাম্পপোস্ট বিষয়ে সতর্ক হওয়ার জন্য এই দুটো উদাহরণই যথেষ্ট। স্বাধীনতাবিরোধী ও চরমপন্থীরা পুনবার্সিত হতে চাইছে- এ বিষয়ে আর কোনোই সন্দেহ নেই।

৮০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:০১০

দেশী পোলা বলেছেন: আশীষ কোড়ায়া ও প্রিন্স মাহমুদ নামে আটক দুইজন ছাত্রের নিঃশর্ত মুক্তি চাই

ফিউশন ফাইভের দালালী দেইখা টায়ার্ড, উনারে ক্রসফায়ারে দিলে আমি কিছুই কমু না

৮১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:০২০

পি মুন্সী বলেছেন: “তোয়াহা-ফরহাদের সঙ্গে পূর্ববাংলার মোফাখখারুলকে আশা করি একপাল্লায় মাপবেন না।”

আমি কোন পাল্লায় কাউকে মাপি না। আপনিই মাপলেন। কেবল বলেছি গণ-আকাঙ্খার নেতা কে হয়, কার উপর তা নির্ভর করে, কার উপর করে না। তবে আপনার তুলনার ষ্টাইল দেখে বুঝেছি আপনি না তোয়াহা, না ফরহাদ না মোফাখখারের সম্পর্কে ধারণা রাখেন।

তবে,আপনাকে বুঝতে,

“প্রগতির স্বার্থেই প্রথম আলোর টিকে থাকা দরকার- এটা আপনাকে মনে রাখতে হবে” – এটা লাখ কথার এক কথা বলেছেন।

এটা আগে যদি লিখতেন! অনেক সময় বেচে যেত।

আপনার প্রগতি, হ্যা, এটা আসলেই আপনার ব্যক্তিগত প্রগতির কথা।

এর সাথে সমষ্টিগত আমাদের কোনই সম্পর্ক নাই।

 

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

আমরা ঠিকই আমাদের কাজ করছি, করবো। তা নিয়ে ব্লগে বলাবলির কিছু নেই। তবে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে, খোমেনী ইহসান কিংবা ফারহান দাউদরা যদি এই ধরনের আন্দোলনে ঢুকে পড়ার সুযোগ না পায়। সাবেক শিবিরকর্মী এবং ইসলামি ছাত্রী সংস্থার নেত্রী সন্ধ্যাবাতির অনুগতদের নিয়ে এ ধরনের আন্দোলন সফল করা কঠিন।

পি. মুন্সী@

খুব জানতে ইচ্ছে করে, আপনার স্কেলটা কতো বড়ো, কোন্ দেশে তৈরি, যেটা দিয়ে “তুলনার স্টাইল” মাপেন?

৮৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৩৮০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: মনজুরুল হক@

৭৮ নম্বর মন্তব্যের জবাব-

ব্লগে ৩০ হাজার নিকের মধ্যে কমপক্ষে ২৫ হাজার (তারও বেশি হবে হয়তো) নিক নামহীন, তাদের কেউ চেনে না। আমার নিকটিও এদের মধ্যে একটি। এখন আপনার ভাষ্যমতে, এরা সবাই কি অশরীরী পরগাছা?

আপনারে ব্লগের কে চেনে কিংবা না চেনে- তা ব্লগের মতো ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কিছু না। ব্লগ কনসেপ্টটা সম্পর্কে আপনার জানায় ভয়াবহ গলদ আছে, বুঝতে পারছি। তবে ভাই, সবিনয়ে একটা কথা বলি, আপনাকে নিয়ে আমার কোনো আগ্রহ অতীতে ছিল না, এখনো নেই। আপনি আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারেন নাই। এদিকে সবিস্ময়ে লক্ষ্য করলাম, পরিচয় জানিয়ে ব্লগিং করার জাহাঙ্গীর আলম আকাশের সাম্প্রতিক ধারণার সঙ্গে আপনার ধারণা পুরোপুরি মিলে যাচ্ছে। শুভ্র বা একেএম জাকারিয়া তো হাজার জনেরে চেনে- কারওয়ানের বাজারের মুদি দোকানি থেকে স্টেডিয়ামের ত্ত্ত্বাবধায়ক পর্যন্ত। গত অন্তত এক বছরে (পত্রিকায় কলামও লিখেন বলে বলছিলেন একবার) আপনারে যেহেতু চেনা হয়ে উঠে না, আমার মনে হয় না শুভ্র-জাকারিয়ার সার্টিফিকেটও কোনো ভাবান্তর ঘটাবে বলে মনে হয় না।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৪৭০

লেখক বলেছেন:

আরে মুশ্কিল! আমাকে নিয়ে আপনাকে আগ্রহ দেখাতে কে বলল? বরং আপনি আগ্রহ না দেখালেই খুশী হতাম। আমারই ভুল। একটা রহস্যময় চরিত্রের সাথে সময় নষ্ট করলাম।

এনি ওয়ে, আপনাকে আবারো বলি ওই দুজন ছাত্রের জন্য আপনার মতি ভাইরে একটু মনে করাইয়া দিয়েন। ব্লগ কন্সেপ্টে গলদ নিয়েই আমি ভিজিবল। আপনি ইনভিজবল নো বডি।

৮৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৪৩০

ধীবর বলেছেন: খাইছে, এক ল্যাম্পপোস্টের কারনে এত কথা? হিসাব তো খুব জটিল না। দেশের স্বার্থে এক দল পুলাপাইন সোচ্চার হইছে। এখন হেরা চুর না ডাকাইত এইটা বিচার করনের কি খুব দরকার আছে? হেরা চুর ডাকাইত হইলেও তো কইতে হয়, দেশের ১৫ কোটি মানুষ, ৫০টার মত রাজনৈতিক দল, ব্যাঙের ছাতার মত অঙ্গ সংগঠন, হাজার খানেক সুশিল, বুদ্ধিজীবি, লেখক, সাংবাদিক, কারো তো সাহস হইলো না, দেশের স্বার্থে ওই পুলাপাইন গো মত প্রতিবাদ করতে। তাইলে বিচার করেন কারা আসল দেশপ্রেমিক।

সোজা কথায়, এক ল্যম্পপোস্টের যা সাহস, গোটা জাতির সেইটা নাই। এখন কোন মুখে ল্যাম্পপস্টের সমালোচনা করি আমরা?

আশিষ আর প্রিন্সরে না ছাড়লে মনে করমু, সরকার দেশের না বিদেশের তাবেদারি করতাছে। ++++++++

৮৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৪৬০

বল বীর বলেছেন:

মনজুরুল হক@ ভাই, সব চেয়ে বড় ব্যাপার হলো এই পোষ্টে কেউ ওনার সাথে একমত হয়নি! জামাতি হাবিজাবি, প্রগতির অনেক ঝাড় ফু দিয়া আমাদের আরিফুর রহমান কে ভিড়াইতে পারে নাই!!

৮৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৪৮০

ফারহান দাউদ বলেছেন: আহহা, কিছুক্ষণ ব্লগে না থাকাতেই ফিউশন দেখি ব্লগ গরম করে ফেলছে। ফিউশন, আপনার কাছে আমি কোন প্রশ্নের জবাব পাই নাই,কারণ আপনে বাংলা লেখতে পারেন না। আসেন মাঠে নামি, আমার ব্যক্তিগত, রাজনৈতিক এবং পেশাগত পরিচয় নিয়া যখন আপনের সন্দেহ আছে, আসেন সামনাসামনি সেইটার ফয়সালা করি, বানান করতে হইবো না, এমনিতেই সবাই দেখবো কাওরানবাজারের মতি দালালের চামচ ফিউশন ফাইভের কি পরিচয় আর ফারহান দাউদের কি পরিচয়। কই দেখা করবেন? আসেন প্রথম আলোর অফিসের সামনেই, আপনার বাপরেও নিয়া আইসেন, আমিও আসমুনে, নাকি আপনি যে সামুর এত শুভাকাংক্ষী তাদের গুলশানের অফিসেই আসবেন? নাগরিকত্বের পরিচয়পত্রটা সাথে আইনেন, আমার ঐ জিনিসটা আছে, দরকারে ওয়ার্ড কমিশনার আর সরকার দলীয় ২-১ জন নেতারেও আনবো, আমার ব্যক্তিগত এবং আদর্শগত পরিচয় সম্পর্কিত সাক্ষ্য আশা করি তাঁরা দিবার পারবেন। এখন আপনের যদি তাতে মন না ভরে, তাইলে সেটা ভরানোর ব্যবস্থাও সেইখানে করা হবে আশা করি। আপনেও কি আপনার বাপ রে সাথে আনবেন, নাকি বাপের পরিচয় জানার সৌভাগ্য আপনার হয় নাই? কিরে ফিউশন, এই লেখাগুলা কি পড়তে পারো, নাকি বানান কইরা পইড়া দিতে হবে? বাপের পরিচয় থাকলে সামনেই আইসা পড়েন, কেডা দেশদরদী আর কেডা জেএমবি, হাতেনাতেই প্রমাণ হোক, ফিউশ ফাইভ গর্তের ইন্দুর হইলেও আমি তো সেইটা না।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৫৬০

লেখক বলেছেন:

বিভিন্ন এজেন্সির দালালী পর্যন্ত ঠিক আছে। এর বাইরে ওরে পাইবেন না। ওই সাহস তার জীবনেও হবে না।

৮৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৫১০

মনজুরুল হক বলেছেন:

এই পোস্টের সবাইকে ধন্যবাদ। শুভ সকাল। এখানকার কেউ কাল(আজ) আশিষ-প্রিন্স এর মুক্তি দাবী করে আরো পোস্ট দেবেন বলে আশা রাখি।

টিপাইমুখ নিপাত যাক

আশিষ-প্রিন্স এর মুক্তি চাই।

৮৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৫৪০

আশরাফ মাহমুদ বলেছেন: বিপ্লবীদের মৃত্যু নেই

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:২৫০

লেখক বলেছেন:

বিপ্লবীদের মৃত্যু নেই

বিপ্লবীদের মৃত্যু নেই

বিপ্লবীদের মৃত্যু নেই

বিপ্লবীদের মৃত্যু নেই

৯০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৬:৫৫০

শফিউল আলম ইমন বলেছেন: দালালে দালালে দেশটা ভইরা গেলো! প্রথমালোর মতো চুতিয়া কর্পারেটব্যবসায়ীদের সাফাই গাইতে পারে সে কতবড় ধান্ধাবাজ হইতে পারে!

পোষ্টে সহমত।

১৬ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৮০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ ইমন। মেজাজ বিষিয়ে আছে এসব দেখে শুনে….

৯১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:০৫০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ফারহান দাউদ @

ইসলামি ছাত্রী সংস্থার নেত্রী সন্ধ্যাবাতির “ভাবতে শেখা” স্কুলের হেডমাস্টর ফারহান দাউদের রাজনৈতি পরিচয় যে কোন্ দিকে- সেটা নিয়ে বিশেষ ভাবনার কিছু নেই। একজন হিডেন জেএমবির সঙ্গে দেখা করার রুচি আমার কেমনে হবে বলে আপনার ধারণা হল? তাছাড়া আপনি গুরুত্বপূর্ণ কেউ নন। গুরুত্বপূর্ণ কেউ হলে একটা কথা ছিল। পাবনা মানসিক হাসপাতালের পাগল একটা এসে যদি মামার বাড়ির আবদার ধরে- “আমারে নিয়া যদি আপনের সন্দেহ থাকে, আসনে সামনাসামনি সেইটার ফয়সালা করি!” কারো কি রুচি বা ইচ্ছে হবে? ফলে দুঃখজনকভাবে আপনারে CTN। বরং বলি কি, আমি বলবো যে একে একটা মন্দের ভালো বিকল্প হিসেবে নিতে পারেন, আপনার বাবা যদি গুরুত্বপূর্ণ কেউ হয়ে থাকেন, একবার আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলুন বরং। তবে গুরুত্বপূর্ণ কেউ না হলে সিটিএন!

৯২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:০৯০

আশরাফ মাহমুদ বলেছেন: @ ফিউশন ফাইভ

অযথা ঝগড়া করে পোস্টের আমেজ নষ্ট করছেন কেন? ব্যক্তিগত কুশল বিনিময় কিংবা বাহাস থাকলে আলাদা পোস্ট দিয়ে বাতচিত করুন। কল্যার্ণার্থে…।

আপনি এমন ঝগড়াটে কেন?

৯৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:১৫০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, সমস্যা হইলো, আপনে সম্ভবত পিতৃপরিচয়হীন, ফলে একটা দালালের চামচামি কইরা নিজেরে গুরুত্বপূর্ণ ভাবার রোগটা আপনের পুরানো। তোমারেও CTN, তবে যেহেতু তুমি ব্লগারদের মাঝে বিভ্রান্তু ছড়ানির একটা পুরানো উপায় ধরসো, কাজেই ব্লগারদেরই আমার এবং তোমার পরিচয় যাচাই কইরা নিতে বললাম, তোমার এবং তোমার বাপরেও CTN, অতখানি গুরুত্বহীন এখনো হই নাই। নিজের এবং পিতৃপরিচয় সম্পর্কে পিছলানো তোমার পুরানো রোগ, যেটা জানো না সেটা দিবা ক্যামনে? বরং তোমার চোখে গুরুত্বপূর্ণ এমন কারো সামনেই তোমার পরিচয়টা দাও, আমরাও সবাই আসি, দেখি দেশের নিরাপত্তার গুরুদায়িত্বে নিয়োজিত এই মহান ভারতীয় কর্পোরেট জারজটা আসলে কে।

৯৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:২১০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ফারহান দাউদ@

গুরুত্বপূর্ণ যে কথাটা বলা হয়নি, সেটা হল- অতীতে এটিমের হাতে তুমি যেভাবে ধর্ষিত হয়েছ, তাতে তোমার দ্রব্যদির প্রতি আমার তেমন কোনো আগ্রহ নেই। ওটাকে খাল বলাটাই যথার্থ হবে। তাতে আমার দ্রব্যদি নিশ্চিতভাবেই যথার্থরূপে স্থাপিত হবে না। তাহলে লাভ কী? মজা না পাইলে আমি কিছুতে নাই।

তবে একটি জিনিস ভালোই বুঝতে পারছি, পরিচয় জিগাইবো গুরুত্বপূর্ণ ব্লগারে, আর তুমাদের কাম হৈল আমগো সামনে আইসা জাস্ট চিৎ হওয়া। তুমাদের ওই একটাই কাম।

৯৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:৩৩০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, যদিও তুমি মানসিক রোগী, তারপরেও শোনা যাক ঠিক কোন পর্যায়ের বা পদের লোকরে তুমি গুরুত্বপূর্ণ মনে করো, তারপরে দেখি তুমার সাথে তেমন কারো দেখা করানি যায় কিনা। তখন নিজের বাপরে নিয়া আইসো, (যদিও তার নাম তুমি জানো কিনা সন্দেহ আছে), নাইলে তো পালানির পথ পাবা না।

ব্লগাররা, ফিউশন যেহেতু সুকৌশলে টিপাইমুখ এবং ল্যাম্পপোস্ট ইস্যুতে এই পোস্টের যে আলোচনা তাকে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, এবং লক্ষ্য করবেন কারো কোন প্রশ্নের জবাব না দিয়ে শুধুই ব্যক্তিগত আক্রমণে গিয়ে পোস্টের মূল সুরকেই বদলে ফেলছে, কাজেই এই দালালের সাথে আমি আর তর্কে যাবো না, আশা করি সবার কাছেই তার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে গেছে। সবাইকে ধন্যবাদ, আসুন পোস্টের মূল ইস্যু নিয়ে আলোচনায় যাই।

৯৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:৫৩০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন:

সর্বশেষ সিদ্ধান্ত


১. খোমেনী ইহসান এবং ফারহান দাউদের উপস্থিতিতে টিপাইমুখবিরোধী ব্লগীয় ক্যাম্পেইন নৈতিক গুরুত্ব হারিয়ে ফেলেছে।

২. ফারহান দাউদ ইসলামি ছাত্রী সংস্থার নেত্রী সন্ধ্যাবাতির ভাবতে শেখা স্কুলের ছাত্র এবং চরম অনুগত। এ বিষয়ে তার ব্লগের লিংকতালিকা দেখলেই বোঝা যাবে। ব্লগে অনেকেই তাকে হিডেন জেএমবি হিসেবে শনাক্ত করেছে ইতিপূর্বে। ফলে তাকে এবং জামাত-শিবির-জেএমবি অন্যান্য কর্মীদের নিয়ে কোনো প্রগতিশীল আন্দোলনই হতে পারে না।

৩. ইতিহাস আমাদের সাক্ষ্য দেয়, পাকিস্তানি হাবিলদারের গর্ভজাত সন্তান কখনোই প্রগতিশীল হতে পারে না। আমি সেরকম একজনের সঙ্গে দীর্ঘ আলাপে শুধুই সময় নষ্ট করলাম।

৪. ফারহান দাউদের এই মুহূর্তে একমাত্র করণীয় হল- “গ্রাহক চাহিবামাত্র চিৎ হয়ে শুয়ে পড়া”। তবে জানিয়ে রাখছি, খালের মধ্যে আমি নেই। এটিমকে অভিশাপ দেই দীর্ঘ এই খাল খননের জন্য।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:০৪০

লেখক বলেছেন: সর্বশেষ সিদ্ধান্তঃ পাগলের প্রলাপ!

৯৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৭:৫৭০

ফারহান দাউদ বলেছেন: ফিউশন, আন্দোলন তুমি করো, আমি হার মানলাম, খুশি?  তবে কারে তুমি গুরুত্বপূর্ণ ভাবো সেইটা জানলাম না, তাইলে সেরকম কারো লগে তুমার দেখা করার একটা ব্যবস্থা করা যাইতো। পশ্চাদ্দেশে গরম ডিম প্রবেশ করালে তুমি কিভাবে একজন গুরুত্বপূর্ণ লোকের ভাবগাম্ভীর্য নিয়ে নীরব থাকো সেটা দেখার বড়ই ইচ্ছা ছিল।

আর হ্যাঁ, তোমার প্রগতির ঝাণ্ডা মতি মিয়ার সাথে উড়াও, ব্লগারদের মস্তিষ্ক তোমার চেয়ে একটু পরিণত বইলাই আমি বোধ করি।

৯৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৮:০৬০

কিউরিয়াস বলেছেন: বলতে খারাপ লাগছে, কিন্তু বলতেই হচ্ছে, ফিউশন ফাইভ এর কথায় যথেষ্টই যুক্তি খুঁজে পাচ্ছি।

২ টা কথা আগে বলে নেই: আমি দেশের বাইরে থাকা এক বাংলাদেশী, নিউজ সোর্স আর কিছু ব্লগ দেখে দেশের গতিপ্রকৃতি বোঝার চেষ্টা করি। টিপাইমুখ বাঁধ নিয়ে আর সবার মত আমারো যথেষ্ট আপত্তি আর সন্দেহ।

যখন শুনি ল্যাম্পপোস্ট নামে একা সংগঠন ভারতীয় দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করেছে, তখন পরপর এই চিন্তাগুলা মাথায় আসছে:

১. বাহ চমৎকার কাজ করেছে!

২. কিন্তু “ল্যাম্পপোস্ট” কারা? একটু খোঁজ নিতে হয় তো!

৩. নৈতিক কারণে প্রতিবাদ অবশ্যই ঠিক আছে, কিন্তু একেবারে প্রথমেই ভারতীয় এম্বেসী? ওরা কি পাঠচক্র? তাহলে ওরা কি লেখালেখি করে প্রতিবাদ করেছে আগে? কিনবা ঢাবিতে নিদেনপক্ষে একটা মিছিল? এগুলোর কোনটার খবর কেউ বলতে পারেনা। সন্দেহ আসাটা খুবই খুবই, ১০০% যৌক্তিক!

৪. যতদুর জানি, ওদের আরো কিছু দাবী ছিল, ভারতের আভ্যন্তরীণ আরো কয়েকটা ব্যাপার নিয়ে। এই ব্যাপারটা ঠিক কিরকম?

সব মিলিয়ে, ব্যাপারটা সন্দেহজনক অবশ্যই। পুলিশি নির্যাতন আর হয়রানীর প্রতিবাদ জানাই, কিন্তু ল্যাম্পপোস্টের এজেন্ডাও কতটুকু মেলে আম-জনতার সাথে, সেটা খতিয়ে দেখা দরকার অবশ্যই।

@ফারহান দাউদ, মুক্তিযুদ্ধের কথা বললেন, বললেন তখন কি কেউ দেখেছিল কার কি এজেন্ডা? উত্তর : অতি অবশ্যই। মুজিবনগর সরকার মুক্তিযোদ্ধা রিক্রুট করার সময় খুব বেছে বেছে অতি বামদের বাদ দিয়েছিল।এই স্ট্রাটেজির অনেক কারণ ছিল, তার মধ্যে একটা ছিল মুক্তিযুদ্ধকে কেউ যেন “কম্যুনিস্ট আপরাইজিং” হিসেবে চিন্হিত করে এর গুরুত্ব কমিয়ে/বিকৃত করে না দেয়, বিশেষ করে সেই কোল্ড ওয়ারের সময়।

৯৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৮:০৯০

কিউরিয়াস বলেছেন: মাই গুডনেস, কমেন্টে কমেন্টে পানি দেখি অনেকদূর আমার ঐক্যমত শুধু ফিফার প্রথম দিককার কমেন্টগুলায় শেষের দিকের কমেন্টগুলার আলোচনা থেকে সরে গেলাম বিনীতভাবে।

১০০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৮:১৯০

ফারহান দাউদ বলেছেন: কিউরিয়াস, আপনি ফিফা’র আরেকটা নিক না ধরে নিয়ে আলোচনায় যোগ দিচ্ছি। প্রথমত, জাতীয় স্বার্থে এজেন্ডা মিললে, অন্তত সে রাজাকার না হলে এমনকি র্যাডিক্যালদের প্রতিবাদকেই গ্রহণ করতে আসলে সমস্যা কোথায়? আপনার দেয়া তথ্যটার ব্যাপারে আমার যথেষ্ট সন্দেহ আছে, যতদূর জানি, মুক্তিযুদ্ধে আপামর জনসাধারণ যোগ দিয়েছিল, বাছাবাছির সুযোগ সেখানে ছিলই না, যদি শুরুর দিকে থেকেও থাকে, পরের দিকে এই জাগরণ রোধ করার ক্ষমতা কারো ছিল না। যদি আপনার তথ্যের স্বপক্ষে কোন রেফারেন্স থাকে, তাহলে সেটা বিশ্বাসযোগ্য হতো। ধন্যবাদ।
Top of Form

আপনার মন্তব্য লিখুন

কীবোর্ডঃ  বাংলা                                    ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয় ভার্চুয়াল   english

নাম

       

Bottom of Form

২০৮টি মন্তব্য

১-১০০ ১০১-১৩২

১০১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৮:৩৯০

নাজিম উদদীন বলেছেন: সহমত। +++++

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৩১০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ নাজিম উদদীন।

১০২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৮:৫৮০

ইমন জুবায়ের বলেছেন: একমত। +

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪৪০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ ইমন জুবায়ের।

১০৩. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৯:৪২০

কিউরিয়াস বলেছেন: @ ফারহান দাউদ, কেউ যদি তিপাইমুখের সাথে এইদাবীগুলা নিয়ে আসে: (কাল্পনিক)

-ভারতের মানবাধিকার উন্নতি

-সেভেন সিস্টার থেকে সেনা অপসারণ

-মিজোরাম রাজ্যের স্বাধীনতা

-পাকিস্টানকে নি:শর্ত কাশ্মীর সমর্পণ

আপনি কি তাদের সাথে আন্দোলনে যাবেন? আমি বলছিনা ল্যাম্পপোস্টের ডার্ক এজেন্ডা আছে, কিন্তু তাদের ব্যপারটা খতিয়ে দেখার দরকার আছে অবশ্যই। বাংলাদেশে রাজনৈতিক আন্দোলনের অভিগ্গতা আমারো আছে কিছু, তা থেকেই জানি, এইখানে অসংখ্য এজেন্ডা নিয়ে অসংখ্য গ্রুপ আছে, এবং “আন্দোলন স্যাবোটাজ” শব্দটা যতটা নাটকীয় শোনায়, বাস্তবে ততটাই সুলভ।

আপনার ২য় প্রশ্নে, আমি একদম গ্রাস রুটের মুক্তিযোদ্ধাদের কথা বলছিনা, বলছি যারা সংগঠক, কমান্ডার হিসাবে রিক্রুটেড হয়েছেন, তাদের কথা। এটা পড়েছি কোন এক বিখ্যাত মুক্তিযুদ্ধের বইয়েই, নাম মনে পড়ছেনা, ক্ষমাপ্রার্থী।

আপনি এমনিও ভেবে দেখেন, ইট মেকস সেন্স। এই ব্লগেই পাবেন অনেক পোস্ট, তখনকার বাম ধারার খবরগুলো। চীন-পন্থী গ্রুপ মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে ছিল, এবং অনেকেই চেয়েছিলেন যুদ্ধটাকে শ্রেণী-বিপ্লবের রূপ দিতে, আওয়ামী লীগ সেটা হতে দেয়নি, এবং শজেই বোঝা যায় কেন।

১০৪. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সকাল ৯:৫০০

কিউরিয়াস বলেছেন: সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট–আমি ফিফার নিক না

বিডিআর “বিদ্রোহ”-র সময়ে ওনার মেজর শাকিলের গোঁফ এবং অন্যান্য সেনসেশনাল খবরগুলায় খুবি বিরক্ত ছিলাম–কিন্তু এই ক্ষেত্রে তার মনে যে সন্দেহগুলা আছে, সেটা আমারো মনে আগেই তৈরী হয়েছে, এই যা।

১০৫. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ বিকাল ৪:১৪০

বলেছেন: ব্যাপক মিস হৈসে দেখি ।

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৯:৪৭০

লেখক বলেছেন: মিস কৈ ? সার্কাসের জোকার দেখেননি ?

১০৬. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:০১০

রণদীপম বসু বলেছেন: খুনের দেশে বিপ্লবের চেয়ে মানুষ বাঁচানো কম গুরুত্বপূর্ণ না।

এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা আর কী হতে পারে ! ফিউশন ফাইভ যে বলছেন, ভারতীয় দুতাবাসের সামনে সহিংস প্রতিবাদ ছাড়া তাদের আর কোন পরিচয় নাই, জাতি হিসেবে প্রত্যেকটা নাগরিকের আহত হবার মতো কথা। এরা এ দেশেরই নাগরিক, আমার আপনার ভাই। একটা অতি গুরুত্ববহ জাতিয় ইস্যুতে টিপাইমুখ বাধ তৈরির প্রতিবাদ করতে গিয়েছেন, এর চে বড় পরিচয় আর কি হতে পারে ! না কি পেছনে কোন বড় পরিচয় না থাকলে অন্যায়ের প্রতিবাদ করা যাবে না !

বাহ্, তাঁরাই তো মনে হয় নাগরিক অধিকার নিয়ে ভারী ভারী কথা বলেন !

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৯:২৬০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ দাদা। আপনাদের জন্য বায়োস্কোপ স্টিল করে রেখেছি। দেখুন।

১০৭. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৮:০৪০

অ্যামাটার বলেছেন: হুমম…ঘটনা ম্যালাদূর দেখি!

ফিউশন ফাইভের কথাগুলো যতই পড়ছি ততই অবাক হচ্ছি।

” ফিউশন ফাইভ বলেছেন: ল্যাম্পপোস্টের ছদ্মাবরণে চরমপন্থীদের তৎপরতার খবর প্রথম আলোর বর্তমান প্রচারসংখ্যার হিসেবে ওইদিনই কমপক্ষে ৩০ লাখ মানুষের কাছে সরাসরি পৌঁছে গেছে। এখন এই ব্লগটাতে, আপনারা কয়েকজন যে কেঁদে কেটে আকুল হয়ে পড়ছেন, তা নজর কাড়ছে সামান্য কিছু মানুষের। প্রতিবাদপত্র পাঠালে তা কি অনেক বেশি মানুষের কাছে যেত না? নাকি প্রতিবাদ করার মতো যথেষ্ট মানসিক বল ল্যাম্পপোস্ট বা আপনাদের নেই?”—

প্রথম কথা হল, উক্ত অনুসন্ধানী প্রতিবেদক মহাশয়ের কি এমন গরজ পড়ে গেল, যে নাওয়া খাওয়া বাদ দিয়ে উনি গায়ে পড়ে রাতারাতি ল্যাম্পপোষ্টকে চরমপন্থী প্রমাণের মিশনে লাগলেন! তাছাড়া এটা যদি ঘহারাবাহিক কোনও প্রতিবেদনের একটা ফলোআপ হত, তাহলে না হয় একটা কথা ছিল। এতেই লেজ বের হয়ে গেছে যে প্রথমআলোর মতলব সুবিধার না। আর একথা সত্যি, প্র-আলোর সুবাদে এই মিথ্যা অভিযোগটাই একটা বিরাট সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছেছে, এই নির্লজ্জ্ব হলুদ সাংবাদিকতার জন্য যৌক্তিকভাবেই সাধারণব্লগাররা এই মিডিয়া টাইকুনের সমালোচনা করছে, যেটা প্রথমআলো ডিজার্ভ করে।

আর আপনি নিজেও হয়ত জানেন, পাল্টা প্রতিবাদের ট্রিটমেন্ট যত বড়করেই দেওয়া হোক না কেন, মনস্তাত্বিক একটা ব্যাপার আছে, যে কারণেই হোক, এটা পাঠকের কাছে ততটা বিশ্বাসযোগ্য হয়ে ওঠেনা।

আর প্র-আর ত্রিশলক্ষ পাবলিশিটি সাথে ব্লগের হাজারখানেক হিটের তূলনা হবেনা বটে, তবে অবাধ তথ্যপ্রবাহে ব্লগও যে একটা শক্তিশালী মাধ্যম, এটা তো অস্বীকার করার যো নাই। তাছাড়া, ব্লগও সরকারি নজরদারীর মধ্যে থাকে। পাবলিক ওপিনিয়ন জানতে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো ব্লগের আশ্রয় নেবে না, এ’কথা কি আপনি হলপ করে বলতে পারেন?

আর আপনি বারেবারে ল্যাপ্পপোষ্টের খানদান জানতে চেয়েছেন, বলি, আমি নিজে যদিও ব্যাক্তিগতভাবে কোনও পাঠচক্রের সাথে নাই, তবে এগুলো প্রগতিশীল চিন্তাধারা ধারন করে। সেক্যুলার-এন্টিসেক্যুলার, সবধরণের আদর্শেরই আছে, এরমধ্যে কোনওটা আছে বাম ঘরণার, দুয়ে দুয়ে চার হিসেবে সেই অনুসন্ধানী প্রতিবেদকের ‘চরমপন্থী’ তকমাটা সেঁটেদিতে তাই হয়ত খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি। যাক্গা, ওভার নাইট একটা আন্ডার গ্রাউন্ড সংগঠনের বংশপরাম্পরা যিনি বের করে দিতে পারেন(দেশের আইন-শৃঙ্খলারক্ষা বাহিনী-গোয়েন্দা সংস্থা কেউই যা পারেনি)-তাকে ডিজিএফআই-এ রিক্রুট কর্লে বোধকরি আমরাও কেজিবি-মোসাদ-আইএসআইয়ের সাথে পাল্লা দিতে পার্বো। আফটার অল, এতবড় প্রতিভাকে তো আর বসিয়ে রাখা যায়না। অপচয়।

তাছাড়া, প্র-আলোর বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ তোলা যায়, সেদিন নিরীহ নিরস্ত্র ছাত্রদের ঠোলার সহিংসতার শিকার হওয়াটা সবকটা জাতীয় দৈনিকে গুরুত্ব পেলেও ট্রান্সকম গং-এর যেন বেশী ঠেকা পরেছিল তাদের চরমপন্থী প্রমাণটা। বুঝেনিতে অসুবিধা হয়না, এগুলো অতি উচ্চমর্গের রাজনীতির চাল। তবে আফসোস হচ্ছে, সবসময় স্বঘোষিত দেশপ্রেমিক ফিউশন ফাইভও বিকিয়ে গেল কর্পোরেট অর্থের স্রোতে।

তর্কের খাতিরে যদি ধরেই নিলাম প্র-আ’র দাবী সত্য। প্রশ্ন হচ্ছে চরমপন্থার সংজ্ঞা কি? সর্ভারার সংজ্ঞা কি? তারা কি ভারতীয় দূতাবাসে ডাকাতি করতে গেছিল? নাকি ব্যানার হাতে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনকরাটাই পিনাকবাবুর আক্কেল গুঢ়ুম করে দিয়েছিল?

আপনি মোফাকখার-ফরহাদ মাজহারকে এক স্কেলে মাপতে চাননি, ভাল কথা, কিছুক্ষন পর চে’-কেও চরমপন্থী বললে অবাক হব না

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৯:২৩০

লেখক বলেছেন:

লোকাটা আসলেই মোটা মাথার এক বেকুব। এই ব্লগে যা কিছু হোক তাতে সে “ব্লগে অস্থিরতার আভাস” পায়! স্বঘোষিত “ব্লগীয় সুস্থিতার” আড়ৎদারের স্বভাবই হচ্ছে চুলকিয়ে ঘা করা, তা সে ব্যাপারটা পুরোপুরি বুঝুক না বুঝুক।

আমার নিজেরই ঘেন্না লাগছে এই টাইপ একটা ভূষিমালের সাথে বাহাস করে পোস্টের মূল বক্তব্য ম্রিয়মান হয়ে গেছে।

১০৮. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৮:০৮০

অ্যামাটার বলেছেন: ফনেটিকে অনেক বানান ভুল হয়েছে, দু:খিত।

১০৯. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৮:২৯০

অমি রহমান পিয়াল বলেছেন: অনেক সময় নিয়ে মন্তব্যগুলা পড়লাম। তার আগে অবশ্যই পোস্টটাও। পরিস্থিতি কি ক্রসফায়ারের দিকে চলে গেছে নাকি! সেইক্ষেত্রে এই দুজনকে বলির পাঠা বানানোর দায় অবশ্যই আমি প্রথম আলোকে দিবো। অনেক জায়গাতে গ্রেফতারকৃত আশীষ ও প্রিন্সকে নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে, বলা হচ্ছে দুজনেই পয়ত্রিশোর্ধ এবং কারোই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রত্ব নেই। সমস্যা হচ্ছে আমরা যারা ব্লগ পড়েই লাফাই তারা আরো বিভ্রান্ত হচ্ছি। এসব নিয়ে আসলে পক্ষ-বিপক্ষে এতই বেশী হাওয়াই মিঠাই লেখা হচ্ছে যে সত্যিটা কি সেটা জানাই কঠিন হয়ে পড়েছে। যেমন যে কোনো ব্যাপারে এটা বুঝা যায় কারা করেছে, এটা বুঝতে বিজ্ঞানী হতে হয় না টাইপের মত যখন দেওয়া হয় তখন আমরা যারা আসলেই কিছু বুঝি না, যারা কংক্রিট ব্যাপার স্যাপার মানে তথ্যপ্রমাণে বিশ্বাসী, তারা আরো দিশেহারা হয়।

পোস্টে প্লাস। স্টিকি হলে আরো ভালো

১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৯:১৩০

লেখক বলেছেন:

না পিয়াল, পরিস্থিতি ‘ক্রসফায়ারের’ দিকে চলে গেছে কি না জানি না। তবে আমাদের গত কয়েক বছরের দেখার অভিজ্ঞতা হচ্ছে বাংলা ভাই, শায়খ রা গ্রেফতারের পর আইনের আওতায় আসে। প্রচলিত আইনে বিচারের পর সাজা পায়। অপর দিকে বাম-প্রগতিশীলরা গ্রেফতারের পর “ক্রসফায়ার”! জীবনও যখন দল আর তকমা দেখে টিকে থাকা না-থাকার পর্যায়ে চলে আসে তখন আশংকা হতেই পারে।

ওই দুজনের পরিচয় যাই হোক না কেন, তাদের গ্রেফতারের পেছনে অপরাধ যেটা বলা হচ্ছে তাতে যদি ক্রসফায়ারই বিধান হয়, তাহলে কি তাবত টিপাইমুখ বাঁধের বিরোধীতাকারীরা সমান “অপরাধী” নয়?

আপনি জানেন যে কার ট্রিটমেন্ট কতদূর মূল্যায়ন পায়। চাকরি বার্তা বা আল মুজাদ্দেদ এ এই খবরটা যে ইম্প্যাক্ট আর প্রথম আলোয় হলে তাই কি হবে? আমাদের আশংকাটি ঠিক এখানে। প্রথম আলোর ধ্বংস কামনা বা উন্নতি কামনা কোনটাই লক্ষ্য নয়।

১১০. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৯:৪৫০

অমি রহমান পিয়াল বলেছেন: আপনার যুক্তি সঠিক মঞ্জু ভাই। আমি একটা জিনিস মিস করে গেছি সেটা হলো আশীষ-প্রিন্সকে কি খবরটা ছাপানোর পর রিমান্ডে নিছে নাকি না। তবে দেশের প্রথম সারির গণমাধ্যমের সমর্থন অবশ্যই সরকারী অপকর্মকে জায়েজ করে- এনিয়ে আমার কোনো দ্বিমত নাই। অবিলম্বে এই দুজনের মুক্তি কামনা করি। হাস্যকর এবং লজ্জাস্কর একটা কথা কমু কমু করতে করতে কইয়াই ফালাইলাম- ফিফার কিছু পয়েন্ট আমার মাথায়ও আসছিলো। তবে সে বরাবরের মতোই পোস্টের মুখঘুরানোর দায়িত্ব পালন করছে। এইবার অবশ্য ভিন্ন মালিকানায়- এই যা তফাত। রোববারের সমাবেশে আশা করি আরো অনেক কিছুই পরিষ্কার হবে

১৪ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৫৯০

লেখক বলেছেন: সমাবেশে কি হলো তা না গেলে কি ভাবে জানবেন ?

১১১. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১০:৪৮০

সরকার সেলিম বলেছেন: আমি বাম বুঝিনা, ডান বুঝিনা, চরম পন্হি ও বুঝিনা। আমি বুঝি দেশ প্রেম, খাটি দেশ প্রেম।

ল্যামপোষ্টের এই আধিপত্যবাদি আন্দলোনকে আমি স্যালুট করি আর সাথে সাথে তাদের এই প্রতিবাদ কারিদের গ্রেফতারের ও নিন্দা জানাই। তাদের প্রতি আমার সহমর্মিতা রইল।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:২৩০

লেখক বলেছেন:

যে বাঁধের কারণে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে তার বিরোধীতা করতে গিয়ে আজ আমাদের সাহসী ছেলেদের জীবন বিপন্ন। তাদের জীবন বাঁচাতে আওয়াজ তুলুন।

১১২. ১০ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:২৭০

নেক্সাস বলেছেন: সহমত মন্জু ভাই।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:২৬০

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ নেক্সাস। আপনার পোস্টের জন্য অভিনন্দন।

১১৩. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৩৮০

অমি রহমান পিয়াল বলেছেন: বস এই ব্যাপারে আরো বিস্তারিত জানতে গিয়া আরো বিভ্রান্ত হইলাম। গ্রেপ্তারকৃত ছাত্র দুইজন রিমান্ডে আছেন বইলা জানাইছেন আপনি (নাজনীন খলিলের মন্তব্যের জবাবে)। প্রথম আলোর রিপোর্টেও তাই লেখা ছিলো। কিন্তু খোমেনী এহসান বলতেছেন অন্য কথা :

০৮ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ৮:২৪

comment by: খোমেনী ইহসান বলেছেন: প্রথম আলো যাদের চরমপন্থী সংগঠন বলেছে তাদের কেন এই সময়ে চরমপন্থী বলা হচ্ছে এইটা বুঝনের ব্যাপার। এখানে তারা ইস্যুটাকে গুরুত্ব না দিয়ে সংগঠনের রুট ধইরা টান দিছে। এটি কতোটুকু সত্য তার বিচার করতে গিয়ে আমরা দেখছি প্রথমেই প্রতিবেদনটা শুরু হয়েছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে। তারা বলছে ল্যাম্পাপোস্টের দুই নেতা আশীষ ও প্রিন্সকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। আসলে আদালত পুলিশের সাত দিনের রিমান্ড না মঞ্জুর করে তাদের জেল হাজতে পাঠিয়েছে। এতো অসত্য তথ্য দিয়ে যে প্রতিবেদন শুরু তার পরের কথাগুলোকে গুরুত্ব দেয়ার কোন দায়ই দেখি না।

Click This Link

কন এইবার বিভ্রান্তিটা কোন পর্যায়ে যাইতে পারে

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৩৯০

লেখক বলেছেন:

বিভ্রান্তির কিছু নেই। খোমেনী ইহসান নিউজটা বিশ্বাস করেননি। প্রচলিত ব্যবস্থায় পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত কমিয়ে দিতে পারে, তবে একেবারে মন্জুর করে এমন নজির বিরল।

প্রথম আলো…..

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৪০০

লেখক বলেছেন: **নামন্জুর করে

১১৪. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৪৬০

কাকশালিখচড়াইগাঙচিল বলেছেন:

রিপিট করলাম আবার

৫০. ০৯ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:১৪ কাকশালিখচড়াইগাঙচিল বলেছেন:

লাল ঝান্ডা দেখলে কর্পোরেটরা থাবা দিয়া আটকাইতে চাইবে, এইটাতো স্বাভাবিক, না হইলেই চিন্তা করারা বিষয় যে দালাল লাল কিনা।

আর একটা কথাও বলার, আপনে যে কমরেড মতিউর বইল্যা সম্বোধন করলেন, আমার অভিজ্ঞতা কয়, এই টাইপের লুক গুলি বড়ই বেশি ভয়ানক।

কী করে প্রকৃত কম্যুনিষ্ট হতে হয় আর কম্যুনিস্টদের বাল্যখিল্যতা সুলভ আচরন লেখা দুইটিতেই আমারা পাই, কী কইরা একটা গ্রুপ নিজেরা, কাউকে কোনঠাসা করে, দলে ভাঙ্গনের কারন হয়ে ওঠে।

বৃহত্তর অর্থে বিষয়টা তো সকল বাম আন্দোলনের জন্যই খাটে।

আমার একটা জিনিস মনে হইচে বচ, সেটা হইল বাংলাদেশের বুর্জোয়া দলগুলি নিজেদের মধ্যেও লুটের বিষয়ে বোঝাপড়ায় আসতে পারে নাই যে, পুঁজিবাদী অর্থেও নির্বাচনের ফলাফল মাইন্যা নেয়া, ফলে আপাত ভাবেও মত প্রকাশে তাদের এত ভয়।

কথাটা বিস্তৃত লেখলাম না, আপনে ঠিকই বুঝতে পারবেন, কী কইছি।


আপনের লেখা-টেখা যাই হোক, আপনার গুণমুগ্ধ আমার প্লাস ( নাই বা রইল তেমন কুনু গুরুত্ব) হাজারটা।

অন্ধ হইলে,অন্ধই। প্লাস।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১:৪৭০

লেখক বলেছেন:

“কথাটা বিস্তৃত লেখলাম না, আপনে ঠিকই বুঝতে পারবেন, কী কইছি। ”

হ্যাঁ, বুঝেছি দাদা। তবে এটা কি লিখলেন !!………. “আপনের লেখা-টেখা যাই হোক, আপনার গুণমুগ্ধ আমার প্লাস ( নাই বা রইল তেমন কুনু গুরুত্ব) হাজারটা।

অন্ধ হইলে,অন্ধই। প্লাস।” !!!

১১৫. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১০০

ফারুক ওয়াসিফ বলেছেন:http://www.sachalayatan.com/manik061624/25578

এখান থেকে এটা দিলাম।

জাতীয় স্বার্থে প্রাণ-প্রকৃতি-জীবন বাঁচাতে এক হোন ।

লেখক-শিক্ষক-শিল্পী-সংস্কৃতিকর্মীদের আহ্বানে নাগরিক দাবি সভা ।

দাবিঃ-টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণ প্রক্রিয়া বন্ধ কর

-ভারতীয় হাইকমিশনার পিনাকরঞ্জন চক্রবর্তীকে অপসারণ কর

-ল্যাম্পপোস্ট কর্মীদের মুক্তি দাও

স্থান ও তারিখঃ

রবিবার, ১২ জুলাই, বিকেল ৫টা ।

টিএসসি সড়ক দ্বীপ, ডাস চত্বর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ।

সকলে আমন্ত্রিত

জনসংস্কৃতি মঞ্চ

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১৭০

লেখক বলেছেন:

খবরটা জামাল ভাস্করের পোস্টে পেয়েছি। মানিক তো এখানেও একটা পোস্ট দিতে পারত!

ধন্যবাদ ফারুক।

১১৬. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২১০

বিবর্তনবাদী বলেছেন: আর কত আত্মত্যাগ করে এই মাটিকে সুফলা রাখতে হবে?

আর কত জীবন অকাতরে বিসর্জন দিয়ে শ্বাস নেওয়ার বাতাস পেতে হবে?

আর কত আশিষ প্রিন্সকে বাক স্বাধীনতার জন্য বলি হতে হবে?

আর কত রক্ত বুড়িগঙ্গায় ভাসিয়ে যাপিত জীবনকে পবিত্র করতে হবে?

=======================================

যতদিনে না দেশে সিংহভাগ মানুষ তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হচ্ছে, তত দিন।

আসলে দেশের অধিকাংশ মানুষই মাটির সুফলা, শ্বাস নেওয়ার বাতাস, স্বাধীনতা বা নদীর গুরুত্ব তেমন অনুধাবন করে না। আর যারা বোঝে তাদের অধিকাংশই আমাদের মত দূর্বল চিত্তের মধ্যবিত্ত বা দালাল। তবে, এই আত্মত্যাগগুলোই মানুষের চিত্তকে নাড়া দেবে।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৩৮০

লেখক বলেছেন:

একটা চমৎকার অভিব্যক্তি পড়লাম। আপনাকে ধন্যবাদ। নিজেকে বদলাতে পারাটাই আসল।

১১৭. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২৬০

অনন্ত দিগন্ত বলেছেন: সম্পূর্ন সহমত মন্জু ভাই

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৩৯০

লেখক বলেছেন:

ধন্যবাদ অনন্ত দিগন্ত

১১৮. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২৮০

অমি রহমান পিয়াল বলেছেন: আমার প্রশ্ন তারা কি তাইলে রিমান্ডে? নাকি খোমেনী এহসানের বক্তব্য অনুযায়ী জেলহাজতে

১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৩৫০

লেখক বলেছেন: প্রথম আলোর ভাষ্য মতে রিমান্ডে।

১১৯. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৩৭০

আবদুর রাজ্জাক শিপন বলেছেন:

আশীষ ও প্রিন্স এর নিশঃর্ত মুক্তি চাই ।

যদি এই সংগ্রামীদের মৃত্যু হয়, যদি তারা ক্রস ফায়ারে পড়ে, প্রথম আলো কখনই ক্ষমা পাবেনা, মনজু ভাই, এটা আপনি নিশ্চিত হোন বাংলার জনগণকে তারা বোকাচোদা ভাবলেও, প্রথম আলো বোকাচোদারা জানেনা, জনগণ অত বোকা না ।

প্রথম আলো চোতমারানীরা কোন নিম্নাঙ্গের কেশ যে, তারা কইলেই কেউ চরমপন্থী হইয়া যায়বো । সুশীলবেশী যেইসব বেশ্যার দালালেরা, রাতে বেশ্যা পাড়ায় যায় প্যাগ প্যাগ মদ খাইয়া,তারা যদি কারো মানদন্ড নির্ধারণ করতে যায়, আমি স্রেফ তাগো মুখে মুততে পছন্দ করবো ।

যেই লতি চোতমারানী ঋণখেলাপী,তার পত্রিকা আমগোরে কি আদর্শ শিখাইবো ! তারা ভুল মেসেজ দিয়া পাঠকরে বিভ্রান্ত কইরা ক্ষতি করতে পারবো, সেই ক্ষতি বহুগুণে বাইড়া গিয়া সজোরে তাগো পশ্চাতে লাত্থি কষাইবো ।

যেই মতি সারমেয়’র পত্রিকার পিনাক রঞ্জন বরাহটার ঔদ্ধত্যপূর্ণ কূটনৈতিক শিষ্ঠাচার লঙ্ঘিত সংবাদের জন্য স্থান সংকুলান হয়না, যেই দালালটা সেই সংবাদরে আড়াল করতে চায়, সেই চোতমারানী যখন প্রতিবাদীদের ‘চরমপন্থী’ ট্যাগিং কইয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিপদের মুখে ঠেইলা দেয়, তখন আমার ইচ্ছা করে, অকুন্ঠচিত্তে তারা কুত্তা দিয়া োদায় !

আর সেই সারমেয়’র পা চাটা চামচা যেইটা এইখানে লাফাইতেছে তারে তার বাল ছিড়তে দেন । চামচার কাজ চামচারে করতে দেন ।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪০০

লেখক বলেছেন:

কোন কিছুই বলার নেই শিপন। অক্ষমের মত শুধু দেখে যাচ্ছি কর্পোরেট ছেনালি আর স্টাবলিশমেন্টের নগ্ন দালালী। জাতে ওঠা বাঙালির এই অধঃপতন দেখেই বোধ হয় লর্ড ক্লাইভ কাঠগড়াঢ দাঁড়িয়ে বলেছিল….

“হাজারে হাজার মানুষ যখন লাইন দিয়ে নবাবের সাথে বেঈমানী করতে চায়, তখন তাদের দলে না নেওয়ার বোকামী কেন করব ?”

আর ওই চামচাটারে আসলেই পাত্তা দেওয়ার কিছু নেই।

১২০. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ ভোর ৫:৫৬০

ফারহান দাউদ বলেছেন: এইখানে স্মরণযোগ্য যে, লতি মিয়ার ফ্রিজের কন্টেইনারে কইরা মার্সিডিজ গাড়ির যন্ত্রের চালান আর মতি মিয়ার বাগানবাড়ির কেসেরও কোন ফয়সালা হয় নাই। আর এরা কিনা জাতিরে বিবেক দেখায়।

১১ ই জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৬:৪২০

লেখক বলেছেন: সেইটাই!

১২১. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ দুপুর ২:০৯০

কাকশালিখচড়াইগাঙচিল বলেছেন:

বাকী কথা ব্যক্তিগত,

(তবে এটা কি লিখলেন !!………. “আপনের লেখা-টেখা যাই হোক, আপনার গুণমুগ্ধ আমার প্লাস ( নাই বা রইল তেমন কুনু গুরুত্ব) হাজারটা।

অন্ধ হইলে,অন্ধই। প্লাস।” !!!)

১২২. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:৫০০

বলেছেন:

লেখক বলেছেন: মিস কৈ ?

— মিস শব্দে জোর দিন । না ধরতে পারলে মাজেদ সাহেব্রে ফোন দেন ।

১২৩. ১১ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:৫৪০

বলেছেন: বাই দ্যা ওয়ে এ্যাজ পার আওয়ার [ লোকালটক এ্যান্ড মি ] ওল্ড মেসেন্জার কনভার্সেশন লোকালটক প্রথমআলোর কেউ নন । সমকাল এর চট্রগাম শাখার কেউ একজন ।এটা তার নিজেরই স্বীকারোক্তি ।

অতএব সময় গুলি হুদাই লস করসেন আপনারা ।

১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:১৯০

লেখক বলেছেন:

মে বি হি ইজ দ্যাট ইউ সে। হোয়াট এভার? হি ট্রাই টু ডিফেন্ড প্রথম আলো, এন্ড হি ডান আ গ্লোরিয়াস জব! লাইক আ স্লাভ।

অতএব কোন সময়ই খামোখা কাটে না। বিতর্কক্ষেত্র(ওয়্যার ফিল্ড) অলওয়েজ ডিসাইড হিডেন ক্যারেক্টার। নাউ উই নো হু স্ট্যান্ড হোয়ার।

১২৪. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:০০০

রিফাত হাসান বলেছেন: এই পোষ্টের মন্তব্যগুলো পড়ে আমার প্রতিক্রিয়া:ল্যামপোস্টের আলোয়: আরো কিছু জরুরী কথা-বার্তা

আশা করি পড়বেন।

১২৫. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:০৮০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: একদা ব্লগার শয়তানরে সুশান্ত নিয়োগ কর্ছিল আমার সম্পর্কে খবরাখবর নেওয়ার জন্য। আমি সেইটা শুরুতেই টের পায়া গেছিলাম। তারপর সে এক দিন গেছিল। তারে একদিকে সুশান্ত বোকা বানাইছে দিনের পর দিন। আরেকদিকে আমি তারে পুরা ভোদাই বানায়া ছাড়ছিলাম। সে সুশান্তের ম্যাসেঞ্জার কনভার্সেশন আমারে কপি কৈরা পাঠাইতো। আবার আমার কনভার্সেশন সুশান্তরে পাঠাইতো। খুব মজা পাইছিলাম সেই সময়। হি হি হি।

চাকরিদাতার নিয়োগপত্র স্ক্যান করে রেখেছি প্রায় বছরদশেক আগে। দেখতে চাইলে আওয়াজ দিয়েন শয়তান। তবে একটিমাত্র শর্ত- এর বিনিময় বা শাস্তি হিসেবে আমার মনোনীত ব্যক্তির সামনে আপনাকে একটি বিশেষ কাজ করে দেখাতে হবে। রাজি হৈলে আওয়াজ দেন দ্রুত।

১২৬. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:১৮০

বলেছেন: হ । তালগাছ আপনার । দিয়া দিলাম । হৈসে । খুশী ।

১২৭. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:২৪০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: এছাড়া বলারও আপনার আর কিছু নেই- সেটা আমি ভালোই জানি। আপনারে যে ভোদাই বানাইতেছিলাম দিনের পর দিন, অনেক পরে হলেও সেইটা আপনি বুঝতে পেরেছিলেন শেষ পর্যন্ত।

তবে এখনও কিন্তু সুযোগ আছে- আমার ডকুমেন্টস ব্লগে দেবো। শুধু একটিই শর্ত- বিনিময় হিসেবে আমার মনোনীত ব্যক্তির সামনে আপনাকে একটি বিশেষ কাজ করে দেখাতে হবে। কাজটিও সামান্য। শাহবাগে এসে জাস্ট নীলডাউন হয়ে দুইটা মিনিট দাঁড়িয়ে থাকবেন। রাজি হৈলে আওয়াজ দেন প্লিজ।

১২৮. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৩৩০

বলেছেন: ডকুমেন্ট সবার কাছেই আছে । সময় হোউক ছাড়া হৈবেক । এবং শর্ত বিহীন ।

১২৯. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ২:৪১০

ফিউশন ফাইভ বলেছেন: কিন্তু সমস্যা হৈল যে, অতীত অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছি, আপনার এই সময় তো শেষপর্যন্ত কখনোই আর আসে না। আমারে কতোদিন কৈলেন, সামহোয়্যারের ডাটাবেজে অ্যাটাক করবেন। ডাটাবেজ কপি করবেন। আরো কতো কথা! আজ কর্তেছেন, কাল কর্তেছেন, পরশু কর্তেছেন… কিন্তু সেই সময় আর আসল না।  অস্বীকার কৈরেন না আবার, কনভার্সেশন খুঁজে পেতে বেশি কষ্ট হবে না। সুশান্তের ম্যাসেঞ্জার কনভার্সেশন আমারে কপি কৈরা পাঠাইতেন, আবার আমার কনভার্সেশন সুশান্তরে পাঠাইতেন- এইটাও আবার অস্বীকার কৈরেন না কিন্তু।

আমি বলি কি, সময়-টময়ের খোঁড়া অজুহাত না দেখায়া আজকেই ছাড়েন ডকুমেন্ট। আমি তো আগেই কৈছি যে, আমিও রাজি আছি। অনেক আগেই স্ক্যান করে রেখেছিলাম। তবে ভোদাইগিরির শাস্তি মাত্র একটিই শর্ত- বিনিময় হিসেবে শাহবাগে এসে আমার মনোনীত ব্যক্তির সামনে জাস্ট নীলডাউন হয়ে দুইটা মিনিট দাঁড়িয়ে থাকবেন। আর উনি এর একটি ছবি তুলবেন। রাজি হৈলে আওয়াজ দেন পিলিজ।

১৩০. ১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:৪৮০

অপ্‌সরা বলেছেন: ভাইয়া, মনে আছে? আমার পোস্ট না পড়া পর্যন্ত যে নতুন পোস্ট দেবোনা।

১২ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১১:৫৩০

লেখক বলেছেন:

ভাইয়ারে মনটা খুব খারাপ। অক্ষমের গুমরে ওঠা কষ্টটা কেবলই আরো কষ্ট বাড়িয়ে চলেছে………

হ্যাঁ, খুব মনে আছে। এক্ষুনি যাচ্ছি….গত দুই দিন একেবারেই সময় পাইনি।

১৩১. ১৩ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:১৬০

বলেছেন: ল্যাম্পপোস্টকে আইকন বানানোর দরকার দেখি না টিপাইমুখ বিরোধী আন্দোলনে। তবে আটক দুজনের মুক্তি দিতে হবে এখনই। সবার আগে দরকার একটা অনলাইন ক্যাম্পেইন টিপাইমুখের বিরোধীতা করে। প্রথম আলোকে না বলার ক্যাম্পেইন উদ্দেশ্য থেকে দূরে সরিয়ে দেবে, আমরা এত সহজে লক্ষ্য থেকে দূরে সরে যাই – পোস্টটা তার একটা জলজ্যান্ত প্রমাণ।

১৩ ই জুলাই, ২০০৯ রাত ১২:৩০০

লেখক বলেছেন:

ইচ্ছা করলেই কাউকে আইকন বানানো যায়না কৌশিক। ওটা অন্য ব্যাপার। কি ভাবে যেন হয়ে যায়।

অনলাইন ক্যাম্পেইনটা তাহলে শুরু করুন। জানেন তো, আমি আছি। থাকব।

১৩২. ২৬ শে নভেম্বর, ২০১১ রাত ৯:২৫০

এ.বি.এম. মহসিন বলেছেন: আমরা মনে করি যেখানে বাঁধ সেখানেই বিপর্যয়। তাই বাঁধ মুক্ত জীবনের জন্য চাই বাঁধ মুক্ত পৃথিবী।

যারা আমাদের সাথে একমত তারা আমাদের ফেসবুক গ্রুপে অংশ নিয়ে এই আন্দোলনকে শক্তিশালী করুন আর শেয়ার করুন আপনার মতামত।

পোষ্টটি “বাঁধ মুক্ত পৃথিবী চাই” ফেসবুক গ্রুপে শেয়ার করা হল
Top of Form

আপনার মন্তব্য লিখুন

কীবোর্ডঃ  বাংলা                                    ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয় ভার্চুয়াল   english

নাম

       

Bottom of Form

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s